নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন

Spread the love

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা বাধ্যতামূলক প্রতিটি ব্যক্তির জন্মের পর থেকে। তাই একটি জন্ম নিবন্ধনের সনদ হল একজন ব্যক্তির প্রথম অবস্থায় নাগরিক রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি। আজকের প্রবন্ধের মূল বিষয় রাখা হয়েছে নতুন জন্ম নিবন্ধন এর জন্য কিভাবে আবেদন করবে তার একটি পরিপূর্ণ ধারণা।

জন্ম নিবন্ধন শংসাপত্র হল জন্মের পর একজন ব্যক্তির প্রথম রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি। জন্ম নিবন্ধন হল সরকারি রেজিস্টারে সন্তানের জন্মের আইনি রেকর্ড। বাংলাদেশে, ২০০৪ সালে, বাংলাদেশ সরকার জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন প্রণয়ন করে। এই আইন অনুযায়ী বয়স, ধর্ম, বর্ণ, জাতীয়তা নির্বিশেষে সকল বাংলাদেশীর জন্য জন্ম নিবন্ধন বাধ্যতামূলক। কিন্তু জন্ম নিবন্ধন তৈরির সময় অসতর্কতা বা অজ্ঞতার কারণে জন্ম নিবন্ধনে ভুল হতে পারে।

এমনকি জন্ম নিবন্ধনও বাতিল হয়ে যেতে পারে। ফলে পরবর্তীতে বিভিন্ন ছোটখাটো সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই প্রত্যেকের জন্য সঠিকভাবে জন্ম নিবন্ধন প্রস্তুত করতে সক্ষম হওয়া প্রয়োজন। তাই এই নিবন্ধটি সহজে এবং নির্ভুলভাবে জন্ম নিবন্ধন করার পদ্ধতি সম্পর্কে।

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে বেশি কিছু প্রয়োজন হয় না, যদি শিশু বা কম বয়সে জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা হয়। নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য লাগে ,(ক) ইপিআই টিকা কার্ড বা হাসপাতালের ছাড়পত্র (খ) হোল্ডিং ট্যাক্সের রশিদ অথবা জমির খাজনা পরিশোধের রশিদ (গ) আবেদনকারী পিতা বা মাতার মোবাইল নম্বর।

তবে মনে রাখবে শিশুর বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে প্রয়োজনে কাগজ এর পরিমাণও বাড়তে থাকবে অর্থাৎ বয়স যত বৃদ্ধি পাবে তত  কাগজ জমা দিতে হবে নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে।

আরো জানতে পারোঃ 👇
ইউনিয়ন ভিত্তিক ভোটার তালিকা
ইউনিয়ন ভিত্তিক ভোটার তালিকা

ইউনিয়ন ভিত্তিক ভোটার তালিকা: বাংলাদেশে, ভোটার তালিকা নির্বাচন কমিশন (ইসি) দ্বারা রক্ষণাবেক্ষণ করে। এতে দেশের সকল যোগ্য ভোটারের নাম, তাদের Read more

ঈশ্বরদী বাইপাস ট্রেনের সময়সূচী
ঈশ্বরদী বাইপাস ট্রেনের সময়সূচী

ঈশ্বরদী বাইপাস ট্রেনের সময়সূচী: আপনি কি ঈশ্বরদী থেকে ঢাকা ট্রেনের সময়সূচী, টিকেট ও ভাড়ার পরিমান খুজছেন? আশা করি আমরা আপনাকে Read more

যদি শিশুর বয়স ভেদে প্রয়োজনে কাগজপত্রের মাত্রা বা পরিমাণ নির্বাচন করা হয় বা নির্ধারণ করা হয় তাহলে জিরো থেকে 45 দিনে শিশুর বয়স প্রথম ধরা হয়।

তো চলো জেনে নিই শিশুর বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে কি কি কাগজপত্র লাগতে পারে নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতেঃ

 
শিশুর বয়সপ্রয়োজনীয় কাগজ 
শিশুর বয়স  থেকে ৪৫ দিনের মধ্যে হলে
  1. ইপিআই (টিকা) কার্ড বা হাসপাতালের ছাড়পত্র
  2. বাসার হোল্ডিং নম্বর এবং হাল সনের হোল্ডিং ট্যাক্সের রশিদ
  3. আবেদনকারীর পিতা-মাতা/অভিভাবকের মোবাইল নম্বর
  4. পিতা ও মাতার ডিজিটাল বা অনলাইন জন্ম নিবন্ধন কপি (যদি থাকে)
  5. পিতা ও মাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি (যদি থাকে)
শিশুর বয়স ৪৬ থেকে  বছর হলেঃ
  1. ইপিআই (টিকা) কার্ড / স্বাস্থ্য কর্মীর প্রত্যায়নপত্র (স্বাক্ষর ও সীলসহ)
  2. পিতা ও মাতার অনলাইন জন্ম নিবন্ধন কপি (যদি থাকে)
  3. পিতা ও মাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি (যদি থাকে)
  4. প্রযোজ্য ক্ষেত্রে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের প্রত্যয়নপত্র (স্বাক্ষর ও সীলসহ)
  5. বাসার হোল্ডিং নম্বর এবং হাল সনের হোল্ডিং ট্যাক্সের রশিদ
  6. আবেদনকারী পিতা-মাতা/ অভিভাবকের মোবাইল নম্বর
  7. Jonmo nibondhon form online আবেদন ফরম জমা দেয়ার সময় ১ কপি রঙ্গিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
শিশুর বয়স ৫ বছরের মাঝে হলে
  1. শিশু যে ক্লিনিক বা হাসপাতালে জন্ম হয়েছে তার সার্টিফিকেট বা ছাড়পত্র।
  2. কোন হাসপাতালে জন্মগ্রহণ না করলে তথ্য সংগ্রহকারী হিসেবে নিবন্ধক কর্তৃক নির্দিষ্ট করা কোন এনজিও কর্মীর প্রত্যয়ন পত্র
  3. এগুলো সম্ভব না হলে নিবন্ধকের জন্ম সংক্রান্ত কোন দলিলের সত্যায়িত অনুলিপি।
  4. পিতামাতার জন্ম নিবন্ধন সনদ অথবা জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি।
শিশুর বয়স ৫ বছরের বেশি হলে
  1. বয়স প্রমাণের জন্য চিকিৎসক কর্তৃক প্রত্যয়ন পত্র (বাংলাদেশ মেডিক্যাল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল কর্তৃক স্বীকৃত এমবিবিএস বা তদূর্ধ্ব ডিগ্রিধারী)
  2. সরকার কর্তৃক পরিচালিত প্রথমিক শিক্ষা সমাপনী, জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট বা শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক পরিচালিত মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট
  3. পিতা ও মাতার অনলাইন জন্ম নিবন্ধন কপি (যদি থাকে)
  4. পিতা ও মাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি (যদি থাকে)
  5. অথবা, জন্মস্থান বা স্থায়ী ঠিকানা প্রমাণের জন্য পিতা / মাতা/ পিতামহ / পিতামহীর দ্বারা স্বনামে স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে ঘোষিত আবাস স্থলের বিপরীতে হালনাগাদ কর পরিশোধের প্রমানপত্র
  6. অথবা, জমি অথবা বাড়ি ক্রয়ের দলিল, খাজনা ও কর পরিশোধ রশিদ। (নদীভাঙ্গন অন্য কোন কারনে স্থায়ী ঠিকানা বিলুপ্ত হলে)

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন

বাংলাদেশে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন শুরু হয় ২০১০ সালে। তবে ব্যক্তিগতভাবে অফিসে গিয়ে জন্ম নিবন্ধন করার প্রক্রিয়া এখনও চলছে। কিন্তু কাজের স্বাচ্ছন্দ্য, গতি এবং তথ্যের নির্ভুলতার জন্য আজকাল মানুষ অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করতে আগ্রহী হচ্ছে। অনলাইন জন্ম নিবন্ধন বা অনলাইন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা খুবই সহজ। এটি নিম্নলিখিত পদক্ষেপের মাধ্যমে উল্লেখ করা হয়েছে:

ধাপ-১: অনলাইনে নতুন জন্ম নিবন্ধন তৈরীর আবেদন করতে বা জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করতে https://bdris.gov.bd/ এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে করুন।

ধাপ-২: ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পর, আবেদনকারীকে নির্বাচন করতে হবে যে অফিস থেকে তিনি জন্ম নিবন্ধন সনদ পেতে চান। এখানে, ইচ্ছা হলে, নিবন্ধিত শিশুর জন্মস্থান বা তার বর্তমান ঠিকানা বা তার স্থায়ী ঠিকানা নির্বাচন করা যেতে পারে। সন্তান দেশের বাইরে জন্মালে বাংলাদেশ দূতাবাস নির্বাচন করতে হবে। এই পৃষ্ঠায় নির্বাচিত এলাকার অফিস থেকে জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করতে হবে।

ধাপ-৩: তারপর আবেদনকারীকে নিবন্ধনাধীন ব্যক্তির জন্য একটি অনলাইন জন্ম নিবন্ধন ফর্ম পূরণ করতে হবে।

  • ফর্মের শুরুতে আবেদনকারীর নামের দুটি অংশ ইংরেজি ও বাংলা উভয় ভাষায় লিখতে হবে। ইংরেজিতে লেখার সময় অবশ্যই ইংরেজি বড় অক্ষর ব্যবহার করতে হবে।
  • তারপর নিবন্ধনকারীর জন্ম তারিখ উল্লেখ করতে হবে।
  • জন্ম তারিখের পর দুটি ঘরে যথাক্রমে নিবন্ধনকারী পিতামাতার কত তম সন্তান এবং নিবন্ধকের লিঙ্গ উল্লেখ করতে হবে।
  • তারপর নিবন্ধনকারীকে সন্তানের জন্মস্থানের ঠিকানা লিখতে হবে।

এই ক্ষেত্রগুলি পূরণ করার পরে, নীচে ডানদিকে ‘পরবর্তী’ বোতামে ক্লিক করুন।

  • অর্থাৎ, ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশন থেকে আপনি জন্ম নিবন্ধন করতে চান, এখানে নিবন্ধনাধীন শিশু বা ব্যক্তির ঠিকানা নির্বাচন করুন এবং পরবর্তী বোতামে ক্লিক করুন।
  • নামের ২টি অংশ থাকলে নামের প্রথম অংশের বক্সে ১ম অংশ এবং নামের শেষ অংশে ২য় অংশ লিখুন।
  • নামের ৩টি অংশ থাকলে, নামের প্রথম অংশে ১ম ২টি অংশ লিখুন এবং নামের শেষ অংশের বক্সে শেষ অংশটি লিখুন।
  • যদি নামটি ১ শব্দ হয় অর্থাৎ নামের অংশটি ১ হয়, তাহলে প্রথম অংশটি খালি থাকবে। শুধুমাত্র নামের শেষ অংশ লিখুন.
  • একইভাবে ইংরেজি পূরণ করুন। এছাড়াও, অন্যান্য বিবরণ এবং জন্ম ঠিকানা সঠিকভাবে পূরণ করুন।
    অবশেষে ডান পাশের পরবর্তী বোতামে ক্লিক করুন।

এই ঘর গুলো পূরণ করা শেষ হলে নিচের ডানদিকে থাকা ‘পরবর্তী’ বাটনটিতে ক্লিক করতে হবে।’

ধাপ-৪: তারপর আরেকটি ফর্ম আসবে। এটি নিম্নলিখিত উপায়ে পূরণ করা যেতে পারে।

  • ফর্মের প্রথম কলামে, নিবন্ধকের পিতার জন্ম নিবন্ধন সনদ নম্বর লিখতে হবে। পরের দুটি বাক্সে বাংলা ও ইংরেজি
  • বড় অক্ষরে নিবন্ধনকারীর বাবার নাম লিখতে হবে।
  • পরবর্তী দুটি কক্ষে যথাক্রমে জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর ও নিবন্ধনকারীর পিতার জাতীয়তা উল্লেখ করতে হবে।
  • এরপর রেজিস্ট্রারের মায়ের বিবরণও একইভাবে পূরণ করতে হবে।

এই ঘর গুলো পূরণ করার পর আবারও পরবর্তী বাটনে ক্লিক করতে হবে।

ধাপ-৫: তারপর আপনার ঠিকানা দিতে হবে। প্রথমটি হল “আপনি কি আপনার স্থায়ী ঠিকানা হিসাবে নিম্নলিখিত ঠিকানাগুলির মধ্যে কোনটি ব্যবহার করতে চান?” আপনি যদি অপশন থেকে কোনোটি নির্বাচন না করেন, তাহলে ঠিকানা লিখতে আপনার সামনে একটি পৃষ্ঠা উপস্থিত হবে। যদি আপনার জন্মস্থানের ঠিকানা এবং স্থায়ী ঠিকানা একই হয় তবে প্রথম বিকল্পে ক্লিক করুন “জন্ম স্থানের ঠিকানা এবং স্থায়ী ঠিকানা একই”। সেক্ষেত্রে ঠিকানার তথ্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে চলে আসবে। অন্যথায় আলাদাভাবে ঠিকানা লিখুন। একইভাবে বর্তমান ঠিকানা ক্ষেত্রগুলিও পূরণ করতে হবে। ঠিকানা প্রবেশ করার পর, পরবর্তী বোতামে ক্লিক করুন।

ধাপ-৬: পরবর্তী পৃষ্ঠায় আবেদনকারীর তথ্য দিতে হবে। এখানে নিবন্ধনকারীর সাথে আবেদনকারীর সম্পর্ক, আবেদনকারীর মোবাইল নম্বর, ইমেইল জমা দিতে হবে। নিবন্ধনকারীর বয়স ১৮ বছরের বেশি হলে তিনি নিজেই আবেদন করতে পারবেন।

ধাপ-৭: সব তথ্য সঠিকভাবে দিলে কোথাও কোনো সমস্যা হবে না। তথ্য জমা দেওয়ার পর এখন আপনাকে তথ্য দেখানো হবে। এখান থেকে জন্ম নিবন্ধনের জন্য প্রদত্ত সমস্ত তথ্য দুবার চেক করুন এবং কোনো ভুল সংশোধন করুন। তারপর সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন।

ধাপ-৮: একবার জন্ম নিবন্ধন আবেদন সঠিকভাবে জমা দিলে, আপনাকে একটি আবেদন নম্বর দেওয়া হবে। এই নম্বর দিয়ে সহজেই জন্ম নিবন্ধন স্ট্যাটাস চেক করা যায়। এই পৃষ্ঠায় “প্রিন্ট অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম” বোতামে ক্লিক করে আবেদনপত্রটি মুদ্রণ করুন।

ধাপ-৯: আবেদন করার ১৫ দিন পর প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র এবং আবেদনপত্রটির প্রিন্ট কপি নিয়ে স্থানীয় নির্দিষ্ট কার্যালয়ে উপস্থিত হতে হবে। আবেদনপত্র ও অন্যান্য কাগজপত্র জমা দেওয়ার পর জন্ম নিবন্ধন সনদটি আবেদনকারী পেয়ে যাবেন। জন্ম নিবন্ধন সনদ করতে নির্দিষ্ট কিছু কাগজপত্রের প্রয়োজন হয়।

জন্ম নিবন্ধন করার পদ্ধতি

বাংলাদেশে ২০০৬ সাল থেকে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইনটি বাস্তবায়ন করার পর থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত বিনামূল্যে জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরী করার সুবিধা দেওয়া হয়েছিল। সেসময় দেশের অধিকাংশ নাগরিকই জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরী করে ফেলেন। বর্তমানে জন্ম নিবন্ধন করার সময়ের উপর ভিত্তি করে কিছু খরচ প্রযোজ্য হলেও এখনো জন্ম নিবন্ধন করা অনেকটাই সহজ।

সশরীরে বা অফলাইনে জন্ম নিবন্ধন করার নিয়ম

বর্তমানে জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে বা ব্যক্তিগতভাবে বা অফলাইনে দুইভাবে করা যায়। এবার আসুন জেনে নেই অফিসে গিয়ে জন্ম নিবন্ধনের বিস্তারিত নিয়ম।

বাংলাদেশে জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রদানের শুরু থেকেই ব্যক্তিগতভাবে ফরম পূরণ করে জন্ম নিবন্ধন করতে হতো। এই পদ্ধতি এখনও ব্যবহার করা হয়. ফলে যে কেউ চাইলে এখনো এভাবে আবেদন করতে পারবেন।

অফলাইনে জন্ম নিবন্ধন তৈরি করতে, আবেদনকারীকে অবশ্যই নির্দিষ্ট অফিসে যেতে হবে। আবেদনকারী সেই নির্দিষ্ট অফিসে উপস্থিত হয়ে জন্ম নিবন্ধন ফর্ম তোলা, ফর্ম জমা দেওয়া, জন্ম নিবন্ধন সনদ গ্রহণ সহ সমস্ত কাজ করতে পারেন। আবেদনকারীর ঠিকানা অনুযায়ী অফিস নির্ধারণ করা হবে। ঠিকানা অনুযায়ী আবেদনকারীকে নিম্নলিখিত ব্যক্তিদের অফিসে যেতে হবে:

  • ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বা সরকার কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন কর্মকর্তা।
  • পৌরসভার মেয়র বা তার দ্বারা ক্ষমতাপ্রাপ্ত অন্য কোন কর্মকর্তা বা কাউন্সিলর।
  • সিটি কর্পোরেশনের মেয়র বা তার দ্বারা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন কর্মকর্তা বা ওয়ার্ড কাউন্সিলর।
  • ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের সভাপতি বা তার দ্বারা অনুমোদিত কোনো কর্মকর্তা।
  • বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত ড.

চলুন এবার ধাপে ধাপে জেনে নেওয়া যাক কিভাবে সশরীরে জন্ম নিবন্ধন করতে হয়ঃ

ধাপ-১ঃ নির্দিষ্ট ফরম সংগ্রহ করুন

একটি শিশুর জন্ম নিবন্ধন সনদ পেতে হলে প্রথমে জন্ম নিবন্ধন আবেদনপত্র সংগ্রহ করতে হবে। ফরমটি আপনার ঠিকানা অনুযায়ী সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন ইউনিয়ন পরিষদ অফিস, পৌরসভা, সিটি কর্পোরেশন অফিস বা ওয়ার্ড কমিশনারের কার্যালয় থেকে সংগ্রহ করতে হবে। অফিস থেকে কেউ নিতে না চাইলে অনলাইনে ফরমের পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড করে কম্পিউটারে পূরণ করতে পারেন। এছাড়াও, কেউ পিডিএফ ফাইলটি প্রিন্ট করতে এবং ম্যানুয়ালি পূরণ করতে পারে।

ধাপ-২ঃ আবেদন ফরমটি পূরণ করুন

ফরমটি সংগ্রহ করার পর ফরমটি পূরণ করতে হবে। এখানে জন্ম নিবন্ধনের আবেদন ফরম পূরণ করার নিয়ম দেওয়া হলোঃ

  • ১ নং ঘরে শিশুর জন্ম তারিখ, জন্মস্থান ও লিঙ্গ উল্লেখ করতে হবে। জন্ম তারিখটি উপরের ঘরে সংখ্যায় এবং নিচের ঘরে কথায় লিখতে হবে। লিঙ্গের স্থানে নারী অথবা পুরুষে টিক চিহ্ন দিতে হবে। এবং নিচে জন্মস্থানের ঠিকানা লিখতে হবে।
  • ২ নং ঘরে শিশুর পিতা ও মাতার নাম এবং জাতীয়তা লিখতে হবে।
  • ৩ ও ৪ নং ঘরে যথাক্রমে স্থায়ী ও বর্তমান ঠিকানা লিখতে হবে।
  • শিশুর যদি কোন ধরনের প্রতিবন্ধকতা থাকে অর্থাৎ শিশু যদি প্রতিবন্ধী হয় তবে ৫ নং ঘরে অসামর্থ্যতা অনুযায়ী একটি বা একাধিক ঘরে টিক চিহ্ন দিতে হবে।
  • ৬ নং ঘরে আবেদনকারী অর্থাৎ শিশুর বাবা, মা অথবা অন্য যিনি আবেদনটি করছেন তার নাম, স্বাক্ষর, নিবন্ধনকারীর সাথে তার সম্পর্ক ও আবেদনের তারিখ লিখতে হবে। 
  • ৭ নং ঘরের ক্ষেত্রে শিশুর জন্মের ৫ বছরের মাঝে আবেদন করলে শুধুমাত্র ১ নং ঘরটিতে তথ্য সংগ্রহকারীর স্বাক্ষর নিতে হবে। ৫ বছরের বেশী হলে ২ বা ৩ নং ঘরটি পূরণ করতে হবে।
  • ৮ নং থেকে পরের ঘরগুলো আবেদনকারীকে পূরণ করতে হবে না।

ধাপ-৩ঃ আবেদন ফরম জমা দিন

ফর্মটি সঠিকভাবে পূরণ করা হলে তা জমা দিতে হবে। জমা দেওয়ার সময় প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ফর্মের সাথে সংযুক্ত করতে হবে। তারপর ফরমটি ঠিকানা অনুযায়ী সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন ইউনিয়ন পরিষদ অফিস, পৌরসভা, সিটি কর্পোরেশন অফিস বা ওয়ার্ড কমিশনারের অফিসে জমা দিতে হবে।

ধাপ-৪ঃ কুপন সংগ্রহ করুন

জন্ম নিবন্ধন আবেদনপত্র জমা দেওয়ার সময় কুপনে জন্ম নিবন্ধন শংসাপত্র প্রদানের একটি নির্দিষ্ট তারিখ লেখা থাকবে। মূলত, ফর্ম জমা দেওয়ার পরে, ফর্মের নীচের অংশ অফিস দ্বারা পূরণ করা হবে এবং আবেদনকারীকে দেওয়া হবে। ফর্মের অংশ অবশ্যই সেই নির্দিষ্ট তারিখের মধ্যে সংরক্ষণ করতে হবে।

ধাপ-৫ঃ জন্ম নিবন্ধন সংগ্রহ করুন

জন্ম নিবন্ধন সংগ্রহের নির্দিষ্ট তারিখে বা তার পরে, ফর্মের সেই অংশটি আবেদনের একই অফিসে নিয়ে যেতে হবে। এ সময় ফর্মের ওই নির্দিষ্ট অংশের পেছনের পৃষ্ঠায় স্বাক্ষর করে জমা দিতে হবে। এরপর আবেদনকারী জন্ম নিবন্ধন সনদ নিতে পারবেন। সার্টিফিকেট পাওয়ার পর সার্টিফিকেটের খুঁটিনাটি এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর দেখতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন তৈরীর খরচ

বাংলাদেশে জন্ম নিবন্ধনের আবেদন শুরু হওয়ার পর ২০১০ সালের জুন মাস পর্যন্ত বিনামূল্যে জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরী করার সুবিধা দেওয়া হয়েছিল। তার পর থেকে নির্দিষ্ট বয়সের পর নির্দিষ্ট ফি আদায় করা হয়। এখানে জন্ম নিবন্ধন তৈরীর ফি বা খরচের তালিকা দেওয়া হলো

 
দেশে আবেদনের ক্ষেত্রেঃবিদেশে আবেদনের ক্ষেত্রেঃ
শিশু জন্মের ৪৫ দিন পর্যন্ত- বিনা মূল্যেশিশু জন্মের ৪৫ দিন পর্যন্ত- বিনা মূল্যে
শিশু জন্মের ৪৫ দিন পর থেকে ৫ বছর পর্যন্ত- ২৫ টাকাশিশু জন্মের ৪৫ দিন পর থেকে ৫ বছর পর্যন্ত- ১ মার্কিন ডলার
শিশু জন্মের ৫ বছর পর- ৫০ টাকাশিশু জন্মের ৫ বছর পর- ১ মার্কিন ডলার

জন্ম নিবন্ধন এর প্রয়োজনীয়তা

বাংলাদেশে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন ২০০৬ সাল থেকে কার্যকর করা হয়। ওই আইন অনুযায়ী, শিশুর জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যে জন্ম নিবন্ধন বাধ্যতামূলক। এমনকি যদি শিশুর পিতামাতা জন্ম নিবন্ধন করতে ২ বছরের বেশি বিলম্ব করেন তবে শিশুটির পিতামাতাকেও জরিমানা দিতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র ইস্যু হওয়ার আগ পর্যন্ত এটি প্রধানত পরিচয়পত্র হিসেবে ব্যবহৃত হতো। তাই অনেক জায়গায় জন্ম নিবন্ধন সনদের অনেক প্রয়োজনীয়তা এবং ব্যবহার রয়েছে।

  • অনেকের জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়ার আগে, অর্থাৎ 18 বছর বয়সের আগে পাসপোর্ট পেতে হতে পারে। সেক্ষেত্রে আবেদনকারীকে অবশ্যই জন্ম নিবন্ধন শংসাপত্র জমা দিতে হবে।
  • দেশের প্রায় সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির জন্য জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রয়োজন। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের পিইসি,
  • জেএসসিতে নিবন্ধন করার সময় জন্ম নিবন্ধন সনদ ব্যবহার করতে হবে।
  • বিয়ে রেজিস্ট্রি করার সময় জন্ম নিবন্ধন সনদ ব্যবহার করতে হবে। এটি বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সহায়তা করে কারণ বর/কনের বয়স প্রমাণ করা যায়।
  • ১৮ বছর পূর্ণ হওয়ার পরই অনেকে ড্রাইভিং লাইসেন্স পেয়ে যান। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে আবেদনকারীর জাতীয়
  • পরিচয়পত্র এখনও সংগ্রহ করা হয়নি। সেক্ষেত্রে ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে আবেদনকারীকে তার জন্ম নিবন্ধন ব্যবহার করতে হবে।
  • একটি নতুন ভোটার আইডি কার্ডের জন্য নিবন্ধন করার সময়, আবেদনকারীকে তার জন্ম নিবন্ধন সনদ ব্যবহার করতে হবে।

আরো দেয়া হয়েছেঃ

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করব কিভাবে?

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন এর বিস্তারিত তথ্য এই পোস্টের মধ্যে দেওয়া হয়েছে।

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে কি কি লাগবে?

জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে যা যা প্রয়োজন হবে তা দেওয়া হয়েছে এই পোস্টে সুতরাং আর্টিকেলটি ভিজিট করো।

আরো জানতে পারোঃ 👇
ইউনিয়ন ভিত্তিক ভোটার তালিকা
ইউনিয়ন ভিত্তিক ভোটার তালিকা

ইউনিয়ন ভিত্তিক ভোটার তালিকা: বাংলাদেশে, ভোটার তালিকা নির্বাচন কমিশন (ইসি) দ্বারা রক্ষণাবেক্ষণ করে। এতে দেশের সকল যোগ্য ভোটারের নাম, তাদের Read more

ঈশ্বরদী বাইপাস ট্রেনের সময়সূচী
ঈশ্বরদী বাইপাস ট্রেনের সময়সূচী

ঈশ্বরদী বাইপাস ট্রেনের সময়সূচী: আপনি কি ঈশ্বরদী থেকে ঢাকা ট্রেনের সময়সূচী, টিকেট ও ভাড়ার পরিমান খুজছেন? আশা করি আমরা আপনাকে Read more

মন্তব্য করুন

This content is protected! By banglanewsbdhub