চুই ঝালের দাম, উপকারিতা, ব্যবহার

চুই ঝালের দাম – চুই ঝাল একটি ঝাল গাছের নাম, বেশিরভাগ মানুষের জীবনে চুই ঝাল ব্যবহৃত মসলা হিসাবে। এটি দক্ষিণ এশিয়ার খোকা মসলা হিসেবে পরিচিত। চুই ঝাল একটি উদ্ভিদ যা আমাদের জন্য খুবই উপকারী। চুইঝাল মাংসে দেওয়ার মাধ্যমে মাংসের স্বাদ বৃদ্ধি করা হয়।

চুই ঝালের দাম

চুইঝালের প্রকার দাম (প্রতি কেজি)
এঁটো চুই ৪০০-১,৬০০ টাকা
গাছ চুই ৪০০-১,৬০০ টাকা
ডাল চুই ৪০০-১,৬০০ টাকা

তিন প্রকার চুইঝাল এবং তাদের বৈশিষ্ট্যগুলিকে মোটামুটিভাবে নিম্নরূপ বর্ণনা করা যেতে পারে:

এঁটো চুই – গাছের কান্ড বা মূল অংশকে এঁটো চুই বলে। এটি সেরা এবং সুস্বাদু চুইঝালের মধ্যে প্রশংসিত এবং খুলনার বাজারে খুব কমই পাওয়া যায়।

গাছ চুই- মোটা শাখা বা কাণ্ডকে গাছের চুই বলে। এটি সুস্বাদু এবং আপনার গালে গলে যায়। এই ধরনের চুই খুব জনপ্রিয় এবং প্রায় সব জায়গায় পাওয়া যায়।

ডাল চুই – গাছের সরু ডালপালা বা ডালপালাকে ডাল চুই বলা হয় এবং এতে ফাইবার বেশি থাকে। ভিন্ন স্বাদের কারণে অনেকেই এই চুই পছন্দ করেন।

খুলনার বাজারে চুইঝালের দাম বিভিন্ন ধরনের চুইঝালের জন্য প্রতি কেজি ৪০০-১৬০০ টাকা, প্রতি বছর কোরবানির ঈদে চাহিদার বেশির ভাগ সময় সামান্য পরিবর্তন হয়। এ সময় চুইঝালের দাম স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বাড়তে পারে।

চুই ঝালের দামের পরিসংখ্যান

চুই ঝালের দাম বাংলাদেশে বিভিন্ন স্থানে এবং সময়ে পরিবর্তন করতে পারে। এটি স্থানীয় বাজারের পরিস্থিতি, চুই ঝালের পরিমাণ, এবং বাজারের চাহিদা অনুযায়ী বৃদ্ধি পেতে পারে।

সম্প্রতির তথ্য অনুযায়ী, খুলনা, যশোর, সাতক্ষীরা, নড়াইল, এবং ঢাকা এই স্থানে চুই ঝাল প্রাপ্য এবং এটি বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন দামে পাওয়া যেতে পারে। এছাড়াও, ২০২২ সালে দক্ষিণাঞ্চলে চুই ঝালের দাম ৪০০ টাকা প্রতি কেজি পার করেছিল।

চুই ঝালের দামের পরিবর্তন

চুই ঝালের দাম সময়ে পরিবর্তন হতে পারে, এবং এটি বর্তমান দাম সম্পর্কে স্থানীয় বাজারের জানার জন্য স্থানীয় চুই ঝাল বিপণিকে পর্যালোচনা করা উচিত।

চুই ঝালের দামের তালিকা (সনদপত্র)

চুইঝালের দাম (প্রতি কেজি) বেশি দাম (ঈদের সময়)
৪০০ টাকা ১,২০০ টাকা
৪০০-৮০০ টাকা
১,২০০-৩,০০০ টাকা

 

  • ৩য় মানের চুই ঝালের দাম ৪০০ টাকা, একই ঝালের দাম ঈদের সময় পাওয়া ১,২০০ টাকা।
  • ২য় মানের চুই ঝালের দাম ৪০০-৮০০ টাকা। এই ঝালের দাম সময় সময় একই রকম থাকে না।
  • ১ম মানের চুই ঝালের দম ১,২০০-৩,০০০ টাকা। এই ঝালের দাম সময় সময় একই রকম থাকে না।
স্থান দাম (প্রতি কেজি)
খুলনা ৪০০ টাকা
যশোর উপলব্ধ নয়
সাতক্ষীরা উপলব্ধ নয়
নড়াইল উপলব্ধ নয়
ঢাকা উপলব্ধ নয়

চুই ঝালের প্রয়োগ

চুই ঝাল বাংলাদেশের খাবারের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ। এটি বিভিন্ন মাংসের স্বাদ বাড়াতে ব্যবহৃত হয় এবং খাবারে একটি বিশেষ স্বাদ যোগ করে। এর ব্যবহার একটি স্বাদের পরিচিতি সৃষ্টি করে এবং বিশেষভাবে কোরবানির ঈদে এই মসলা ব্যবহার করা হয়।

এই বাংলা টেবিলে চুইঝালের ব্যবহার, রাসায়নিক উপাদান, এবং ঔষধি গুণগুণ সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য যোগ করা হয়েছে:

উপাদান/ব্যবহার বিশেষ বর্ণনা
চুইঝাল ব্যবহার রুচি বাড়ানোর জন্য রান্নার জন্যে চুইঝাল গাছের কান্ড ও ডাল মসলা হিসেবে ব্যবহার করা হয়। রান্নায় ঝাল স্বাদ আনতে মরিচের পাশাপাশি চুইঝালও ব্যবহার করা হয়।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
ঝোল জাতীয় রান্না চুইঝাল প্রায় সব কিছুতেই চুইঝাল স্বাদ বৃদ্ধি করে, এবং ঝোল জাতীয় রান্নাসহ প্রায় সব খাবারেই এর উপস্থিতি পাওয়া যায়।
রান্নার রুচি বাড়ানো এবং ক্ষুধা দূর করা চুইঝালের ব্যবহার রান্নার রুচি বাড়ানোর জন্য এবং ক্ষুধামন্দা দূর করতে সারাদেশে প্রচুর সময় অনেক উপকারী।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
রান্নার পর চুইঝাল টুকরো চুইঝালের টুকরো রান্নার পর বা রান্নার মধ্যে কোথাও চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া হয়।
চুইঝালের রাসায়নিক উপাদান
  • – পিপালারটিন – ৫%
  • – অ্যাকালয়েড – ৫%
  • – সুগন্ধি তেল – ৫%
  • – পোপিরন – ৪%-৫%
  • – পিপারিন – ১৩%-১৪%
  • – পোলার্টিন, গ্লাইকোসাইডস, মিউসিলেজ, গ্লুকোজ, ফ্রুক্টোজ, সিজামিন, পিপলাসটেরল ইত্যাদি রয়েছে।
চুইঝালের ঔষধি গুণ
  • – চুইঝাল গ্যাস্ট্রিক সমস্যার সমাধান করে ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।
  • – খাবারের রুচি বাড়াতে এবং ক্ষুধামন্দা দূর করতে কার্যকর ভূমিকা রাখে।
  • – পাকস্থলী ও অন্ত্রের প্রদাহ সারাতে চুইঝাল অনেক উপকারী উপাদান।
  • – স্নায়ুবিক উত্তেজনা ও মানসিক অস্থিরতা প্রশমন করে চুইঝাল।
  • – শারীরিক দুর্বলতা কাটাতে এবং শরীরের ব্যথা সারায়।
  • – কাশি, কফ, হাঁপানি, শ্বাসকষ্ট থেকে উপশম করে।
  • – ডায়রিয়া ও রক্তস্বল্পতা দূর করতে সাহায্য করে।
  • – এক ইঞ্চি পরিমাণ চুই লতার সাথে আদা পিষে খেলে সর্দি সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

সাম্প্রতিক প্রশ্ন

১. চুই ঝাল কোথায় পেতে পারি?

উত্তর: চুই ঝাল বাংলাদেশে বিভিন্ন স্থানে পেতে পারেন, এবং এটি স্থানীয় বাজারে এবং অনলাইনে উপলব্ধ থাকতে পারে।

২. চুই ঝালের দাম কত?

উত্তর: চুই ঝালের দাম বাংলাদেশে প্রাপ্য এবং এটি স্থানের বাজারে এবং সময়ে পরিবর্তন করতে পারে। সম্প্রতির তথ্য অনুযায়ী, চুই ঝালের দাম খুলনা, যশোর, সাতক্ষীরা, নড়াইল, এবং ঢাকা এই স্থানে বিভিন্ন দামে পাওয়া যেতে পারে।

৩. চুই ঝাল ব্যবহারের অন্যান্য উপকারিতা কি?

উত্তর: চুই ঝাল খাবারে ব্যবহৃত হলে এটি খাবারে একটি বিশেষ স্বাদ যোগ করে এবং বিভিন্ন মাংসের স্বাদ বাড়াতে সাহায্য করে। এটি বাংলাদেশের খাবারের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ।

আমরা আপনাদের চুই ঝাল সম্পর্কে আরও কিছু জানতে সাহায্য করতে চাই, সম্প্রতির তথ্য অনুযায়ী উত্তর দেওয়া হলো। আপনি যদি আরও প্রশ্ন থাকেন, তবে দয়া করে জিজ্ঞাসা করুন।

মন্তব্য করুন