এলার্জি ঔষধ এর নাম

এলার্জি ঔষধ এর নাম – Nasivion Allergy 120 MG Tablet (নাসিভিওন অ্যালার্জি ১২০ এমজি ট্যাবলেট) গলা ব্যাথা, চুলকানি চোখ, হাঁচি বা নাকের সমস্যা, চুলকানি ত্বক এবং আমবাত এর চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। এই ওষুধটি একটি অ্যান্টিহিস্টামিন – এটি অ্যালার্জির লক্ষণগুলির জন্য দায়ী হিস্টামিন নামক শরীরের রাসায়নিককে ব্লক করে। Nasivion Allergy 120 MG Tablet এড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হয় যদি আপনি এর কোনো উপাদান থেকে অ্যালার্জি হন।

এলার্জি ঔষধ এর নাম
এলার্জি ঔষধ এর নাম
  • (Nasivion Allergy 120 MG Tablet)
  • Alatrol
  • ELC-M
  • ZYRTEC
  • Claritin Reditabs
  • Nasacort
  • Deslor
  • Allegra Allergy
  • Leest Plus
  • Telfast
  • Moxilase- DX
  • Fexo 120
  • Diphenhydramine
  • Cetrizine
  • Loratadine
  • Desloratadine
  • Fexofenadine
  • Antioxidant
  • Vitamin A & Zinc
  • Carotenoid
  • Schwabe Allium sativum MT
  • SBL Asterias rubens Dilution
  • ADEL 73 Mucan Drop
  • Dilosyn
  • Rupadin
  • Cetizin
  • Loratin
  • Alatrol
  • Desloratadine
  • Fexofenadine

এলার্জি ঔষধ এর নাম

১. Antioxidant

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মানবদেহে এবং প্রকৃতিতে রোগ প্রতিরোধের অন্যতম প্রধান হাতিয়ার। ভিটামিন সি হ’ল শরীরে এবং প্রকৃতিতে উত্পাদিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলির মধ্যে একটি, যা তার শক্তিশালী অ্যান্টি-অ্যালার্জিক এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যগুলির জন্য পরিচিত।

আরো জানুন;

তাই দিনে 3 বার 1000 থেকে 2000 মিলি ভিটামিন সি নিন। আপনার নখদর্পণে ভিটামিন সি এর একটি দুর্দান্ত উত্স। আপনি সবুজ মরিচ, বাঁধাকপি, আলু, লেবু, চুন, কমলা এবং টমেটো থেকে ভিটামিন সি পেতে পারেন। এছাড়াও, আঙ্গুর, পেয়ারা, কামরাঙ্গা সহ বিভিন্ন টক ফল ভিটামিন সি সমৃদ্ধ। যা আপনার অ্যালার্জি প্রতিরোধের অন্যতম উপায়।

২. Vitamin A এবং Zinc

ভিটামিন এ এবং জিঙ্ক মানুষের পাকস্থলী এবং অন্যান্য প্রদাহজনক স্থানে প্রদাহ কমাতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ভিটামিন এ প্রকৃতিতে বিভিন্ন খাবারে ছড়িয়ে পড়ে। যেমন: লেটুস পাতা, পালং শাক, টমেটো, মটরশুটি, গাজর এবং কুমড়ায় পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন এ রয়েছে। এছাড়া মিষ্টি আলু, ধনে পাতা, পীচ, কলা, পেঁপে, তরমুজ এবং ভুট্টা ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ রয়েছে।

অন্যদিকে জিঙ্কের অন্যতম সম্পদ হল ঝিনুক মাশরুম যা এখন আমাদের দেশের সর্বত্র পাওয়া যায়। অন্যান্য খাবারে জিঙ্ক রয়েছে: মিষ্টি কুমড়ার বীজ, মসুর বীজ, বাদাম এবং সূর্যমুখীর বীজ।

এছাড়াও, মুরগি পশু জিঙ্কের একটি ভাল উৎস। এছাড়া শামুক, ঝিনুক ইত্যাদিতেও প্রচুর জিঙ্ক থাকে।


৩. Carotenoid
ক্যারোটিনয়েড বিভিন্ন রঙিন শাকসবজি যেমন গাজর, মিষ্টি কুমড়া, হলুদ, পালং শাক, খেজুর শাক ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। এতে রয়েছে ক্যারোটিন, বিটা ক্যারোটিন, লুটেইন, লাইকোপিন, ক্রিপ্টোক্সানথিন এবং জাজেনথিন যা আমাদের শরীরের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। এগুলি অ্যালার্জির প্রাকৃতিক প্রতিকার হিসাবে দুর্দান্ত কাজ করে।

আরো জানুন;

৪. ঋষি মাশরুম

ঋষি মাশরুমের অ্যালার্জিজনিত চুলকানি কমানোর অসাধারণ ক্ষমতা রয়েছে। এটি হিস্টামিন উৎপাদনে বাধা দেয় এবং শারীরিক প্রদাহ কমায়।

এছাড়াও, ঋষি মাশরুমের অন্যতম প্রধান কাজ হল শরীরকে ডিটক্সিফাই করা। এটি রক্ত এবং শরীরের কোষকে ডিটক্সিফাই করে, রক্তে অতিরিক্ত কোলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমায় এবং শরীরে স্বাভাবিক ও প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত প্রবাহ নিশ্চিত করে। ফলস্বরূপ, মানুষের হৃদরোগ এবং উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি 95% পর্যন্ত কমে যায়।

Leave a Comment

You cannot copy this post.