ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়

ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় : গ্রিন টি এখন শুধু পানীয় নয়, এটি একটি বিউটি প্রোডাক্ট হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ক্যামেলিয়া সাইনেনসিস উদ্ভিদ থেকে প্রাপ্ত সবুজ চায়ে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, বিভিন্ন এনজাইম, অ্যামিনো অ্যাসিড, ভিটামিন বি, ফোলেট, ম্যাঙ্গানিজ, পটাসিয়াম, ক্যাফেইন এবং বিভিন্ন ফাইটোকেমিক্যাল, যা ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। গ্রিন টি ত্বককে সুস্থ ও উজ্জ্বল রাখতে দারুণ কাজ করে। শরীরে জমে থাকা টক্সিন দূর করে ত্বক ভেতর থেকে উজ্জ্বল করে।

এটি ত্বকের দাগ, দাগ, লালভাব কমাতেও সাহায্য করে। দুটি গ্রিন টি ব্যাগ কেটে দুই চামচ মধু এবং সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে মুখে, ঘাড়ে এবং ত্বকে লাগান উজ্জ্বল ত্বকের জন্য। ১০ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এছাড়া সবুজ চায়ে উপস্থিত ট্যানিন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট চোখের নিচের কালো দাগ বা ফোলা ভাব দূর করে। সবুজ চায়ে উপস্থিত ভিটামিন কে এতে সাহায্য করে। দুটি গ্রিন টি ব্যাগ ফ্রিজে আধা ঘণ্টা রাখুন। চোখ বন্ধ করে টি ব্যাগ দুই চোখের ওপর ১৫ মিনিট রাখুন।

ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়

অলিভ ওয়েল ম্যাসাজ
আপনি নিজেই একটি পরীক্ষা করতে পারেন। ঘুমাতে যাওয়ার মাত্র ১৫ মিনিট আগে আপনার আঙ্গুল দিয়ে চোখের চারপাশে অল্প পরিমাণে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করুন। ১৫ মিনিট পর ভেজা তুলা দিয়ে মুছে ফেলুন। ডার্ক সার্কেল সমস্যা কত দ্রুত সমাধান করা হয় তা দেখুন। এ ছাড়া মুখ ধোয়ার পর মুখে ও ঘাড়ে সামান্য অলিভ অয়েল লাগালে ত্বক নরম ও মসৃণ হবে। গোসলের পর ভেজা ত্বকে অলিভ অয়েল লাগালে ত্বক সহজে তেল শোষণ করতে সাহায্য করবে এবং পুষ্টি পাবে।

ডার্ক চকোলেট আপনাকে চমকে দেবে
ত্বকের যত্নে ডার্ক চকলেট? এটা কিভাবে সম্ভব? তবে বিশ্বাস করুন, চকোলেট শুধু সুস্বাদু খাবারের নাম নয়, এটি ত্বকের যত্নে খুবই কার্যকরী। চকোলেটে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং পুষ্টি ত্বককে সুস্থ ও উজ্জ্বল রাখে। এর জন্য ডার্ক চকলেট খেতে পারেন। তবে ৭০ শতাংশের কম কোকো আছে এমন চকোলেট না খাওয়াই ভালো। কারণ যে চকোলেটে ক্যাকো বেশি থাকে তাতে চিনির পরিমাণ কম থাকে। আর চিনি আমাদের ত্বকের জন্য ভয়ানক। আপনি যদি কিছুক্ষণের মধ্যে ডার্ক চকলেট না খেয়ে থাকেন তবে আপনার ত্বককে নরম এবং কোমল রাখতে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

সূর্য এড়িয়ে চলুন
ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। যতটা সম্ভব রোদ এড়িয়ে চলুন। বাইরে যাওয়ার সময় অবশ্যই ছাতা ও স্কার্ফ ব্যবহার করতে হবে। বাজারে অনেক ধরনের সানস্ক্রিন পাওয়া যায়, কিন্তু সেগুলো অনেক ধরনের ত্বকের জন্য উপযুক্ত নয়। বাইরে থেকে ফেরার পর প্রতিদিন ১৫ মিনিট মুখে টমেটোর রস বা চূর্ণ টমেটো লাগান। তারপর ধুয়ে ফেলুন।

ত্বক সবসময় পরিষ্কার রাখুন
আমরা প্রায় প্রতিদিনই বাড়ি থেকে বের হই। যেকোনো ঋতুতে বাইরে গেলে ত্বকে ধুলোর আস্তরণ পড়ে। বাড়ি ফেরার পর এই ধুলো দূর হতে চায় না শুধু ফেসওয়াশ দিয়ে। আর এই সব ধুলো দূর করতে আপনাকে প্রতিদিন ত্বকের উপরিভাগ পরিষ্কার করতে হবে। কিন্তু প্রতিদিন স্ক্রাবিং করাও সম্ভব নয়। তাই আপনাকে ত্বকের উপরিভাগ হালকা করে অন্য কোনো উপায়ে পরিষ্কার করতে হবে। এজন্য প্রথমে ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। এটি আলগা ময়লা পরিষ্কার করবে। তারপর কাঁচা দুধে তুলা ভিজিয়ে সেই তুলো দিয়ে মুখ ভালো করে পরিষ্কার করুন। কালো করা তুলা দেখাবে আপনার ত্বকে কতটা ময়লা জমেছে।

ত্বকে ঘরে তৈরি স্কিন লাইটেনিং মাস্ক লাগান
স্কিন ব্রাইটনিং মাস্ক ব্যবহার করতে হবে ৭ দিনে ত্বক উজ্জ্বল করতে। আর ঘরেই বানিয়ে ফেলুন। এই মাস্কটি প্রতিদিন ব্লিচিংয়ের মতো ব্যবহার করুন। ১ সপ্তাহের মধ্যে রঙ উজ্জ্বল হবে। – ১ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো নিন। হলুদ ভালো করে নিতে হবে। হলুদের গুঁড়াও ব্যবহার করতে পারেন। ৩ টেবিল চামচ লেবুর রস যোগ করুন এবং এটি ভালভাবে মেশান। ত্বকে প্রয়োগ করুন। ১৫ মিনিট পর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। আপনার অ্যালার্জি থাকলে ব্যবহার করবেন না। – যাদের অ্যালার্জির সমস্যা আছে তাদের মুখে ২ টেবিল চামচ মধু ও ২ টেবিল চামচ টক দই মিশিয়ে নিন। ২০ মিনিট পর পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

টমেটোর অনেক উপকারিতা
টমেটোতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম এবং ভিটামিন সি, যা উজ্জ্বল ত্বক পেতে সাহায্য করে। টমেটোতে লাইসোপেন নামক একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা ত্বকের বিভিন্ন দাগ, বলিরেখা এবং শুষ্কতা দূর করে ত্বককে মসৃণ করে। এটি সানস্ক্রিন হিসেবে কাজ করে। ত্বকের কোষের ক্ষতির বিরুদ্ধে লড়াই করে। ত্বকের লালভাব কমাতে সাহায্য করে। আরেকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে যারা প্রতিদিন পাঁচ টেবিল চামচ টমেটো পেস্ট খেয়েছেন তারা অন্যদের তুলনায় 33 শতাংশ কম পুড়েছেন।

গাজর উজ্জ্বলতা বাড়াবে
গাজরে রয়েছে ভিটামিন এ, যা ত্বককে মজবুত রাখতে সাহায্য করে। ফলে ত্বক হয়ে ওঠে মসৃণ। সপ্তাহে একবার গাজর পিষে রস বের করুন। এতে সামান্য মধু ও সামান্য টক দই মিশিয়ে মুখে লাগাতে পারেন। 20 মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। এই ফেসপ্যাকটি একবার ব্যবহার করার পর দেখবেন ত্বক উজ্জ্বল দেখাবে। আবার গাজরের পেস্টের সাথে ১ টেবিল চামচ দই, বেসন এবং কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে মুখে লাগান এবং ১ ঘণ্টা পর হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি তৈলাক্ত ত্বকের জন্য খুবই উপকারী।

ভাল চামড়া পণ্য
সবশেষে ত্বকে ময়েশ্চারাইজার লাগান। এর জন্য ভালো ব্র্যান্ডের ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা যেতে পারে। হাইড্রেশন বেশি থাকে এমন ত্বকের পণ্য কিনুন এবং ব্যবহার করুন। ব্লিচ করার পর বা মাস্ক দিয়ে মুখ ধোয়ার পর ময়েশ্চারাইজার লাগাতে ভুলবেন না। আপনি যদি রাসায়নিক প্রসাধনী ব্যবহার করতে না চান তবে জলপাই তেল ব্যবহার করুন। রাতে নাইট ক্রিম বা অলিভ অয়েল লাগিয়ে ঘুমাতে যান। ১ সপ্তাহে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে।

প্রচুর পানি পান করুন
উজ্জ্বল ত্বকের জন্য প্রচুর পানি পান করা জরুরি। দিনে ৬-৮ গ্লাস জল পান করা আবশ্যক। আপনি যদি 1 সপ্তাহের মধ্যে উজ্জ্বল ত্বক দেখতে চান তবে প্রতিদিন নিয়মিত ৬-৮ গ্লাস জল পান করুন।

ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় জানতে পেরে আপনি অনেক উপকৃত হয়েছেন। নিচে কমেন্ট করুন আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে এই পোষ্ট সম্পর্কে।

You cannot copy this post.