খতিয়ান বের করার নিয়ম

খতিয়ান বের করার নিয়ম – আপনার জমির শংসাপত্র সঠিক থাকলে এবং যদি কোনও ভুল থাকে বা আপনার জমির শংসাপত্র হারিয়ে গেলে অনলাইনে জমির শংসাপত্র কীভাবে খুঁজে পাবেন? এই নিবন্ধে খতিয়ান প্রদানের নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

জমি ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল জমি সম্পর্কে জানা, শিরোনাম জানা এবং জমির মালিকানা সম্পর্কে জানা। এছাড়াও আমরা যদি জমি বিক্রি করতে চাই তাহলে জমি রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এছাড়াও, জমি সংক্রান্ত বিভিন্ন কাজের জন্য খতিয়ানের প্রয়োজন হয়।

যদি কোনো কারণে আপনার জমির সনদপত্র না থাকে, অথবা আপনি যে জমির কাগজপত্র কিনতে যাচ্ছেন তা সঠিক হলে, আপনি অনলাইনে জমির সার্টিফিকেট অনুসন্ধান করে সার্টিফিকেটটি জানতে পারেন। ভূমি সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য ভূমি মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটের ডাটাবেসে সংগৃহীত।

বর্তমানে কেউ ভূমি মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট eporcha.gov.bd থেকে কিছু তথ্য প্রদান করে জমির RS/BS/SA ইত্যাদি পেতে পারেন। এবং আপনি জমি রেজিস্ট্রেশনের অনলাইন বা সার্টিফাইড কপি ডাউনলোড করতে পারেন।

খতিয়ান বের করার নিয়ম – প্রয়োজনীয় তথ্য

খতিয়ান অনলাইনে অনুসন্ধান ও ডাউনলোড করতে কিছু তথ্যের প্রয়োজন হবে। অবশ্যই, আবেদন করার আগে এই তথ্য সংগ্রহ করা উচিত।

  • জমির সঠিক অবস্থান হল বিভাগ, জেলা ও উপজেলা এবং মৌজা।
  • প্লট নং জমির মালিকানার নাম।
  • কাগজের নাম জানতে হবে।
  • ভোটার আইডি কার্ড নম্বর এবং জন্ম তারিখ।
  • একটি সক্রিয় মোবাইল নম্বর।
  • পেমেন্টের জন্য ওয়েজ অ্যাকাউন্ট বা ইকপে অ্যাকাউন্ট।

খতিয়ান বের করার নিয়ম

খতিয়ান বের করার জন্য প্রবেশ প্রবেশ করুন এই লিংকে https://eporcha.gov.bd/  এবং মেনু থেকে “খতিয়ান” অপশনটি সিলেক্ট করুন। পরবর্তী পেইজে খতিয়ানের ধরন বাছাই করে বিভাগ জেলা উপজেলা ও মৌজা এবং আপনার খতিয়ান নাম্বার টি উল্লেখ করুন। সবশেষে অনুসন্ধান বাটনে ক্লিক করুন।

শুধুমাত্র খতিয়ান নম্বর নয় আপনি দাগ নম্বর কিংবা জমির মালিকের নাম দিয়েও জমির খতিয়ান বের করতে পারবেন। জমির খতিয়ান চেক করার পরে সেটি যদি আপনি সার্টিফাইড কপি ডাউনলোড করতে চান তাহলে আবেদন করতে হবে এবং প্রয়োজনীয় ফি প্রদান করতে হবে।

খতিয়ান বের করতে পারবেন নিচের কয়েকটি স্টেপে

  1. eporcha সাইটে ভিজিট করুন

    খতিয়ান যাচাই করার জন্য ভিজিট করুন e porcha ওয়েবসাইটে। এরপরে আপনাদেরকে মেনু থেকে খতিয়ান অপশনটি সিলেক্ট করে নিতে হবে এবং সেখানে ভিজিট করতে হবে।

খতিয়ান বের করার নিয়ম
খতিয়ান বের করার নিয়ম
  1. খতিয়ান যাচাই করুন

    এই পেজে আসার পরে আপনার খতিয়ানের ধরন সিলেক্ট করতে হবে যেমন আর এস পর্চা বা বি এস পর্চা অথবা আপনার যে পর্চা আপনি সেটি সিলেক্ট করে দিন।

    খতিয়ান বের করার নিয়ম
    খতিয়ান বের করার নিয়ম

তারপর আপনার খতিয়ানের ধরন নির্বাচন করুন যেমন BSCSTRSRSSA বা UNIQUE। আপনি আপনার কাগজ নির্বাচন করুন এবং তারপর বিভাগ, জেলা, উপজেলা এবং মৌজা সঠিকভাবে উল্লেখ করুন।

আপনি যেমন খতিয়ান বের করবেন, খতিয়ান নম্বর বক্সে খতিয়ান নম্বর টাইপ করুন। এছাড়াও আপনি চাইলে দাগ নম্বর বা মালিকের নাম দিয়ে খতিয়ান ইস্যু করতে পারেন যেটির জন্য দাগ নম্বর বা মালিকের নামের আগে টিক চিহ্নে ক্লিক করুন এবং দাগ নম্বর বা মালিকের নাম উল্লেখ করুন।

অবশেষে ছবিতে প্রদত্ত ক্যাপচার লিখুন এবং অনুসন্ধান বোতামে ক্লিক করুন।

  1. সার্টিফাইড কপির জন্য আবেদন করুন

    খতিয়ান সঠিকভাবে যাচাই করার পর, আপনি নীচের ছবির মতো একটি পৃষ্ঠা দেখতে পাবেন, যেখানে দাগ নম্বর এবং খতিয়ানের মালিকানা তথ্য দেখানো হবে। আপনি যদি অনলাইনে খতিয়ান কপি সংগ্রহ করতে চান তাহলে Apply বাটনে ক্লিক করুন

খতিয়ান বের করার নিয়ম
খতিয়ান বের করার নিয়ম

 

ফি প্রদান করুন

এই পেজে আসার পর আপনাকে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য যেমন আপনার নাম ভোটার আইডি কার্ড নম্বর, জন্ম তারিখ, মোবাইল নম্বর, ঠিকানা ইত্যাদি প্রদান করতে হবে।

খতিয়ান বের করার নিয়ম
খতিয়ান বের করার নিয়ম

 

আপনি খতিয়ান অনলাইন কপি বা সার্টিফাইড কপির জন্য আবেদন করতে চান কিনা তা নির্বাচন করতে ভুলবেন না।

সমস্ত তথ্য দেওয়া হয়ে গেলে, আপনি Ekapay বা মোবাইল ব্যাঙ্কিংয়ের মাধ্যমে নির্ধারিত ফি পরিশোধ করতে পারেন।

আপনি যদি খতিয়ানের অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে চান তবে আপনাকে কোনো ফি দিতে হবে না এবং আপনি যদি সার্টিফাইড কপি ডাউনলোড করতে চান তাহলে আপনাকে 50 টাকা ফি দিতে হবে।

  1. খতিয়ান ডাউনলোড করুন

    ব্যক্তিগত তথ্য এবং ফি প্রদান করার পর আপনি সার্টিফাইড কপি বা অনলাইন কপি ডাউনলোড করার যোগ্য হবেন যার পরে আপনি আপনার খতিয়ান ডাউনলোড করতে পারবেন।

খতিয়ান বের করার নিয়ম
খতিয়ান বের করার নিয়ম

 

যাইহোক, আপনি খতিয়ানের অনলাইন অনুলিপি একটি প্রত্যয়িত অনুলিপি হিসাবে ব্যবহার করতে পারবেন না, তবে আপনি যে কোনও উদ্দেশ্যে সার্টিফাইড কপি ব্যবহার করতে পারেন।

জমি সংক্রান্ত বিষয়ে আরও জানতে আপনি সরাসরি ভূমিসেবার হট লাইন নম্বরে যোগাযোগ করতে পারেন। ভূমি সেবা হটলাইন নম্বর হল 16122, আপনি জমি-জমা সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যার জন্য এই নম্বরে যোগাযোগ করতে পারেন এবং আপনার সমস্যার সমাধান করতে পারেন।

আজকাল প্রায় সব ধরনের খতিয়ান অনলাইনে পাওয়া যায়। নীচের লিঙ্কে ক্লিক করে এবং প্রয়োজনীয় বিকল্পগুলি পূরণ করে অনুসন্ধান করে আপনার খতিয়া যাচাই করুন। অনুগ্রহ করে অনুসন্ধান করার আগে নীচের লিখিত অনুসন্ধান পদ্ধতি পড়ুন।

যাচাই পদ্ধতিঃ

  • প্রথমে বিভাগ ঘর থেকে আপনার বিভাগ বাছাই করুন।
  • এরপর জেলা ঘরে ক্লিক করলে আপনার বিভাগের অধীন সকল জেলা দেখতে পাবেন, আপনার জেলায় ক্লিক করুন।
  • উপজেলার ঘরে ক্লিক করলে আপনার জেলার সকল উপজেলার নাম দেখতে পাবেন, আপনার উপজেলার নামে ক্লিক করুন।
  • এরপর মৌজা ঘরে ক্লিক করলে আপনার উপজেলার যে সকল মৌজার খতিয়ান চুড়ান্ত হয়েছে, সে সকল মৌজার নাম দেখতে পাবেন। আপনার জমিটি যে মৌজায় অবস্থিত সেই মৌজার নামে ক্লিক করুন।

মোট চার ভাবে সার্চ করে আপনার জমির খতিয়ান যাচাই করতে পারবেনঃ

  1. খতিয়ান নম্বর জানা থাকলে খতিয়ান নাম্বার দিয়ে সার্চ করে,
  2. দাগ নম্বর জানা থাকলে দাগ নম্বর দিয়ে সার্চ করে,
  3. জমির মালিকের নাম জানা থাকলে জমির মালিকের নাম দিয়ে সার্চ করে এবং
  4. জমি মালিকের পিতা বা স্বামীর নাম জানা থাকলে জমি মালিকের পিতা/স্বামীর নাম দিয়ে সার্চ করে।

এই চারটি মাধ্যমের প্রত্যেকটির বাম পাশে একটি ছোট গোলাকার ঘর বা বৃত্ত রয়েছে। উপরের চারটি পদ্ধতিতে আপনি যে পদ্ধতিটি অনুসন্ধান করতে চান তার বাম পাশের রাউন্ড বক্সে মাউসে ক্লিক করুন। তারপরে উপরের চারটি পদ্ধতির মধ্যে আপনি যে পদ্ধতিতে ক্লিক করেছেন তার ঠিক নীচে একটি ছোট বক্স আসবে, বক্সটি পূরণ করুন।

অর্থাৎ খতিয়ান নম্বর নির্বাচন করা হলে বক্সে খতিয়ান নম্বর লিখুন, দাগ নম্বর নির্বাচন হলে বক্সে দাগ নম্বর লিখুন, মালিকের নাম নির্বাচন হলে বক্সে মালিকের নাম লিখুন, যদি মালিকের পিতা/স্বামীর নাম নির্বাচন করা হয়, তাহলে বাক্সে পিতার/স্বামীর নাম লিখুন।

তারপর আপনাকে নীচের দুটি নম্বর যোগ করতে বলা হবে। দুটি সংখ্যা যোগ করুন এবং নিচের বক্সে যোগফল লিখুন। সবশেষে ‘Find’ অপশনে ক্লিক করুন। এভাবে আপনি আপনার পছন্দের খতিয়ান দেখতে বা যাচাই করতে পারবেন।

খতিয়ান বের করার নিয়ম – Faq

আর এস খতিয়ান কিভাবে বের করব?

আপনি ভূমি মন্ত্রণালয়ের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট land.gov.bd ঠিকানায় গিয়ে জমির রেকর্ড দেখার বিকল্প পাবেন। যাইহোক, দয়া করে মনে রাখবেন যে এটিই একমাত্র ওয়েবসাইট যেখানে আপনি আপনার জমির আরএস খতিয়ান দেখতে পারেন। আপনি যখনই চান আপনার জমির আরএস খতিয়ান ডাউনলোড করতে পারেন।

খতিয়ান বের করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: CS, SA, RS এর জন্য মাত্র 20 টাকা বা কোর্ট ফি। সিটি জরিপের জন্য 100 টাকা নেওয়া হবে।

আর ও আর কি?

(R,O,R) 1956 থেকে 1962 পর্যন্ত পরিচালিত এই প্রোগ্রামটি সর্বনিম্ন জমির মালিকের নাম এবং তার জমির বিবরণ সম্বলিত একটি হাতে লেখা রেকর্ড তৈরি করেছিল।

Leave a Comment

You cannot copy this post.