সহকর্মীর বিদায় অনুষ্ঠানের বক্তব্য

সহকর্মীর বিদায় অনুষ্ঠানের বক্তব্য অনেকে জানে না, যে কিভাবে সহকর্মীর বিদায় অনুষ্ঠানের বক্তব্য দিতে হয়। বর্তমান যুগে আমরা এমন একটা সময়ে বাস করছি, যেখানে যে কোনো বিষয় অনুসন্ধান করলেই যে কোনো বিষয় সম্পর্কে যানা সম্ভব।

আজকের এই নিবন্ধ এর মাধ্যমে খুব সহজ ভাবে সাধারন বিষয়টা তুলে ধরব, যে কিভাবে সহকর্মীর বিদায় অনুষ্ঠানের বক্তব্য দিবে।

সহকর্মীর বিদায় অনুষ্ঠানের বক্তব্য

“বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম।

আজকের কর্মসূচিতে আমাদের কোম্পানির এমডিসহ কোম্পানির সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও উপস্থিত আছেন। সবাইকে আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা। অন্যান্য জাতির জন্য আন্তরিক অভিনন্দন এবং শুভেচ্ছা।

আপনারা সবাই অবগত আছেন যে দীর্ঘদিন ধরে আমাদের সাথে কর্মরত মোঃ নিয়ামত আলী ভাইয়ের বদলি উপলক্ষে আজকের এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। আমি বিদায় বলতে চাই না, তবে আমাকে বিদায় শব্দটি গ্রহণ করতে হবে। আপনার জীবনে নতুন কিছুর যাত্রা শুরু হোক বিদায়ের হাত ধরে।

মোঃ নিয়ামত আলী ভাই দীর্ঘদিন ধরে আমাদের কোম্পানিতে কাজ করছেন। আপনারা সবাই জানেন, আমাদের সব সরকারি চাকরি এক জায়গায় হয় না। উত্তোলন কর্মকর্তার নির্দেশে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় বদলি করতে হয়। একই ভাবে আমাদের মাঝ থেকে বিদায় নিচ্ছেন মোঃ নিয়ামত আলী ভাই।

আসলে আজ কিছু বলার নেই। আপনারা সবাই মোঃ নিয়ামত আলী ভাইয়ের আচার-আচরণ ও সততা অনুসরণ করেছেন। তিনি সবসময় আমাদের সংগঠনকে আরও ভালো করার চেষ্টা করেছেন। আমাদের সংগঠনে আজ এত সাফল্য অর্জনের পেছনে তার ভূমিকা অপরিসীম। যা বলার অপেক্ষা রাখে না। বিশেষ করে যখন করোনা মহামারীতে আমাদের সংগঠন সম্পূর্ণ ভেঙ্গে গিয়েছিল। তবে সংগঠনের কাজে তিনি কখনো পিছিয়ে পড়েননি।

আমাদের মধ্যে এমন অনেক কর্মকর্তা ছিলেন, যারা করোনা মহামারীর সময়ে ঠিকমতো অফিসে আসেননি বা আসার চেষ্টা করেননি। কিন্তু সেই সময় মোহাম্মদ  নিয়ামত আলী ভাই নিয়মিত অফিসে এসে এই পরিস্থিতির মধ্যেও আমাদের প্রতিষ্ঠানের ভালো জন্য কাজ করেছেন। যা অন্যান্য সকল কর্মকর্তার মাঝে এমন দৃষ্টান্ত ছিল না। যে দৃষ্টান্তগুলো শুধু তার মধ্যেই আমরা পেয়েছি।

যদিও তিনি আমার সহকর্মী ছিলেন। কিন্তু সব সময় আমাকে ছোট ভাইয়ের মতো সকল কাজে সহযোগিতা করার চেষ্টা করেছেন। আমার এখনো মনে পড়ে, যখন প্রথম আমি এই অফিসে জয়েন করি তখন আমার অফিসে কাজের বিষয়ে সঠিক ধারণা ছিল না।

তখন তিনি আমাকে সব সময় কাজে সহযোগিতা করতেন। যখন নতুন একজন কর্মকর্তা আসলে অন্যান্য সকল কর্মকর্তারা বিভিন্ন ধরনের আদেশ করেন। কিন্তু  মোঃ নিয়ামত আলী ভাই ছিলেন এর বিপরীতে। নতুন অবস্থায় আমাকে সব সময় অনেক কাজে সহায়তা করেছেন।

শুধু অফিসের কাজেই নয় পারিবারিক ও অন্যান্য সকল সমস্যার সমাধান খুব সহজেই তার কাছে পেয়ে যেতাম। একবার আমি পারিবারিক আর্থিক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিলাম। আমার টাকার খুব প্রয়োজন ছিল। আমি আমার বন্ধুবান্ধব ও নিকট আত্মীয়দের কাছে টাকা ধার নেওয়ার অনেক চেষ্টা করেছিলাম।

কিন্তু কোথাও টাকা ধার পাইনি। সর্বশেষ আমি যখন মোঃ নিয়ামত আলী ভাইকে টাকা ধারের কথা বলি। তখন খুব সহজে সে আমাকে টাকা ধার দেয়। তার টাকা পরিশোধ করতে আমরা এক মাসে দেরি হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীতে তিনি একটা কথাও আমাকে বলেননি। এটা থেকে বোঝা যায় তিনি অনেক বড় মনের একজন মানুষ ছিলেন।

সততার দিক থেকে মোঃ নিয়ামত আলী ভাই অনেক এগিয়ে ছিলেন। তিনি সর্বদা সবসময় সত্য কথা বলতেন। যা থেকে আমাদের সকল সহকর্মীর মধ্যে সততা ভাব চলে এসেছিল। তার কাছ থেকে আমরা বিভিন্ন শিক্ষা অর্জন করেছি। এর মধ্যে অন্যতম একটি হলো ধর্মীয় শিক্ষা। অফিসে যখনই আমরা সবাই অবসর সময় পেতাম। তখন মোঃ নিয়ামত আলী আমাদের মধ্যে ধর্মীয় আলোচনা শুরু করত।

প্রথম পর্যায়ে আমার ধর্মীয় আলোচনা শুনতে খুবই খারাপ লাগতো। পরবর্তীতে এক সপ্তাহ ধর্মীয় আলোচনাগুলো শোনার পর আমি তার মর্ম বুঝতে পারি। তারপর থেকে নিয়মিত তার ধর্মীয় আলোচনাগুলো শুনে আমল করার চেষ্টা করি। বিশেষ করে তার আলোচনা গুলো শোনার আগে আমি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়তাম না।

কিন্তু যখনই তার ধর্মীয় আলোচনা গুলো আমার জীবনে প্রতিফলিত হতে শুরু করে। তখন থেকেই মূলত আমি ধর্মীয় বিষয়কে খুবই গুরুত্বের সহকারে দেখতে থাকি। আমার ধর্মীয় শিক্ষা ও পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়া সম্পূর্ণ কৃতিত্ব মহান আল্লাহতালা পর, সব থেকে বেশি কৃতিত্ব মোঃ নিয়ামত আলী ভাইয়ের। যা আমি কখনো শোধ করতে পারবো না।

আমার মত এমন অনেক সহকর্মী রয়েছে তার যারা তার থেকে অনেক শিক্ষা অর্জন করে বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করে সফলতা অর্জন করেছে। মোটকথামোঃ নিয়ামত আলী ভাই ছিলেন অত্যন্ত ভালো ও মহৎ ব্যক্তিত্বের একজন মানুষ। যার তুলনা দেওয়ার মত না। তিনি ছিলেন অতোলনীয় একজন ব্যক্তিত্ব। আমি সব সময় তার সকল কাজে অনুসরণ করার চেষ্টা করতাম। শুধু আমি নয় আমাদের অফিসের প্রায় অধিকাংশ সহকর্মীরা তাকে অনুসরণ করে।

না চাইলেও দিতে হবে বিদায়, কিন্তু আছেন আপনি সবার হৃদয় জুড়ে। আপনার ভালোবাসা, স্নেহ কেউ কখনো ভুলবে না স্যার, শুভ বিদায়!

সত্যি কথা বলতে আমার মন তাকে কখনোই বিদায় দিতে চাচ্ছে না। শুধুমাত্র সরকারের নির্দেশনা বলেই আজকে আমাদের সবাইকে তাকে বিদায় জানাতে হবে। আমাদের অফিসের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীর আপনার সাথে যেহেতু দীর্ঘ সময় পার করেছে।

সেক্ষেত্রে আমাদের বিভিন্ন রকমের ভুল ভ্রান্তি হয়ে থাকবে। তাই আপনার নিকট সকলের পক্ষ থেকে আমি ক্ষমা চাচ্ছি। ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃত সকল ভুলের আপনি মন থেকে ক্ষমা করে দিবেন। এর পাশাপাশি আমরা যেন আপনার মত মহৎ একজন ব্যক্তিত্ব হতে পারে তার জন্য দোয়া করবেন।

আমার সংক্ষিপ্ত বক্তব্য আর বাড়াতে চাচ্ছি না। আমার বক্তব্যের মধ্যে যদি কোন ভুল ভ্রান্তি হয়ে থাকে সবাই ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। মোঃ নিয়ামত আলী স্যার আপনি যেখানেই থাকেন সর্বদা ভালো থাকবেন। আমাদের প্রতিষ্ঠানের জন্য সর্বদা দোয়া করবেন। সবাইকে আসসালামু আলাইকুম।

আরো পারোঃ

কলিগের বিদায় অনুষ্ঠানের বক্তব্য

1. এখানে আপনার সময়কালে আমি আপনার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি। আমি আপনাকে ভবিষ্যতের জন্য শুভকামনা জানাই এবং আমি জানি যে আপনি সেই নতুন অবস্থানে দোলা দেবেন। আপনাকে ধন্যবাদ এবং বিদায়!
2. আমি এখানে আপনাকে গুরুত্ব সহকারে মিস করব। আপনার নতুন প্রচেষ্টা এবং অন্তহীন দুঃসাহসিক সব সেরা. আবার দেখা হবে!

3. একজন ম্যানেজার হওয়া কঠিন হতে পারে কিন্তু আপনার কর্মক্ষমতা সবসময় আমার কাজ সহজ করে তোলে। আমরা সত্যিই এখানে আপনার কাজ মিস করতে যাচ্ছে. আপনার ভবিষ্যতের জন্য সমস্ত ভাগ্য এবং শুভেচ্ছা!
4. আপনি এখানে যে মাসিক লক্ষ্য এবং কর্মক্ষমতা অর্জন করেছেন তা বিস্ময়কর ছিল। আপনি এখানে অন্য স্তরে মান সেট করুন. একটি ভারী হৃদয় দিয়ে, আমরা আপনাকে বিদায় জানাই!

5. আপনার মত একজন সহকর্মীর সাথে কাজ করা মজার ছিল। আমরা এখানে আপনাকে মিস করতে যাচ্ছি. বিদায় বন্ধু!
6. কর্মক্ষেত্রকে একটি মজার জায়গা বানানোর জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার সাথে কাজ করে আনন্দিত হয়েছে। বিদায়, এবং আপনার নতুন চাকরিতে আপনার সমস্ত সাফল্য কামনা করি!

7. আমরা আমাদের মাইলফলক অর্জনে সাহায্য করার জন্য এবং আমাদেরকে একটি ভাল সংস্থায় পরিণত করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানাতে চাই৷ বিদায়, এবং সাফল্য আপনাকে সর্বত্র অনুসরণ করতে পারে!
8. আপনি ব্যক্তিগতভাবে এই কোম্পানিতে অবদান রেখেছেন এবং অন্যদেরকেও একটি পার্থক্য করতে অনুপ্রাণিত করেছেন। এই কোম্পানী সবসময় আপনাকে একজন মহান কর্মচারী হিসাবে মনে রাখবে!

9. আপনি সবসময় কাছাকাছি হতে অনেক মজা হয়েছে. উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে কোম্পানির সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। বিদায় এবং সব ভাল!
10. আপনি আমার সেরা সহকর্মীদের একজন ছিলেন এবং সেই ব্যস্ত দিনগুলিতে আমার পাশে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। এটা সুন্দর ছিলো!

11. আমি কখনই ভাবিনি যে এমন একটি দিন আসবে যখন আমাকে আপনাকে বিদায় জানাতে হবে। সবকিছু এবং একসাথে কাজ করার মধুর স্মৃতির জন্য আপনাকে ধন্যবাদ!
12. এমন একজন সহকর্মীকে বিদায় জানানো যে বন্ধুর চেয়ে বেশি ছিল তা সত্যিই কঠিন। আমি আপনাকে মিস করব এবং আপনি রেখে যাওয়া শূন্যতা পূরণ করা খুব কঠিন হবে!

13. শুধু একটি দ্রুত নোট. আপনি আপনার গৌরবময় ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে ভাগ্য এবং সাফল্য সর্বদা আপনার সাথে থাকুক।
14. যখন আপনি কাছাকাছি ছিলেন তখন ক্লান্তিকর অফিসের সময় অনেক বেশি আরামদায়ক বলে মনে হয়েছিল। আপনি প্রতিটি দিন সঙ্গে এখানে মিস করা হবে. বিদায় এবং সব ভাল!

15. আপনি পুরো বিভাগের জন্য একটি সম্পদ ছিল. আমরা অবশ্যই এখানে আপনাকে মিস করতে যাচ্ছি। আপনার সামনে একটি মহান ভবিষ্যত কামনা করছি!
16. আমরা আপনার সামনের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য ভাগ্য এবং সাফল্য ছাড়া আর কিছুই কামনা করি না যখন আপনি একটি নতুন পথে যাত্রা করছেন।

17. কখনও কখনও আপনি একজন ব্যক্তির মূল্য উপলব্ধি করেন যখন আপনি তাকে বিদায় জানান। আমরা এখানে আপনাকে মিস করব এবং আপনার উত্তেজনাপূর্ণ ভবিষ্যতের জন্য আপনাকে শুভকামনা জানাব।

18. এই বিদায় শুধুমাত্র সাময়িক হতে পারে। এবং আসন্ন দিন আপনার ব্যক্তিগত এবং পেশাগতভাবে সমস্ত সাফল্য বয়ে আনুক। আশা করি শীঘ্রই দেখা হবে!
19. আমি সেই হেড হান্টারকে খুঁজতে চাই যে আপনাকে শিকার করেছে এবং তাকে বলতে চাই সে সর্বকালের সেরা শিকার পরিচালনা করেছে। বিদায় বন্ধু!
20. আপনার মত একজন সহকর্মীর উষ্ণ উপস্থিতি ছাড়া ঠান্ডা মিটিং রুমের দেয়াল অনেক ঠান্ডা হবে। বিদায় বন্ধু!

সহকর্মীর বিদায়ী বক্তব্যে কি বলা হয়?

এটা বিদায় নয়, এটা আপাতত বিদায়! আপনি যা করেছেন কোম্পানির জন্য তার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ । আপনি এই কোম্পানির একটি মূল্যবান ব্যক্তি ছিলেন। এই কোম্পানির অগ্রগতির জন্য, আপনার ভূমিকা ছিল অপরিসীম।

কিভাবে কাজের সহকর্মীর শেষ বিদায় জানাতে হয়?

আমরা সহকর্মীকে সেই বিদায় জানাতে হলে কিছু তার অবদান মূলক বক্তব্য তুলে ধরুন, যা তিনি ইতিপূর্বে করেছে।

মন্তব্য করুন

This content is protected! By banglanewsbdhub