অশ্বগন্ধার উপকারিতা ও অপকারিতা

অশ্বগন্ধার উপকারিতা ও অপকারিতা জানব, এছাড়াও অশ্বগন্ধার যত প্রকার বিষয় আছে সব জানব এই প্রবন্ধের মাধ্যমে। অশ্বগন্ধা ভারতীয় ওষুধে বিস্ময়কর ভেষজ হিসাবেও পরিচিত। অশ্বগন্ধার স্বাস্থ্য উপকারিতা অপরিসীম।

অশ্বগন্ধা কি?

অশ্বগন্ধা একটি ভেষজ ঔষধি গাছ যা হাজার হাজার বছর ধরে আয়ুর্বেদিক ও ইউনানি চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এটি একটি অ্যাডাপ্টোজেন, যার অর্থ এটি আমাদের শরীরকে চাপ পরিচালনা করতে সহায়তা করার ক্ষমতা রাখে।

আপনি যদি প্রাচীন আয়ুর্বেদিক ওষুধের সাথে পরিচিত হন তবে আপনি অবশ্যই অশ্বগন্ধা নামটি শুনে থাকবেন। কারণ, প্রাচীন আয়ুর্বেদিক চিকিৎসায় ব্যবহৃত অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আয়ুর্বেদিক ভেষজ হল “অশ্বগন্ধা”। এটি ভারতীয় ওষুধে বিস্ময়কর ভেষজ হিসাবেও পরিচিত। অশ্বগন্ধার স্বাস্থ্য উপকারিতা অপরিসীম।

অশ্বগন্ধার ইতিহাস এবং উৎপাদনের স্থান

অশ্বগন্ধার ইতিহাস মূলত আয়ুর্বেদের ইতিহাসের সাথে জড়িত, কারণ এটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আয়ুর্বেদিক ভেষজ হিসাবে বিবেচিত হয়। আয়ুর্বেদ একটি সংস্কৃত শব্দ যেখানে আয়ুর অর্থ “জীবন” এবং বেদ অর্থ “জানা”।

অশ্বগন্ধা একটি চিরসবুজ গুল্ম যা ভারত, মধ্যপ্রাচ্য এবং আফ্রিকার কিছু অংশে জন্মে। এর শিকড় এবং কমলা-লাল ফল বহু শতাব্দী ধরে ঔষধি হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

অশ্বগন্ধার প্রকারভেদ

অশ্বগন্ধায় যেসব উপাদান রয়েছে  তা হলঃ

  • অ্যালকালয়েড
  • স্ট্রেরয়ডাল ল্যাক্টনস
  • ট্যানিনস
  • স্যাপোনিনস

অশ্বগন্ধা সাধারণত দুই প্রকার হয়ে থাকে –

  1. ছোট্ট অশ্বগন্ধা
  2. বড় অশ্বগন্ধা

ছোট অশ্বগন্ধার ঝোপ ছোট হলেও শিকড় বড়। এটি ভারতের রাজস্থানে খুবই সাধারণ।

বড় অশ্বগন্ধার কান্ড অপেক্ষাকৃত বড় কিন্তু এর শিকড় ছোট ও পাতলা। এটি মাঠে বা বাগানে পাওয়া যাই।

অশ্বগন্ধা গাছটি চেনার উপায়:

অশ্বগন্ধা গাছ চেনার উপায়: অশ্বগন্ধা গাছ অন্যান্য গাছের মধ্যে থেকে শনাক্ত করা খুবই কঠিন। তাহলে, অশ্বগন্ধা গাছের কিছু বৈশিষ্ট্য দিলে আপনারা চিনতে পারবেন বা চিনতে সহজ হবে। অশ্বগন্ধা গাছের ফল দেখতে পাকা লাল টমেটোর মতো।

অশ্বগন্ধা গাছের পাতা সিদ্ধ করলে ঘোড়ার প্রস্রাবের মতো গন্ধ বের হয়। সহজে সনাক্তকরণের জন্য নীচে গাছ এবং এর ফলের একটি ছবি দেওয়া হল।

অশ্বগন্ধা গাছের ছবি

অশ্বগন্ধা গাছের ছবি
অশ্বগন্ধা গাছের ছবি

অশ্বগন্ধা গাছের ফল

অশ্বগন্ধা গাছের ফল
অশ্বগন্ধা গাছের ফল

অশ্বগন্ধার দাম

অশ্বগন্ধা গাছের দাম স্থানভেদে ভিন্ন হয়। বিভিন্ন এলাকায় অশ্বগন্ধা উদ্ভিদ খুব সহজেই পাওয়া যায়। তাই সেখানে বেশি খরচ হয় না। কিন্তু এখন অশ্বগন্ধা গাছের অধিকাংশ জায়গায় খুবই দুষ্প্রাপ্য। তাই অশ্বগন্ধা বর্তমানে অনেক জায়গায় খুবই দামি।

যেহেতু অশ্বগন্ধা গাছ পুরো ব্যবহার করা যায় না, তাই এর রস শুকিয়ে ট্যাবলেট বা ট্যাবলেট হিসেবে বিক্রি করা হয়। তাই এর ওজন অনেক কমে যায়। ফলের দাম রাখা হয়েছে অনেক বেশি। অশ্বগন্ধা ওষুধের দাম হতে পারে প্রতি কেজি ৪০০ টাকা।

আশা করি আপনি অশ্বগন্ধা সম্পর্কে সমস্ত বিষয়বস্তু বুঝতে পেরেছেন। অশ্বগন্ধা সম্পর্কে আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে পারেন। আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আপনার মন্তব্যের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব। আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ.

অশ্বগন্ধা দামের গুঁড়ো, ট্যাবলেটের দাম প্রতিটি। আর মাঝে মাঝে বিভিন্ন দোকানে দেখা যায় সেগুলোর দামও আলাদা। তবে আমি আপনাকে সম্ভাব্য দাম বলি।

অশ্বগন্ধা পাউডারের দাম কত?

দোকান ভেদে অশ্বগন্ধা পাউডারের দাম আলাদা। অশ্বগন্ধা পাউডারের দাম  140-180 টাকার মধ্যে 100 গ্রাম পাউডার পাবেন।

অশ্বগন্ধা ট্যাবলেটের দাম

অনেক কোম্পানির অশ্বগন্ধার ট্যাবলেট আছে। এর মধ্যে রয়েছে হিমালয় অশ্বগন্ধা ট্যাবলেট। যার মধ্যে 60টি ট্যাবলেট রয়েছে, এর দাম 340 টাকা।

অশ্বগন্ধা সিরাপ হামদর্দ

বাজারে অশ্বগন্ধা ক্যাপসুল, সিরাপও পাওয়া যায়। বিশেষ করে হামদর্দ কোম্পানির শরবতও খাওয়া যেতে পারে। খাওয়ার নিয়ম ওষুধে লেখা আছে। অশ্বগন্ধা ক্যাপসুল খুবই জনপ্রিয়।

গুড়া করার নিয়ম

শিকড় ছোট মাটির পাত্রে প্যাক করা হয় বা ঢাকনা দিয়ে ঢেকে তারপর শুকিয়ে আগুনে পোড়ানো হয়। তারপর শিকড় বের করে গুঁড়ো করে নিতে হবে।

অশ্বগন্ধা খাওয়ার নিয়ম

অশ্বগন্ধা খাওয়া বা ডোজ নির্ভর করে আপনি যে অবস্থার চিকিৎসা করার চেষ্টা করছেন তার উপর। কোনো আধুনিক গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে এমন কোনো নির্দিষ্ট মান ডোজ নেই।

অশ্বগন্ধা অশ্বগন্ধা পাউডার 450 মিলিগ্রাম থেকে 2 গ্রাম পর্যন্ত মাত্রায় ব্যবহার করা যেতে পারে। আপনি এটি একটি ক্যাপসুল, পাউডার বা স্বাস্থ্য খাদ্য বা সম্পূরক হিসাবে নিতে পারেন।

এটি সাধারণত দিনে 1-2 চা চামচ বা 5-6 গ্রাম পাউডার গ্রহণ করার পরামর্শ দেওয়া হয় এবং আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট অসুস্থতার জন্য এটি গ্রহণ করেন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

অশ্বগন্ধা বাজারে ট্যাবলেট এবং পাউডার উভয় আকারে পাওয়া যায়। কখনো কখনো অশ্বগন্ধার শিকড়ও বাজারে বিক্রি হয়। অশ্বগন্ধা ট্যাবলেট প্রতি রাতে খেতে হবে। প্রতি রাতে একটি ট্যাবলেট খুব উপকারী।

এছাড়া অশ্বগন্ধা গুঁড়ো গরম দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খেতে হবে। 4/5 গ্রাম পাউডার দুধের সাথে মিশিয়ে খেতে হবে। এটি মধুর সাথেও মেশানো যেতে পারে।

এছাড়া অশ্বগন্ধার মূলও পানিতে ফুটিয়ে ঠান্ডা করে খেতে পারেন। তাছাড়া বাজারে অশ্বগন্ধার শরবতও পাওয়া যায়, যেটাও খাওয়া যায়।

তাছাড়া বর্তমানে অশ্বগন্ধা গাছের সাথে অ্যালকোহল মেশানোর এক ধরনের ওষুধ রয়েছে, যাকে অশ্বগন্ধা টিংচার বলে।

এছাড়া বর্তমান বাজারে অশ্বগন্ধা ক্যাপসুল বেশ জনপ্রিয়। অশ্বগন্ধার গুঁড়ো চাইলে দুধ, ঘি ও মধুর সঙ্গে মিশিয়ে খেতে পারেন।

অশ্বগন্ধার হাজার হাজার বছর আগের ইতিহাস রয়েছে, যে সময়ে এটি অনেক থেরাপিউটিক উপহার সহ একটি শক্তিশালী ভেষজ হিসাবে সম্মানিত হয়েছে। আজ, মানুষের কাছে এই ভেষজটির উপকারিতা বোঝার জন্য সম্পদ রয়েছে, বিশেষ করে যখন এটি জ্ঞানীয়-বর্ধক সুবিধার কথা আসে।

এটা মনে রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে অশ্বগন্ধা আপনার ডাক্তারের দ্বারা নির্ধারিত কোনও চিকিত্সা প্রতিস্থাপন করা উচিত নয়। চিকিৎসা থাকলে

অশ্বগন্ধা পাউডার খাওয়ার নিয়ম

অশ্বগন্ধা গুঁড়া বা গুঁড়া খেতে চাইলে গরম দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খেতে পারেন। এক গ্লাস দুধের সাথে 4/5 গ্রাম অশ্বগন্ধা গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। আপনি চাইলে এর সাথে মধু মিশিয়ে নিতে পারেন। অশ্বগন্ধা গুঁড়া বা গুঁড়ো দুধ যখনই ইচ্ছা ঘি ও মধুর সঙ্গে মিশিয়ে খেতে পারেন।

অশ্বগন্ধা মূল খাওয়ার নিয়ম

অশ্বগন্ধার মূলও পানিতে ফুটিয়ে ঠান্ডা করে খেতে পারেন। অশ্বগন্ধার মূল ভালো করে ধুয়ে পানিতে ফুটিয়ে ঠান্ডা করে খান। অথবা ফুটানো পানি ভালো করে ছেঁকে পান করতে পারেন। আবার অশ্বগন্ধার মূল সারারাত ভিজিয়ে রেখে সকালে পানি ছেঁকে পান করতে পারেন।

 আরো জানুনঃ

 

অশ্বগন্ধার উপকারিতা অপকারিতা

অশ্বগন্ধার স্বাস্থ্য উপকারিতা, ঔষধি গুণাগুণ অনেক, ভেষজ ওষুধ হিসেবে এটি প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। চলুন দেখে নেওয়া যাক অশ্বগন্ধার উপকারিতা কি কি!

অশ্বগন্ধার উপকারিতা

  1. ভালো ঘুম: ঘুমানোর আগে অশ্বগন্ধা পাউডার চিনির সঙ্গে মিশিয়ে খেলে ঘুম ভালো হয়। অনিদ্রার জন্য অশ্বগন্ধা একটি কার্যকর প্রতিকার হতে পারে।
  2. শক্তিবর্ধক: অশ্বগন্ধা গাছের রসে শক্তিদায়ক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এটি শরীরের গঠন উন্নত করে এবং পেশী শক্তিশালী করে। এটি পুরুষ বর্ধনের বড়িগুলিতে খুব কার্যকর। এর শিকড় ও পাতা বিভিন্ন স্নায়ুর সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। এর পাতা দুধ ও ঘি দিয়ে সিদ্ধ করলে শরীরে শক্তি আসে। মানসিক ও শারীরিক দুর্বলতা কাটিয়ে একাগ্রতা বাড়ায়। অশ্বগন্ধা মাথা ঘোরা এবং বিষণ্নতা দূর করে।

 

  1. 4 গ্রাম অশ্বগন্ধা পাউডার সঠিকভাবে এক বছর ধরে খেলে শরীর শক্তিশালী হয় এবং রোগ কম হয়। 10 গ্রাম অশ্বগন্ধা গুঁড়ো তিল ও ঘি দিয়ে মিশিয়ে নিন। এতে তিন গ্রাম সিটি মিশিয়ে প্রতিদিন 1-2 গ্রাম করে শীতকালে খেলে শরীরের শক্তি বৃদ্ধি পায়।

 

  1. সর্দি এবং কাশি থেকে মুক্তি দেয়: অশ্বগন্ধার মূল গুঁড়ো করে সেবন করা যেতে পারে সর্দি এবং কাশি থেকে মুক্তি পেতে। চোখের ব্যথা উপশম করতে পারে অশ্বগন্ধা। দীর্ঘস্থায়ী ব্রঙ্কাইটিসে অশ্বগন্ধা বিশেষ উপকারী। আধা গ্রাম মধুর সাথে মিশিয়ে খেলে ব্রঙ্কাইটিস সেরে যায়। অশ্বগন্ধার মূলের গুঁড়া মিষ্টির সঙ্গে মিশিয়ে খেলে কাশি উপশম হয়।

 

  1. পেটের সমস্যা: অশ্বগন্ধা ফল বুকজ্বালা, পেট ফাঁপা, পেটের ব্যথা নিরাময় করে এবং লিভারকে সুস্থ রাখে। হজমের সমস্যা দূর করে। তবে কাঁচা অশ্বগন্ধা পাউডার খেলে পেটের সমস্যা, তলপেটে ব্যথা হতে পারে। খাবার হিসেবে অশ্বগন্ধা খাওয়ার জন্য ভালো মানের অশ্বগন্ধা বেছে নেওয়া ভালো।

 

  1. ঔষধি: অশ্বগন্ধা বহু শতাব্দী ধরে ভারতে ঔষধি হিসাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এটি একটি খাদ্যতালিকাগত সম্পূরক হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

 

  1. চিনির মাত্রা কমায়: কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে অশ্বগন্ধা রক্তে শর্করার মাত্রা কমায়।

 

  1. অ্যান্টি-ক্যান্সার: বিশেষজ্ঞদের মতে, অশ্বগন্ধার বিশেষ উপাদান “উইথফেরিন” ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিতে বাধা দেয়। এর মূল এবং পাতার নির্যাসে উপস্থিত ফাইটোকেমিক্যালগুলি টিউমার কোষগুলিকে ধ্বংস করে এবং সেই কোষগুলিতে রক্ত ​​সরবরাহ বন্ধ করে দেয়। ফুসফুস, স্তন, কোলন, মস্তিষ্ক এবং ডিম্বাশয়ের ক্যান্সার সহ অন্যান্য ক্যান্সারের চিকিৎসায় সাহায্য করে। যারা কেমোথেরাপি গ্রহণ করেন, তাদের জীবনযাত্রার মান উন্নত হয়।

 

  1. মস্তিষ্কের উন্নতি: এই উদ্ভিদ মস্তিষ্কের কার্যকারিতা উন্নত করে, স্মৃতিশক্তি বাড়ায়।

 

  1. কোলেস্টেরল কমায়: আয়ুর্বেদ শাস্ত্র অনুসারে, অশ্বগন্ধা শরীরে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়।

 

  1. স্ট্রেস কমায়: অশ্বগন্ধায় “অ্যাক্সিওলাইটিক” বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা স্নায়ুতন্ত্রের উপর কাজ করে স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করে। প্যানিক অ্যাটাকের সম্ভাবনা কমায়।

 

  1. ইরেক্টাইল ডিসফাংশন: অশ্বগন্ধা পুরুষদের ইরেক্টাইল ডিসফাংশন থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে। টেস্টোস্টেরন পুরুষ শরীরের একটি গুরুত্বপূর্ণ হরমোন। গবেষণায় দেখা গেছে যে অশ্বগন্ধা 75% পুরুষের শরীরে ভাল কাজ করে। এটি শরীরে টেস্টোস্টেরন এবং প্রোজেস্টেরনের পরিমাণ বাড়ায়, এটি বীর্যের পরিমাণ ও গুণমান বাড়াতে সক্ষম। এক গ্রাম অশ্বগন্ধার গুঁড়ো 125 মিলিগ্রাম চিনির সাথে হালকা গরম দুধের সাথে মিশিয়ে খেলে বীর্য শক্তিশালী হয়।

 

  1. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়: অশ্বগন্ধায় রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য, যার মাধ্যমে অশ্বগন্ধা শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

 

  1. ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য: অশ্বগন্ধার মূল এবং পাতার নির্যাসে রয়েছে অ্যান্টি-ডায়াবেটিক বৈশিষ্ট্য। পাতা বা মূলের কোষে থাকা ‘ফ্ল্যাভোনয়েডস’ মানবদেহে ইনসুলিনের পরিমাণ বাড়াতে সাহায্য করে। এছাড়া এটি শরীরে লিপিডের মাত্রা ঠিক রাখতে সাহায্য করে।

 

  1. থাইরয়েডের সমস্যা কমায়: অশ্বগন্ধা শরীরে থাইরক্সিন নামক হরমোনের পরিমাণ বাড়ায়। যাদের শরীরে থাইরয়েড হরমোনের পরিমাণ কম (হাইপারথাইরয়েড) তাদের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

 

  1. চোখের সমস্যা কমায়: চোখ সুস্থ রাখতে অশ্বগন্ধা ব্যবহার করা হয়।

 

  1. বাতের চিকিৎসা: অশ্বগন্ধা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসায় আর্থ্রাইটিস উপশমে ব্যবহৃত হয়। এটি ব্যথার তীব্রতা কমাতে সাহায্য করে।
  2. সংক্রমণ থেকে মুক্তি: অশ্বগন্ধায় রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য যা বিভিন্ন ধরনের সংক্রমণ প্রতিরোধে সাহায্য করে। এর পাতায় রয়েছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুণ যা ত্বকের সংক্রমণ কমায়। অশ্বগন্ধার ক্ষত দ্রুত সারানোর ক্ষমতাও রয়েছে।

 

  1. হার্ট: শরীরে সঠিক রক্ত সঞ্চালন বজায় রাখে এবং হার্টকে সুস্থ করে তোলে।

 

  1. মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি করে: অশ্বগন্ধা একটি অ্যাডাপ্টোজেন, যা মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি করে।

 

  1. কর্টিসলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ: অ্যাড্রিনাল গ্রন্থিতে সমস্যা থাকলে রক্তে কর্টিসলের মাত্রা কম বা বেশি হতে পারে। অশ্বগন্ধা এই সমস্যা দূর করে এবং কর্টিসলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে।

 

  1. চুল মজবুত করে: চুল ঝলমলে ও মজবুত করতে অশ্বগন্ধা খুবই উপকারী।

 

  1. খুশকি কমায়: অশ্বগন্ধা পাউডার দিয়ে তৈরি তেল খুশকি কমায়।

 

  1. অকালে চুল পাকা রোধ: অশ্বগন্ধা গাছের নির্যাস অকালে চুল পাকা রোধে খুবই উপকারী। 2 থেকে 4 গ্রাম অশ্বগন্ধা গুঁড়ো নিয়ে তেলের সাথে মিশিয়ে চুলে ম্যাসাজ করুন। অশ্বগন্ধার গুণাগুণের কারণে অকালে চুল পাকার সমস্যা সেরে যায়।

 

  1. দীর্ঘস্থায়ী জ্বর সারায়: 2 গ্রাম অশ্বগন্ধা গুঁড়ো এবং 1 গ্রাম গিলোয়ের নির্যাস প্রতিদিন সন্ধ্যায় জাফরান গরম জল বা মধুর সাথে খেলে দীর্ঘস্থায়ী জ্বর সারে।

 

  1. আঘাতের কারণে ব্যথা উপশম করে: অশ্বগন্ধার গুঁড়ো গুড় বা ঘি এর সাথে মিশিয়ে দুধের সাথে পান করলে বাহুতে আঘাতের ব্যথা উপশম হয়।

 

  1. বাত রোগে অশ্বগন্ধা : দুই গ্রাম অশ্বগন্ধার গুঁড়ো গরম দুধ বা পানি বা গরুর ঘি বা চিনির সঙ্গে মিশিয়ে খেলে বাত রোগে উপকার পাওয়া যায়।

 

  1. চর্মরোগ সারায়: অশ্বগন্ধা পাতার পেস্ট দিয়ে ত্বক ধুলে ত্বকের কৃমি নিরাময় হয়। ডায়াবেটিস সহ অন্যান্য ধরণের ক্ষত নিরাময় করে। যে কোনো ধরনের প্রদাহ ও জ্বালাপোড়া নিরাময় করে। অশ্বগন্ধার শিকড় চূর্ণ করে গরম করে লাগালে হারপিস নিরাময় হয়।

 

  1. লিঙ্গের দুর্বলতা: অশ্বগন্ধার মূলের গুঁড়ো সঠিকভাবে লিঙ্গে লাগালে লিঙ্গের দুর্বলতা দূর হয়। সমপরিমাণ অশ্বগন্ধা করলা ও দারুচিনি মিশিয়ে একটি চালুনিতে পিষে নিন। এই মিশ্রণটি গরুর মাখনের সাথে মিশিয়ে সামনের অংশ ছেড়ে বাকি লিঙ্গে লাগান এবং কিছুক্ষণ পর ঈষদুষ্ণ পানি দিয়ে লিঙ্গ ধুয়ে ফেলুন। এটি পুরুষাঙ্গের দুর্বলতা দূর করবে।

 

  1. কোষ্ঠকাঠিন্য উপশম করে: অশ্বগন্ধা গুঁড়া বা হলুদের গুঁড়া গরম পানির সঙ্গে খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য উপশম হয়।

 

  1. লিউকোরিয়া নিরাময়ে : অশ্বগন্ধার মূলের গুঁড়া ২-৪ গ্রাম চিনির সঙ্গে মিশিয়ে সকাল-সন্ধ্যা গরুর দুধের সঙ্গে খেলে লিউকোরিয়ায় উপকার পাওয়া যায়।

 

  1. অন্ত্রের কৃমি নিরাময়: অশ্বগন্ধা গুঁড়ো এবং মধুর সাথে অশ্বগন্ধা মিশিয়ে খেলে পেটের কৃমি সারে। এছাড়াও পেটের অন্যান্য রোগ নিরাময়ে সাহায্য করে।

 

  1. গলগন্ড সারাতে: সমপরিমাণ অশ্বগন্ধা পাউডার ও পুরানো গুড় মিশিয়ে নিন। সকালে এটি সাধারণ জলের সাথে সেবন করুন। এছাড়াও অশ্বগন্ধা পাতার পেস্ট বানিয়ে গলগন্ডে লাগালেও উপকার পাওয়া যায়।

অশ্বগন্ধার অপকারিতা

সবকিছুর যেমন উপকারিতা আছে, তেমনি এর কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা ক্ষতিকর দিকও রয়েছে। যদিও এটি একটি ঔষধি গাছ এবং আমরা প্রাকৃতিকভাবে সব গাছের উপকারিতা জানি।

সবকিছুর যেমন সুবিধা আছে তেমনি অসুবিধাও আছে। অন্যান্য জিনিসের মতো অশ্বগন্ধারও কিছু উপকারিতা আছে। তবে অশ্বগন্ধা গাছের কিছু উপকারিতা বা অসুবিধা রয়েছে। অশ্বগন্ধা গাছের উপকারী দিকগুলো হল:

 

  1. একটানা দীর্ঘ সময় ধরে অশ্বগন্ধা সেবন করা আপনার জন্য বড় ধরনের বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে। কারণ অশ্বগন্ধা দীর্ঘদিন সেবন করলে পেট ও গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা এবং অন্যান্য বিভিন্ন দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা হতে পারে। তাই অশ্বগন্ধা বেশিক্ষণ খাওয়া উচিত নয়।

 

  1. গর্ভবতী মহিলাদের অশ্বগন্ধা গাছের ওষুধ খাওয়া উচিত নয়। এর ফলে অকাল গর্ভপাত হতে পারে।

 

  1. এটি রক্ত পাতলা করতে সাহায্য করে। ফলস্বরূপ, আপনার শরীরের যে কোনও জায়গায় কেটে গেলে প্রচুর রক্তপাত হতে পারে। অতএব, অতিরিক্ত অশ্বগন্ধা খাওয়া উচিত নয় কারণ এটি আপনার শরীরে রক্ত পাতলা হতে পারে।

 

  1. অশ্বগন্ধা ঘুমের উন্নতি ঘটায়। তাই অশ্বগন্ধা খাওয়ার সময় ঘুমের ওষুধ খাওয়া উচিত নয়। গেমটি অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে নিতে হবে।

 

  1. অশ্বগন্ধা গ্রহণ করার সময়, আপনার শরীরে রক্তে শর্করার পরিমাণ কমানোর জন্য কোনও ওষুধও গ্রহণ করা উচিত নয়। এতে আপনার শরীরে প্রচুর পরিমাণে সরকারী ঘাটতি দেখা দিতে পারে। অশ্বগন্ধা নিজেও প্রাকৃতিকভাবে আপনার শরীরের চিনি কমায়।

 

  1. যে মায়েরা তাদের বাচ্চাদের বুকের দুধ খাওয়ান তাদের অশ্বগন্ধা খাওয়া উচিত নয়।

 

  1. একটানা দীর্ঘ সময় ধরে অশ্বগন্ধা সেবন করবেন না। এতে ডায়রিয়া, গ্যাস্ট্রিক এবং বমির মতো বিভিন্ন সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। একটানা বেশিক্ষণ কোনো কিছু খাওয়া উচিত নয়। এর ফলে দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা হতে পারে।

 

  1. গর্ভবতী মহিলাদের দ্বারা অশ্বগন্ধা খাওয়া উচিত নয়। কারণ, অনেক সময় নির্দিষ্ট সময়ের আগে গর্ভপাত হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

 

  1. অশ্বগন্ধা সেবন আমাদের শরীরের রক্ত পাতলা করতে সাহায্য করে। তাই এ ক্ষেত্রে শরীরের যেকোনো অংশে অস্ত্রোপচার বা এ সংক্রান্ত কোনো ওষুধ সেবনে সমস্যা হতে পারে। কারণ, পাতলা রক্তের কারণে বেশি রক্তপাত হতে পারে যা সমস্যাকে আরও বাড়িয়ে দেবে।

 

  1. অশ্বগন্ধা খাওয়ার সময় কোনো ঘুমের বড়ি খাবেন না। কারণ আমরা জানি অশ্বগন্ধা খেলে ঘুম ভালো হয়। তাই ঘুম হলে অশ্বগন্ধা খাওয়ার পাশাপাশি অন্য কোনো ঘুমের ওষুধ খাবেন না। ডাক্তারের পরামর্শে খাবেন।

 

  1. যাদের রক্তে শর্করার মাত্রা বেশি তাদের রক্তে শর্করা কমানোর অন্যান্য ওষুধের সাথে অশ্বগন্ধা গ্রহণ করা উচিত নয়। একই সময়ে 2টি খাওয়ার ফলে চিনির অতিরিক্ত পরিমাণ হতে পারে যা আরও গুরুতর ক্ষতির কারণ হতে পারে। স্বাভাবিকভাবেই অশ্বগন্ধা সুগার কমাতে বা নিয়ন্ত্রণে খুবই কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

 

  1. যে মায়েরা বুকের দুধ খাওয়াচ্ছেন তাদের অশ্বগন্ধা খাওয়া উচিত নয়।

 আরো জানুনঃ

 

Leave a Comment

You cannot copy this post.