শবে বরাত ২০২৪ কত তারিখে, ফজিলত, নামাজের নিয়ম, আমল, হাদিস

শবে বরাত ২০২৪ সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে, এই প্রব্ধের মাধ্যমে। জানতে পারবে, শবে বরাতের ফজিলত, নামাজের নিয়ম, আমল, এবং হাদিস।

শবে বরাত 2024

শবে বরাত মুসলমানদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ রাত, যে রাতে আল্লাহ তায়ালা মানুষের মনের ইচ্ছা পূরণ করেন। বাংলাদেশে, এটি অনুষ্ঠিত হবে ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ রবিবার। বাংলাদেশের মুসলমানরা ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ রবিবার সারা রাত আল্লাহর ইবাদত করবে এবং দিনের বেলা রোজা রাখবে।

শবে বরাত এর  রাতটি সকল মানুষের জন্য তাৎপর্যপূর্ণ কারণ এটি শাবান মাসের মাঝামাঝি সময়ে পড়ে, যেমনটি হযরত আলী রাদিয়াল্লাহু তায়ালা কর্তৃক সুপারিশকৃত। মুসলমানরা বিশ্বাস করে যে এই রাতে যদি তারা ইবাদত করে তবে আল্লাহ তাদের প্রার্থনা এবং ইচ্ছা পূরণ করবেন।

বাংলাদেশের মুসলমানদের জন্য আল্লাহর সাথে সংযোগ স্থাপন এবং তাঁর আশীর্বাদ কামনা করার জন্য এটি একটি বিশেষ উপলক্ষ। বাংলাদেশে ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ রবিবার রাতে শবে বরাত পালনের নির্দেশ দিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন অব বাংলাদেশ।

শবে বরাত কত তারিখ ২০২৪

শবে বরাত মুসলমানদের জন্য একটি বিশেষ রাত। শবে বরাত ২০২৪ হবে পবিত্র শা’বান মাসের মাঝামাঝি রাতে। যেহেতু মাসটি রজব ও রমজান মাসের মধ্যবর্তী সেহেতু নামকরণ করা হয়েছে সাবান, সাবান একটি আরবি শব্দ যার অর্থ “মধ্যবর্তী।” এটি মুসলমানদের জন্য একটি ইবাদতের রাত, যেখানে সকল মুসলমান সারা রাত প্রার্থনা করে, কুরআন ও হাদিস তেলাওয়াত করে।

শবে বরাতের পরের দিন, মুসলমানরা আল্লাহর প্রতি ভক্তির নিদর্শন হিসেবে সারাদিন রোজা রাখে। পবিত্র শা’বান মাসটিও তাৎপর্যপূর্ণ কারণ এটি রমজানের বরকতময় মাসের প্রস্তুতির সময়। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) শা’বান মাসে সবচেয়ে বেশি রোজা রাখতেন এবং এই মাসে আল্লাহর কাছে দোয়া করতেন।

শবে বরাত ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ রবিবার তারিখে হবে বলে আশা করা হচ্ছে, তবে চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করে এই তারিখ পরিবর্তন হতে পারে।

যদি ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ তারিখে শাবান মাসের চাঁদ দেখা যায় তবে ২৪ ফেব্রুয়ারি শবে বরাতের রাত হিসাবে নিশ্চিত করা হবে। তবে চাঁদ দেখা না গেলে তারিখ কিছুটা আগে বা পরে হতে পারে।

এটা লক্ষণীয় যে সৌদি আরব তাদের ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বাংলাদেশের চেয়ে একদিন আগে সবকিছু উদযাপন করে, যদিও তারা একই মহাদেশে থাকে।

শবে বরাতের ফজিলত

হজরত আয়েশা সিদ্দীকা (রা.) বলেন, একবার রাসূলুল্লাহ (সা.) সালাতে দাঁড়ালেন এবং এতক্ষণ সেজদা করলেন যে, আমি মনে করলাম তিনি মারা গেছেন; আমি তখন উঠে তার পায়ের আঙুল নাড়ালাম, তার পায়ের আঙুল নড়ল; তিনি সেজদা থেকে উঠে গেলেন এবং সালাত শেষ করে আমার দিকে তাকিয়ে বললেন, হে আয়েশা! আপনার কি এই ভয় আছে? আমি উত্তরে বললাম, হে আল্লাহর রাসূল (সা.)!

তোমার দীর্ঘ সেজদা থেকে ভয় পেয়েছিলাম তুমি মরে গেছ নাকি? রাসুল (সাঃ) বললেন, তুমি কি জানো এটা কোন রাত? আমি বললাম, আল্লাহ ও আল্লাহর রাসূলই ভালো জানেন। তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, এটা আরদশাবানের রাত; এই রাতে আল্লাহ তাঁর বান্দাদের প্রতি মনোযোগ দেন; যারা ক্ষমা চায় তাদের ক্ষমা করে, যারা অনুগ্রহ চায় তাদের পক্ষ নেয়। এবং বিদ্বেষীদের তাদের অবস্থাতেই ছেড়ে দিন। (শুআবুল ঈমান, তৃতীয় খণ্ড, পৃষ্ঠা ৩৮২)।

হজরত আয়েশা (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) রাতে মদিনার কবরস্থান ‘জান্নাতুল বাকি’তে আসতেন এবং মৃতদের জন্য দোয়া করতেন। তিনি আরও বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) তাকে বলেছেন যে, আল্লাহ এ রাতে বনি কালবের ভেড়া ও ছাগলের পশমের চেয়েও বেশি পাপীদের ক্ষমা করেন। (তিরমিযী শরীফ, হাদীসঃ ৭৩৯)।

শবে বরাতের নফল নামাজ ও ইবাদত: রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যখন শা’বানের মধ্য দিন আসবে, তখন তোমরা রাতে নফল নামাজ পড়বে এবং দিনে রোজা রাখবে। (ইবনে মাজাহ)। সর্বোত্তম ইবাদত হল নামায; তাই নফল ইবাদতের মধ্যে সর্বোত্তম হল নফল নামাজ। প্রত্যেক নফল ইবাদতের জন্য তাজা ওযু বা তাজা ওযু মুস্তাহাব। বিশেষ ইবাদতের জন্যও গোসল মুস্তাহাব। ইবাদতের জন্য রাতের চেয়ে দিন উত্তম।

হজরত আলী (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যখন ১৪ শা’বানের রাত আসে, তখন সে রাত ইবাদত-বন্দেগিতে কাটাও এবং দিনে রোজা রাখো; কেননা, এই দিনে সূর্যাস্তের পর আল্লাহ তায়ালা দুনিয়ার আকাশে নেমে ডেকে বললেন, তোমার কি কোন মাফ আছে? আমি ক্ষমা করে দেব, তোমার কোন আবেদনকারী আছে? আমি রিজিক দেব, তুমি কি কোন বিপদে? আমি এভাবে উদ্ধার করব, আল্লাহ তা’আলা ‘আলা ভোর পর্যন্ত মানুষের বিভিন্ন প্রয়োজনের প্রতি আহ্বান করতে থাকেন। (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ১৩৮৪)।

শবে বরাত শব্দটি একটি ফার্সি শব্দ যেখানে শবে বরাত শব্দের অর্থ রাত এবং বরাত শব্দের অর্থ বিচ্ছেদ বা মুক্তি অর্থাৎ শবে বরাত শব্দের অর্থ মুক্তির রাত। এ রাতে আল্লাহ বান্দাকে সব ধরনের পাপ থেকে মুক্ত করেন, তাই এ রাতের নাম শবরাত। শবে বরাতের রাতে বান্দা যদি মুশরিক ও হিংস্র লোক ব্যতীত ক্ষমা প্রার্থনা করে তবে আল্লাহ সমস্ত গুনাহ মাফ করে দেন। ইবনে মাজাহ রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একবার বলেছিলেন, “আল্লাহ তায়ালা মধ্য সাবানের (শবা বরাত) রাত।”
তিনি নিজেকে প্রকাশ করেছেন এবং মুশরিক ও হিংস্র ব্যতীত তাঁর সমস্ত সৃষ্টিকে ক্ষমা করেছেন।

শাবা বরাতের ফযীলত সম্পর্কে আরো হাদীস আলী ইবনে আবি তালেব রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত হয়েছে। কারণ আল্লাহ তায়ালা সূর্যাস্তের পর পৃথিবীর আকাশে অবতরণ করেন এবং বলেন, কেউ আছে কি ক্ষমা প্রার্থনাকারী, আমি তাকে ক্ষমা করে দেব। কেউ কি বিপদে পড়লে তাকে সুস্থতা দেব। ফজর পর্যন্ত বলা হয়। ইবনে মাজাহ: 1388

শবে বরাতের নামাজের নিয়ম

শবে বরাতের নামাজের নিয়ম: নাওয়াইতুয়ান উছল্লি লিলা-হি তা-লা- রাকাআতাই ছালা-তি লাইলাতিল বারা-তিন-নাফলি, মুতাওয়াজ্জিহান ইলা-জিহাতিল কাবাতিশ শরিফতি আল্লা-হু আকবার।

প্রকৃত অর্থে, শবে বরাত বলে কিছু নেই, যেহেতু এই রাতটি ইবাদতে কাটাতে হবে, এই সমাধানটি হাদিসেই দেওয়া আছে। আর এই বিশেষ ইবাদত পালন করে মুসলিম বিশ্ব।

সন্ধ্যায়- এই রাতে মাগরিবের নামাজের পর জীবনের বরকত, ঈমান রক্ষার জন্য এবং অন্যের সামনে না দাঁড়ানোর জন্য দুই রাকাতে ৬ রাকাত নফল নামাজ পড়া উত্তম। এই 6 রাকাত নফল নামাজের নিয়ম – প্রতি রাকাতে সূরা ফাতিহা পড়তে হবে যে কোন সূরা অনুসরণ করে। দুই রাকাত নামাজ শেষ করে সূরা ইয়াশিন বা সূরা এখলাছ ২১ বার পড়তে হবে।

শবে বরাতের নফল নামাজ

দুই রাকাত তাহিয়্যাত আল-আজুর নামাজ, নিয়ম- প্রতি রাকাতে আল হামদুলিল্লাহ (সূরা ফাতিহা) পড়ার পর ১ বার আয়াতুল কুরসি এবং তিনবার কুলহু আল্লাহ (সূরা এখলাছ)। নেকী : প্রতি ফোঁটার জন্য সাতশত নেকী লেখা হবে।

দুই রাকাত নফল নামাজ, নিয়ম- ১ নং নামাজের মতো, প্রতি রাকাতে সূরা ফাতিহা পড়ার পর আয়াতুল কুরসি ১ বার ও সূরা এখলাস ১৫ বার, সালাম ফিরানোর পর দুরূদ শরীফ ১২ বার। ফজিলত: রিযিকে বরকত, কষ্ট থেকে মুক্তি, পাপ থেকে ক্ষমা।

দুই রাকাতে আট রাকাত নফল নামাজ পড়তে হবে, নিয়ম- প্রতি রাকাতে সূরা ফাতিহার পর সূরা এখলাছ ৫ বার। বাকি সব একই নিয়মে। ফজিলত: আপনি পাপ থেকে মুক্ত হবেন, আপনার দোয়া কবুল হবে এবং আপনি আরও নেক আমল পাবেন।

12 রাকাত নফল নামাজ দুই রাকাত করে, নিয়ম- প্রতি রাকাতে সূরা ফাতিহার পর 10 বার সূরা এখলাছ এবং এই নিয়মে 10 বার কলেমা তাওহীদ, 10 বার কলেমা তমজিদ এবং 10 বার দুরূদ শরীফ এই নিয়মে শেষ করুন।

দুই রাকাতে ১৪ রাকাত নফল নামাজ, নিয়ম- প্রতি রাকাতে সূরা ফাতিহার পর যে কোনো একটি সূরা পড়বেন। ফজিলতঃ যেকোন দুআ কবুল হবে।

এক সালামে চার রাকাত নফল নামাজ পড়তে হবে, নিয়ম- প্রতি রাকাতে সূরা ফাতিহার পর ৫০ বার সূরা এখলাছ শরীফ। পুণ্য: সে পাপ থেকে এমনভাবে শুদ্ধ হবে যেন সে সবেমাত্র তার মায়ের গর্ভ থেকে জন্ম নিয়েছে।

এক সালামে আট রাকাত নফল নামাজ, নিয়ম- প্রতি রাকাতে সূরা ফাতিহার পর সূরা এখলাছ শরীফ ১১ বার। ফজিলত: এর ফজিলত সম্পর্কে বর্ণিত আছে যে, হজরত সাইয়্যিদাতুনা ফাতিমা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেছেন, ‘আমি নামাজ আদায়কারীর জন্য সুপারিশ করা ছাড়া জান্নাতে পা রাখব না।

রোজার ফজিলত রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন, যে ব্যক্তি শা’বান মাসে ১ দিন রোজা রাখবে, আমার কাছে তার সুপারিশ হবে। আরেকটি হাদিস শরিফে আছে যে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি শা’বানের ১৫ তারিখ রোজা রাখবে তাকে জাহান্নামের আগুন স্পর্শ করবে না। সালাতুল তাসবীহ নামাজও পড়তে পারেন। এই নামাজের অনেক ফজিলত রয়েছে।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর চাচা হজরত আব্বাস রাদিআল্লাহু আনহুকে এই দোয়া শিখিয়েছিলেন এবং বলেছিলেন যে আপনি যদি এই দোয়াটি পাঠ করেন তবে আউয়াল আখিরের মহান কবিদের জানা-অজানা সমস্ত গুনাহ আল্লাহ মাফ করে দেবেন।

আরে চাচা জান! পারলে প্রতিদিন একবার এই দোয়াটি পড়ুন। প্রতিদিন না হলে সপ্তাহে একবার পড়ুন। সপ্তাহে না হলে মাসে একবার পড়ুন। মাসে না হলে বছরে একবার পড়ুন। আপনি যদি তা করতে না পারেন, তাহলে জীবনে অন্তত একবার এই প্রার্থনা করুন (তবে এটি এড়িয়ে যাবেন না)।

শবে বরাতের নামাযের নিয়ত

নাওয়াইতুয়ান উছল্লি লিলা-হি তা-লা- রাকাআতাই ছালা-তি লাইলাতিল বারা-তিন-নাফলি, মুতাওয়াজ্জিহান ইলা-জিহাতিল কাবাতিশ শরিফতি আল্লা-হু আকবার।

আপনি যদি এটি বাংলায় করতে চান তবে আপনি এটি এভাবে করতে পারেন: ‘শবে বরাতের দুই রাকাত নফল নামাজ/ কিবলার দিকে মুখ করে নামাজ, আল্লাহু আকবার’।

মধ্য-শাবানে নফল রোজা: রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, যখন শা’বানের মধ্য দিন আসে, তখন তোমরা রাতে নফল নামায পড় এবং দিনে রোজা রাখ। (সুনানে ইবনে মাজাহ)। এছাড়া প্রতি মাসের 13, 14 ও 15 তারিখে বিজের একটি নফল রোজা রয়েছে। প্রথম পিতা হজরত আদম (আ.) যা পালন করেছেন এবং আমাদের প্রিয় নবী (সা.)ও পালন করেছেন; যা মূলত সুন্নত।

তাই তিনটি রোজা রাখলেও শবে বরাতের রোজা তার অন্তর্ভুক্ত হবে। বিখ্যাত মুহাদ্দিস ফকীহ হাফিজ ইবনে রজব (রহ.) বলেন, এই দিনে রোজা রাখা আইয়াম বিজের অন্তর্ভুক্ত, অর্থাৎ চান্দ্র মাসের ১৩, ১৪ ও ১৫ তারিখে রোজা রাখা। (লাতায়েফুল মাআরিফ, পৃষ্ঠা 151)।

এছাড়া নফল রোজার প্রথম তারিখ, মধ্য তারিখ ও শেষ তারিখ গুরুত্বপূর্ণ; শবে কদরের রোজাও এর আওতায় পড়ে। সাওমে দাউদী বা হজরত দাউদ (আ.)-এর পদ্ধতিতে একবারে একদিন রোজা রাখা কিন্তু সর্বোপরি প্রতিটি বেজোড় তারিখে রোজা রাখা হয়; আর এর সাথে যোগ হয় শবে কদরের রোজা।

সর্বোপরি, রাসুলুল্লাহ (সা.) রমজান মাসের পর রজব ও শাবান মাসে বেশি বেশি নফল নামাজ ও নফল রোজা রাখতেন; শাবান মাসে কখনো ১০, কখনো ১৫, কখনো ২০ নফল রোজা, কখনো বেশি। এমনকি উম্মুহাতুল মুমিনীন বা মুমিনীনদের মায়েরা বর্ণনা করেছেন যে, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এমনভাবে নফল রোজা শুরু করতেন যে তিনি মনে করতেন যে তিনি আর কখনও রোজা ভঙ্গ করবেন না। (মুসলিম)।

শবে বরাতের আমল

রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “যখন শা’বানের মধ্য দিন আসে, তখন তোমরা রাতে নফল নামায পড়বে এবং দিনে রোযা রাখবে” (ইবনে মাজাহ)। হজরত আলী (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যখন ১৪ শা’বানের রাত আসে, তখন তোমরা সে রাত ইবাদতে কাটাও এবং দিনে রোজা রাখো। কেননা, এই দিনে সূর্যাস্তের পর আল্লাহ তায়ালা পৃথিবীর আকাশে নেমে আসেন এবং ডাক দেন; আপনি কোন ক্ষমাপ্রার্থী আছে? আমি ক্ষমা করব; আপনি কোন আবেদনকারী আছে? আমি রিযিক দেব; আপনি কি কোন বিপদে পড়েছেন? আমি উদ্ধার করব এভাবে, আল্লাহ তায়ালা ভোর পর্যন্ত মানুষের বিভিন্ন প্রয়োজনের প্রতি আহ্বান করতে থাকেন (ইবনে মাজাহ, হাদিস: 1384)।

এই দিনে ও রাতে যে ইবাদতগুলো করতে হবে তা হলো-

1. নফল সালাত

2. নামাজে কিরাআত ও রুকু-সাজদা দীর্ঘ করা।

3. পরের দিন নফল রোজা রাখা;

4. কুরআন তেলাওয়াত করা

5. বেশি বেশি দরুদ শরীফ পাঠ করুন;

6. অনুতাপ এবং ক্ষমা;

7. দোয়া-কালাম, তাসবীহ তাহলীল, জিকির-আসকার ইত্যাদি;

8. কবর জিয়ারত;

9. নিজের জন্য, পিতামাতা, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব এবং সকল মুমিন মুসলমানদের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করা এবং দেশ ও জাতির কল্যাণ ও সমৃদ্ধির জন্য প্রার্থনা করা।

শবে বরাত সম্পর্কে হাদিস

হজরত আয়েশা সিদ্দীকা (রা.) বলেন, একবার রাসূলুল্লাহ (সা.) সালাতে দাঁড়ালেন এবং এতক্ষণ সেজদা করলেন যে, আমি মনে করলাম তিনি মারা গেছেন; আমি তখন উঠে তার পায়ের আঙুল নাড়ালাম, তার পায়ের আঙুল নড়ল; তিনি সেজদা থেকে উঠে গেলেন এবং সালাত শেষ করে আমার দিকে তাকিয়ে বললেন, হে আয়েশা! আপনার কি এই ভয় আছে? আমি উত্তরে বললাম, হে আল্লাহর রাসূল (সা.)!

তোমার দীর্ঘ সেজদা থেকে ভয় পেয়েছিলাম তুমি মরে গেছ নাকি? রাসুল (সাঃ) বললেন, তুমি কি জানো এটা কোন রাত? আমি বললাম, আল্লাহ ও আল্লাহর রাসূলই ভালো জানেন। তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, এটা আরদশাবানের রাত; এই রাতে আল্লাহ তাঁর বান্দাদের প্রতি মনোযোগ দেন; যারা ক্ষমা চায় তাদের ক্ষমা করে, যারা অনুগ্রহ চায় তাদের পক্ষ নেয়। এবং বিদ্বেষীদের তাদের অবস্থাতেই ছেড়ে দিন। (শুআবুল ঈমান, তৃতীয় খণ্ড, পৃষ্ঠা ৩৮২)।

হজরত আয়েশা (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) রাতে মদিনার কবরস্থান ‘জান্নাতুল বাকি’তে আসতেন এবং মৃতদের জন্য দোয়া করতেন। তিনি আরও বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) তাকে বলেছেন যে, আল্লাহ এ রাতে বনি কালবের ভেড়া ও ছাগলের পশমের চেয়েও বেশি পাপীদের ক্ষমা করেন। (তিরমিযী শরীফ, হাদীসঃ ৭৩৯)।

শবে বরাতের নফল নামাজ ও ইবাদত: রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যখন শা’বানের মধ্য দিন আসবে, তখন তোমরা রাতে নফল নামাজ পড়বে এবং দিনে রোজা রাখবে। (ইবনে মাজাহ)। সর্বোত্তম ইবাদত হল নামায; তাই নফল ইবাদতের মধ্যে সর্বোত্তম হল নফল নামাজ। প্রত্যেক নফল ইবাদতের জন্য তাজা ওযু বা তাজা ওযু মুস্তাহাব। বিশেষ ইবাদতের জন্যও গোসল মুস্তাহাব। ইবাদতের জন্য রাতের চেয়ে দিন উত্তম।

হজরত আলী (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যখন ১৪ শা’বানের রাত আসে, তখন সে রাত ইবাদত-বন্দেগিতে কাটাও এবং দিনে রোজা রাখো; কেননা, এই দিনে সূর্যাস্তের পর আল্লাহ তায়ালা দুনিয়ার আকাশে নেমে ডেকে বললেন, তোমার কি কোন মাফ আছে? আমি ক্ষমা করে দেব, তোমার কোন আবেদনকারী আছে? আমি রিজিক দেব, তুমি কি কোন বিপদে? আমি এভাবে উদ্ধার করব, আল্লাহ তা’আলা ‘আলা ভোর পর্যন্ত মানুষের বিভিন্ন প্রয়োজনের প্রতি আহ্বান করতে থাকেন। (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ১৩৮

মন্তব্য করুন

This content is protected! By banglanewsbdhub