চাকরির দরখাস্ত লেখার নিয়ম

চাকরির দরখাস্ত লেখার নিয়ম কিভাবে একটি প্রফেশনাল ওয়েতে আপনি চাকরির দরখাস্ত লিখবেন তার একটি পরিপূর্ণ ধারণা।

দরখাস্ত লেখার নিয়মাবলী
Application / দরখাস্ত লেখার নির্ধারিত কিছু নিয়ম রয়েছে যা কোন অবস্থাতেই বাদ দেওয়া সম্ভব নয়। আপনি যে কোন প্রকারের আবেদন লিখুন না কেন, আবেদন লেখার সময় নিম্নবর্ণিত নিয়মাবলী মেনে দরখাস্ত লেখা সম্পন্ন করতে হবে।

দরখাস্ত লেখার নিয়ম ২০২৩

যে কোন সালে চাকরির জন্য দরখাস্ত লিখতে হয় যে যে বিষয়ে আপনাকে অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে।

  1. আবেদনের তারিখ (যে দিন আপনি আবেদন করবেন তার তারিখ)
  2. প্রাপক/বরাবর (যার নিকট আবেদন করছেন তার নাম, পদবী ও ঠিকানা)।
  3. আবেদনপত্রের বিষয়।
  4. সম্ভাষণ/জনাব/স্যার/ম্যাডাম ইত্যাদি।
  5. আবেদনের বিষয়ে গঠনমূলক বিস্তারিত বর্ণনা।
  6. আবেদনকারীর নাম, ঠিকানা।

আপনি যে ধরনের অ্যাপ্লিকেশন লিখছেন না কেন, বিষয় নির্বিশেষে প্রায় সমস্ত অ্যাপ্লিকেশন লেখার সময় কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে। সেসব বাদ দিলে আবেদন পূর্ণতা পায় না। আবেদনপত্র লেখার সময় ছয়টি বিষয় মাথায় রাখতে হবে-

  • তারিখঃ দরখাস্তের শুরতেই তারিখ লিখতে হয়। অনেকেই আবার দরখাস্তের শেষ তারিখ লেখে যাহোক যেখানেই লেখুক একটি দরখাস্ত লিখতে তারিখ লাগবেই । আপনি যে তারিখে দরখাস্ত জমা দিবেন সেই তারিখ দিয়ে দরখাস্ত লিখতে হবে।
  • প্রাপকঃ দুই  নাম্বার পয়েন্ট প্রাপক, এই প্রাপক ছাড়াও কিন্তু দরখাস্ত কল্পনা করা যায় না । কারন দরখাস্ত যার কাছে পাঠাবেন সেই তো প্রাপক এখন যদি আপনি দরখাস্তে প্রাপকের নাম ঠিকানা না লিখেন তাহলে সেই দরখাস্তের কোন মুল্যই নেই।
  • দরখাস্তের  বিষয়ঃ দরখাস্ত লেখার এইটা একটি গুরুত্বপূর্ন পয়েন্ট । আপনি কি বিষয়ে দরখাস্ত লিখতে চান সেটা আপনাকে উল্লেখ করতে হবে।
  • সম্ভাষণঃ এটা একটি সিরিয়াস পয়েন্ট । আপনি দরখাস্ত লিখতে যদি স্যার/মেডাম/মহদোয়/ এসব সম্মান সূচক কোন  শব্দ না লিখেন তবে আপনার দরখাস্ত  লেখার আদবই ঠিক থাকবে না  এবং আপনার দরখাস্ত মুঞ্জুর না হওয়ার গ্যরান্টি ৯৯% !
  • মুল বক্তব্যঃ এই পয়েন্টটা যেকোন দরখাস্ত বা চিঠির সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ন বিষয় । এই পয়েন্টে এসে আপনি কি উদ্দেশ্যে দরখাস্ত লিখছেন সেটা বর্ণনা করবেন । আপনার কিছু চাওয়ার থাকলে সেটা চাইবেন । এই পয়েন্টে যে যত ভালো করে লিখতে পারে তার দরখাস্তের সফলতা ততো বেশী ।
  • নিবেদকঃ দরখাস্ত/আবেদন পত্র/চিঠি পত্র  লেখার শেষ ধাপ হলো নিবেদক অংশ । এই অংশে আবেদনকারী তার নাম ঠিকানা তার পদবী উল্লেখ্য করে থাকেন ।  এইটা কিন্তু কম গুরুত্বর্পূন বিষয়না । আবেদন পত্রে যদি আবেদনকারীর নাম ঠিকানা সঠিকভাবে না  লেখা থাকে তবে সেই আবেদন মুঞ্জুর হবে কিসের উপর?

সহকারী শিক্ষক পদে চাকরি দরখাস্ত লেখার নিয়মঃ

তারিখঃ- ৫/১/২০২২

বরাবর

সভাপতি

আলোর ভূবন উচ্চ বিদ্যালয়

সিরাজগঞ্জ সদর, সিরাজগঞ্জ ।

বিষয়ঃ সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য আবেদন ।

জনাব,

বিনীত নিবেনদ এই যে , গত ২/১/২০২২ ইং তারিখে শীর্ষবার্তা ডটকম প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানতে পারলাম যে আপনার বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে ৫ জন লোক নিয়োগ করা করা হবে । আমি সহকারী শিক্ষক বিজ্ঞান পদের জন্য একজন পার্থী হিসেবে আমার শিক্ষাগত যোগ্যতা সহ যাবতীয় আনুষাঙ্গিক কাগজপত্র জনাবের নিকট তুলে ধরলাম ।

১। নামঃ মোছাঃ নামিরা খাতুন

২। পিতার নামঃ মোঃ আব্দুর রহিম

৩। মাতার নামঃ মোছাঃ আয়েশা বেগম

৪। বর্তমান ঠিকানাঃ কাঠেরপুল, সিরাজগঞ্জ সদর সিরাজগঞ্জ

৫। স্থায়ী ঠিকানাঃ কাঠেরপুল সিরাজগঞ্জ সদর , সিরাজগঞ্জ

৬। জন্ম তারিখঃ ১৯/১/১৯৯৭

৭। জাতীয়তাঃ বাংলাদেশী

৮। ধর্মঃ ইসলাম

৯। শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ

পরিক্ষার নাম  বোর্ড পাশের সন  প্রাপ্ত গ্রেড
এস এস সি  রাজশাহী  ২০১২  জিপিএ ৫
 এইচ এস সি  রাজশাহী  ২০১৪  জিপিএ ৫
বি এস সি  ঢাকা  ২০১৯  প্রখম শ্রেনী
এম এস সি  ঢাকা ২০২১  প্রথম শ্রেনী

 

১০। অভিজ্ঞতাঃ ( এখানে আপনার অভিজ্ঞতা দেবেন )
অতএব, মহোদয়ের নিকট বিনীত আবেদন এই যে, আমকে আপনার বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ পেতে আপনার একান্ত মর্জি হয়।

বিনীত
আপনার একান্ত বাধ্যগত
(মোছাঃ নামিরা খাতুন)
মোবাঃ –
তারিখ-০৫/০১/২০২২ খ্রিঃ

সংযুক্তিঃ
১। পাসপোর্ট সাইজের সত্যায়িত ছবি ২ কপি।
২। একডেমিক সকল সনদপত্রের সত্যায়িত কপি।
৩। চারিত্রিক সনদপত্র।
৪। নাগরিকত্ব সনদপত্র।
৫। ৫০০ টাকার পোস্টাল অর্ডার।

You cannot copy this post.