সময়ের মূল্য রচনা ১৫,২০, ২৫,৩০ পয়েন্ট এবং সকল শ্রেণীর জন্য PDF

সময়ের মূল্য রচনা ১৫ পয়েন্ট ,২০ পয়েন্ট, ২৫ পয়েন্ট,৩০ পয়েন্ট এবং ৩য় শ্রেণি থেকে দ্বাদশ অর্থাৎ সকল শ্রেণীর জন্য PDF দেয়া হয়েছে। এছাড়াও ১০০ শব্দ থেকে ৩০০ শব্দের রচনা প্রকাশ করা হয়েছে।

আমদের লেখা সময়ের মূল্য রচনা যে সকল শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা পড়তে পারবেঃ সময়ের মূল্য রচনা for class 3, class 4, class 5 class 6, class 7, class 8, class 9, class 10, class 12 এর জন্য প্রকাশ করা হয়েছে, এছাড়াও সময়ের মূল্য রচনা এস এস সি, এইচ এস সি শিক্ষার্থীদের জন্যও দেয়া হয়েছে।

সময়ের মূল্য রচনা বিভিন্ন শব্দের হতে পারে – অনেকে সময়ের মূল্য রচনাটি বিভিন্ন শব্দের মধ্যে অনুসন্ধান করে থাকেন, তার মধ্যে রয়েছে সময়ের মূল্য রচনা ১০০ শব্দ, ২০০ শব্দ বা 200 words এবং অনেকে ৩০০ শব্দের সময়ের মূল্য রচনা খুঁজে থাকেন।

সময়ের মূল্য রচনার ২০ পয়েন্ট, ১৫, ২৫, ৩০ পয়েন্ট – এছাড়াও জানতে পারবে সময়ের মূল্য রচনার ১৫ পয়েন্ট, সময়ের মূল্য রচনার ২০ পয়েন্ট, ২৫ পয়েন্ট এবং সময়ের মূল্য রচনার ৩০ পয়েন্ট দেয়া হয়েছে।

সময়ের মূল্য রচনা pdf – আমরা সময়ের মূল্য রচনার pdf দিয়েছে, যেন সকল শিক্ষার্থীরা নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী পড়তে পারে। সময়ের মূল্য রচনা pdf ফাইল দেয়ার মূল উদ্দেশ্য হলো, আমাদের সাইটে বিভিন্ন শ্রেণির শিক্ষার্থীর প্রতি নিয়ত ভিজিট করে এজন্য সময়ের মূল্য রচনা pdf দিয়েছে। এছাড়াও অনেকে আছে যারা সময়ের মূল্য রচনা pdf ফাইল ডাউনলোড করে প্রিন্ট করতে চাই।

সময়ের মূল্য রচনা
সময়ের মূল্য রচনা

সময়ের মূল্য রচনা

ভূমিকা: গ্রিক প্রবাদে বলা হয়েছে,  তুমি যা কিছু খরচ করো, তার মধ্যে সময় সব চেয়ে দামি।সময় সবসময় প্রবাহিত হয়, এটি কারও জন্য অপেক্ষা করে না, প্রবাহই তার একমাত্র অভ্যাস। বর্তমান সময়কে কাজে লাগিয়ে মানুষ তার জীবনে সফল হতে পারে। এই পৃথিবীতে মানুষ খুব অল্প সময়ের জন্য আসে তাই আপনার জীবনকে সুখী ও সুন্দর করতে সময়ের মূল্য দিতে হবে। মানুষকে কিছুক্ষণের জন্য পৃথিবীতে থাকতে হবে এবং সময়ের সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে সেই বেঁচে থাকা পূর্ণ হবে। সময় এমন কারো জন্য অপেক্ষা করে না যার লক্ষ্য সামনে এগিয়ে যাওয়া। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত সময়কে কাজে লাগাতে পারলে আমাদের জীবন আরও সুন্দর হতে পারে। এটা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে জীবনে হারানো সবকিছু ফিরে পাওয়া যায় কিন্তু হারানো সময় কখনো ফিরে পাওয়া যায় না।

সময়ের মূল্য: সময় চলে গেলে আর ফিরে পাওয়া যায় না, তাই সময় অন্য যেকোনো কিছুর চেয়ে বেশি মূল্যবান। তাই সময় মানব জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ। সৃষ্টির শুরু থেকেই পৃথিবীতে অনেক পরিবর্তন হয়েছে, অনেক কিছু আবিষ্কৃত হয়েছে, কিন্তু সময়কে ধরে রাখার কোনো যন্ত্র বা পদ্ধতি মানুষ আবিষ্কার করতে পারেনি। নদী কারো জন্য অপেক্ষা করে না সময় কারো জন্য অপেক্ষা করে না। জীবনকে সার্থক করতে সময়ের সঠিক ব্যবহারের কোনো বিকল্প নেই। সময় কখনই কোন অজুহাতে কারো জন্য বিলম্ব করে না। মানুষের জীবনে দুঃখ এবং বেদনা আছে যা একে অপরকে প্রভাবিত করে কিন্তু সময় তার নিজস্ব গতিতে চলে এমন কিছু দ্বারা প্রভাবিত হয় না।

সময়ের সদ্ব্যাবহার: সময় নির্ধারণ করে একজন ব্যক্তির জীবন উজ্জ্বল না অন্ধকার হবে। সময়কে সঠিকভাবে ব্যবহার করলে তার জীবন হবে আলোয় ভরপুর এবং অবহেলায় অলস সময় কাটালে তার জীবন হবে অন্ধকার। মানুষ কখনো চিরকাল বাঁচতে পারে না কিন্তু কর্মের মাধ্যমে মানুষ মানুষের মধ্যে চিরকাল বেঁচে থাকতে পারে। জীবনে সঠিক লক্ষ্যে পৌঁছতে হলে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে, প্রতিভা ব্যয় করতে হবে এবং সময়কে অনুসরণ করতে হবে। সময়কে অবহেলা করে জীবনে উন্নতি করা কখনোই সম্ভব নয়। আজকে আমরা উন্নত বিশ্বের দিকে তাকাই এবং তাদের অবিরাম দৌড় দেখি, এই দৌড়ের মধ্যেই লুকিয়ে আছে সাফল্যের সোনালী চাবিকাঠি। ব্যক্তিগত জীবন থেকে শুরু করে জনজীবনে সময়ের পূর্ণ সদ্ব্যবহার করার মধ্যেই সাফল্য নিহিত।

সময়ের গুরুত্ব: সময়ের গুরুত্ব চিরন্তন সত্যবাদে নিহিত ‘যদি আমরা সময়ের যত্ন না করি, সময় আমাদের যত্ন নেবে’। পৃথিবীতে খ্যাতি অর্জনকারী প্রত্যেক ব্যক্তিই সময়কে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন। আলসেমি যদি অযত্নে সময় কাটায় তাহলে জীবনে ভালো কিছু অর্জিত হবে না এবং তা হলেও তা বেশিদিন স্থায়ী হবে না। সময় মানুষের জীবনের সবচেয়ে দুষ্প্রাপ্য দ্রব্য, তাই এর সঠিক ব্যবহার না করার মতো বোকামি আর কিছু নেই। জন্ম ও মৃত্যুর মধ্যবর্তী সময়কে মধুর করে তুলতে সময়ের মূল্য সম্পর্কে মানুষকে সচেতন হতে হবে।

মানুষ কখনও কখনও ব্যর্থতায় নিজেকে হারাতে শুরু করে কিন্তু সেই ব্যক্তি যদি সময়কে বিবেচনা করে আবার শুরু করতে পারে তবে তা শেষ পর্যন্ত সাফল্যে পরিণত হতে পারে। জীবনের সকল কর্তব্যের একটি নির্দিষ্ট সময় আছে তাই সময়মত সকল কাজ সম্পন্ন করতে চাইলে সময়ের সদ্ব্যবহার করুন। করতে হবে যদি আমরা প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যের দিকে তাকাই তাহলে দেখতে পাব যে, কৃষিতে প্রতিটি ফসল উৎপাদনের জন্য একটি সময় বরাদ্দ রয়েছে, সঠিক সময়ে ফসল লাগালে ভালো ফলন পাওয়া যায়, কিন্তু তা না হলে। ফসল উৎপাদনের সময় সঠিক বিবেচনায় রাখুন, তাহলে নিশ্চয়ই ভালো ফলন পাবেন না। মানুষের জীবন ঠিক একই রকম কারণ সফল হতে হলে সময়কে যথাযথ গুরুত্ব দেওয়ার বিকল্প নেই।

সময় মূল্যবান হওয়ার কারণ:  ‘সময় এবং বর্তমান কারো জন্য অপেক্ষা করছে’- এই সুপরিচিত বাক্যটি আমাদের বুঝতে সাহায্য করতে পারে কেন সময় আমাদের কাছে এত মূল্যবান। সময় যেমন কোনো কিছুতে মাপা যায় না, হারানো সময় কোনোভাবেই ফিরে পাওয়া যায় না। আমি যদি সময়ের কাজ না করি, তাহলে কাজ বাকি থাকবে, সময় কেটে যাবে, কাজের বোঝা ভারী হবে এবং জীবন ক্লান্ত হবে এবং বিষণ্নতা নেমে আসবে। ছন্দময় জীবনকে আরও আনন্দময় করতে সময়ের সাথে সমানতালে চলতে হবে। সারাদিনের কাজকে সময় অনুযায়ী ভাগ করতে হবে এবং সময় অনুযায়ী কাজ করতে হবে। আমাদের জীবনের প্রতিটি কাজই পারস্পরিক সম্পর্কের বন্ধনে বাঁধা.. সময়কে অবহেলা করে জীবনে সফলতা পাওয়া সম্ভব নয় তাই প্রতিটি মানুষের জীবনে সময় খুবই মূল্যবান।

সময় অবহেলার পরিণতি:  ‘লালন ফকিরের এই চিরন্তন বাণীতে স্পষ্ট হয়ে যায় সময়কে অবহেলার পরিণতি কী হতে পারে। এক কথায় সময়কে অবহেলার পরিণতি খুবই মর্মান্তিক। সময় কখনই চোখে দেখা যায় না, শব্দ করে না, নীরবে বয়ে যায়, সবার অগোচরে। একজন জ্ঞানী ব্যক্তি সময়ের সদ্ব্যবহার করতে সচেতন, আর উদাসীনতায় ভরা জীবন সময়ের মূল্যায়নে সম্পূর্ণ অসচেতন। অতএব, উদাসীন ব্যক্তির জীবনে অমাবস্যার অন্ধকার নেমে আসে। সময় অবহেলা করলে সময় মানুষের প্রতি প্রতিশোধ নেয়।

মৃত্যু পর্যন্ত মানুষকে দুর্বিষহ অভিশপ্ত জীবন বয়ে বেড়াতে হয়। অন্যদিকে সময়ের সঠিক ব্যবহার জীবনকে করে তোলে সুখী ও সমৃদ্ধিতে পূর্ণ। শৈশবের কাজ যেমন যৌবনে হয় না, তেমনি যৌবনের কাজ বার্ধক্যে হয় না। জীবনের প্রতিটি কাজের একটি নির্দিষ্ট সময় আছে, সময় অনুযায়ী কাজ শেষ করা মানুষের দায়িত্ব। যদি একটি কাজ অবহেলা করা হয়, আরও গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলি পরে প্রদর্শিত হবে এবং শেষ পর্যন্ত কিছুই সঠিকভাবে করা যাবে না।

সময়ের প্রতি উদাসীনতা : সময়ের সঠিক মূল্যায়ন না করলে মেধাবীরাও অধঃপতনে তলিয়ে যেতে পারে। লোকেরা পরচর্চা করে, অলসভাবে কর্তব্য শির্ক করে এবং মূল্যবান সময় নষ্ট করে। জীবনের কোনো না কোনো সময় হারানো সম্পদ পুনরুদ্ধার করা গেলেও হারানো সময় জীবনে কখনো ফিরে পাওয়া যায় না। সময় নষ্ট করার জন্য পরবর্তী জীবনে আফসোস করা ছাড়া কিছুই করার নেই।

সময়ের সদ্ব্যবহার : মানুষের সামনে কর্মের বিশাল ক্ষেত্র রয়েছে। কিন্তু কোনো কাজ সময়মতো না হলে জীবন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। কর্ম মানুষকে পৃথিবীতে পরিচিত করে তোলে। একজন কর্মহীন মানুষ একশ বছর বেঁচেও অমরত্ব লাভ করতে পারে না। মৃত্যুতে তার জীবন শেষ হয়। কিন্তু কর্মফলেই মানুষ পৃথিবীতে অমর হয়। পরিশ্রমী মানুষ কোনো অবসর পায় না। তাই খেলার সময় খেলুন, পড়ার সময় পড়ুন এবং কাজের সময় কাজ করুন।

ছাত্রজীবনের সঙ্গে সময়ের মূল্যের সম্পর্ক: ছাত্রজীবনই জীবন গড়ার শ্রেষ্ঠ সময়। ছাত্রজীবনকে আগুনে পোড়ানো লোহার সাথে তুলনা করা হয় কারণ লোহা গরম হলে যেকোন আকৃতি ধারণ করা যায় কিন্তু লোহা ঠান্ডা হলে কোন কাঙ্খিত আকার ধারণ করা যায় না। একইভাবে ছাত্রজীবন এমন একটি সময় যা নির্ধারণ করবে ভবিষ্যত জীবন কেমন হবে। ছাত্রজীবনের সময়টাকে সঠিকভাবে মূল্যায়ন করতে পারলে পরবর্তী জীবন হবে অর্থবহ ও সুন্দর।

কর্মজীবনে সাফল্য নির্ভর করে ছাত্রজীবনে সময়ের মূল্য কতটা তার ওপর। ছাত্রজীবনেই জীবনের বীজ বপন করতে হয় তবেই সুফল পাওয়া যায়। ছাত্রজীবনে সময়কে অবহেলা করলে পরবর্তীতে কোনো আফসোস নিয়ে আমরা সেই সময়কে ফিরিয়ে দিতে পারি না। যে ছাত্র সময়কে অবহেলা করে সে শুধু পরীক্ষায় খারাপ করবে না, জীবনের ভবিষ্যত পথ অন্ধকার হবে। পড়াশোনার পাশাপাশি শারীরিক ব্যায়াম করতে হবে নির্ধারিত সময়ে এবং পারিবারিক দায়িত্ব পালনের অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। ছাত্রজীবন থেকেই সময়কে কাজে লাগানোর পাশাপাশি পরিশ্রমে সচেতন হতে হবে।

মনীষীদের জীবনে সময়নিষ্ঠা: জীবনের যাত্রায় যারা সফলতা অর্জন করতে পেরেছেন তারাই সময়ের মূল্য সঠিকভাবে দেন। শিল্প, সাহিত্য, বিজ্ঞান এবং খেলাধুলা সহ বিশ্বের ইতিহাসে আমরা যাদেরকে বিভিন্নভাবে স্মরণ করি তাদের জীবনের ইতিহাস দেখে সময়ানুবর্তিতা প্রমাণিত হয়। স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, শেক্সপিয়ার, নিউটন, আইনস্টাইন প্রমুখ মনীষীর জীবনী পর্যালোচনা করলে দেখবেন সকলের সাফল্যের পিছনে লুকিয়ে আছে সময়ানুবর্তিতা। জগদীশ চন্দ্র বসু দীর্ঘকাল গবেষণা করে প্রমাণ করেছেন যে উদ্ভিদের প্রাণ আছে, তিনি ধৈর্য ও সময়ানুবর্তিতার মাধ্যমে তা প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছিলেন। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সেরা অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা একের পর এক পায়ের ইনজুরির কারণে দল থেকে ছিটকে গেলেও মনোবল না হারিয়ে সময়কে কাজে লাগিয়ে ধীরে ধীরে অনুশীলন চালিয়ে গেছেন।

বিষণ্নতা আর ক্লান্তি তাকে কখনো স্পর্শ করেনি, তাই আবার জাতীয় দলে জায়গা করে নেন। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশকে এনে দেন অসংখ্য শিরোপা। বিশ্ব ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখা যাবে আমেরিকার সাথে যুদ্ধের কারণে ভিয়েতনাম অর্থনৈতিকভাবে খুবই হতাশ হলেও সময়কে কাজে লাগিয়ে এবং নিয়ম-নীতি নির্ধারণ করেই সে দেশটি তৈরি হয়েছিল। পোশাক খাতে তারা বিশ্ববাজারে নিজেদের সেরা অবস্থানে রেখেছে এবং একই সঙ্গে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হয়েছে। জাপান এশিয়া মহাদেশের একটি উন্নত দেশ যেটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে বিপুল ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছিল। সময় এবং কঠোর পরিশ্রমের মূল্যের কারণে জাপানিরা আজ একটি উন্নত জীবন উপভোগ করে। আলেকজান্ডার, আব্রাহাম লিংকন অতি সাধারণ জীবন থেকে নেতা হয়ে ওঠেন। এভাবে প্রতিটি মানুষ তার সময়কে সঠিকভাবে কাজে লাগিয়ে জীবনে সফল হতে পারে। মানুষের মধ্যে প্রতিভা বিকাশের জন্য সময়কে বিবেচনায় নিতে হবে। এই সময়ানুবর্তিতার কারণেই বুদ্ধিজীবীরা বিখ্যাত হয়েছেন।

সময়কে কাজে লাগানোর উপায়: প্রত্যেক মানুষ সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নানা কাজে ব্যস্ত থাকে তাই সারাজীবন কাজেই থাকতে হয়। প্রতিটি কাজ সফলভাবে সম্পন্ন করতে আমাদের কাজ অনুযায়ী সময় ভাগ করতে হবে। সকালে কোন কাজটি করতে হবে এবং কোন কাজটি বিকেলে বা সন্ধ্যায় করতে হবে তা নির্ভর করবে কী করতে হবে বা কী ধরনের কাজ করতে হবে। একজন শিক্ষার্থীর প্রধান কাজ হল পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধুলা করা এবং ফিট থাকার জন্য এবং মাঝে মাঝে পারিবারিক কাজে সাহায্য করা।

একজন ছাত্রের উচিত তার সমষ্টিগত কাজকে সময় অনুযায়ী ভাগ করা যাতে তার পড়ালেখা যেমন ভালো হয় তেমনি সব আনুষঙ্গিক বিষয়গুলোও ভালোভাবে পরিচালিত হয়। একটানা কোনো কাজই আনন্দদায়ক হয় না বা কাজের প্রতি সমান আগ্রহ থাকে না, তাই কাজের বিরতিতে বিশ্রাম নিতে হবে। একবার সময় চলে গেলে তা পুনরুদ্ধার করা যায় না, তাই সময় নিয়ে কাজ করতে হবে। একটু স্মার্ট চিন্তা করলেই সময়ের সঠিক ব্যবহার সম্ভব। কাজের পরিধি অনুযায়ী সময় ভাগ করতে হবে তাহলে সব কাজ সময়মতো শেষ হবে। জীবনে প্রতিষ্ঠিত হতে সময়কে কাজে লাগানোর বিকল্প নেই।

বাঙালির সময়জ্ঞান: বাঙালি সমাজে একটা কথা প্রচলিত আছে যে- ‘আঠারো মাসে এক বছর’ বাঙালি জীবনে প্রভাব ফেলে। আমরা সময়মতো কোনো কাজ করি না এবং সময়মতো কাজ না করার মানসিকতা রয়েছে। কোথাও একটি প্রোগ্রাম কখনই নির্ধারিত সময়ে শুরু হয় না এবং আমরা এটাও ধরে নিই যে প্রোগ্রামটি নির্ধারিত সময়ের কমপক্ষে 1 বা 2 ঘন্টা পরে শুরু হবে। আমাদের জীবনে এই সময়ের প্রতি উদাসীনতার অন্যতম কারণ প্রাচীনকাল থেকে গ্রামভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থা। গ্রামে ক্ষেতে ফসল হলে কৃষকের আর দুশ্চিন্তা থাকে না, অলসতা কাজ করে। জীবনের এই দীর্ঘস্থায়ী ছন্দ থেকে বেরিয়ে আসতে ব্রিটিশদের আগমন পর্যন্ত আমাদের অপেক্ষা করতে হয়েছিল।

আমাদের সমাজে পাশ্চাত্য জ্ঞান-বিজ্ঞানের ছোঁয়া লাগতে শুরু করার পর থেকেই বাঙালি জীবন গতি পেতে শুরু করে। আমরা পিছিয়ে যাচ্ছি যেখানে পশ্চিমারা সময়কে হাতের মুঠোয় নিয়ে ধারাবাহিক সাফল্য অর্জন করছে। তবে আধুনিক যুগে আধুনিক জ্ঞানের সংস্পর্শে এসে বাঙালির জীবন পরিবর্তিত হলেও পশ্চিমের মতো তা এখনও পরিপূর্ণতা অর্জন করতে পারেনি। বাঙালীদের আরও সময় সচেতন হতে হবে কিন্তু আমরা অলসতার জন্য অভিযুক্ত থাকব বহুদিন।

সময়ানুবর্তিতার বাধাসমূহ: ‘সময়ানুবর্তিতার সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা বা প্রতিবন্ধকতা লুকিয়ে আছে ‘অলস-বুদ্ধিহীন মানুষ যারা কিছুই করতে পারে না’ কবিতার এই স্তবকের মধ্যে। অলসতা সময়ানুবর্তিতার জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর। সেই কাজ যখন করার কথা তখনই করা উচিত। যদি কখনো আমাদের মনে অলসতা তৈরি হয় তাহলে সচেতনভাবে অলসতা পরিহার করে সময় অনুযায়ী কাজ সম্পন্ন করতে হবে।

সময়ানুবর্তিতার আরেকটি বাধা হল অলস বন্ধু বাছাই করা। আপনার বন্ধু যদি সময়কে সঠিকভাবে অনুসরণ করে তাহলে আপনি সময়কে অনুসরণ করার প্রবণতা গড়ে তুলবেন কিন্তু আপনার বন্ধু যদি অলস হয় তাহলে সেই অলসতা আপনাকে প্রভাবিত করবে। তাই সময় অনুযায়ী বন্ধু নির্বাচন করতে হবে। সর্বোপরি ইচ্ছাশক্তি থাকলে সময়কে সঠিকভাবে ব্যবহার করা সম্ভব।

সময় মূল্যায়ন ও জীবনে সাফল্য লাভ: ‘সময়ের এক ফোঁটা সময়ের দশ ফোঁটা’ কথাটি সময়মত কাজ করার প্রয়োজনীয়তা বোঝায়। সে কখনো কারো জন্য অপেক্ষা করে না। জীবনে সফলতা পেতে হলে আমাদেরও সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য সঠিকভাবে পালন করতে হবে। কাজ ব্যক্তি ভেদে ভিন্ন হয়। আপনার কাজ সঠিকভাবে করতে পারলে জীবনে সফলতা পাওয়া সম্ভব হবে। তাই বলা যায় জীবনে প্রতিষ্ঠিত হওয়া সম্পূর্ণ নির্ভর করে সময়ের মূল্যায়নের ওপর।

উপসংহার: জীবন সময়ের সাথে সম্পর্কিত এবং সাফল্য সময়ের সাথে সম্পর্কিত। একটি ছাড়া অন্যটি অর্জন করা যায় না। ব্যক্তিজীবনের পাশাপাশি সময়ানুবর্তিতা চর্চা সর্বদা সমাজ জীবনে কল্যাণ বয়ে আনে। একজন মানুষ সফল হবে যদি সে জীবনকে উপভোগ করার পাশাপাশি সময়কে মূল্য দিতে পারে। সময়কে অবহেলা করে আমরা কখনই উল্লেখযোগ্য কিছু অর্জন করতে পারি না। সময়ের মূল্যকে মানুষের উন্নতির চাবিকাঠি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তাই একটা ইংরেজি প্রবাদ আমাদের সবসময় মনে রাখা উচিত-  Time and tide wait for none.

সময়ের মূল্য রচনা pdf

সময়ের মূল্য রচনা pdf – আমরা সময়ের মূল্য রচনার pdf দিয়েছে, যেন সকল শিক্ষার্থীরা নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী পড়তে পারে। সময়ের মূল্য রচনা pdf ফাইল দেয়ার মূল উদ্দেশ্য হলো, আমাদের সাইটে বিভিন্ন শ্রেণির শিক্ষার্থীর প্রতি নিয়ত ভিজিট করে এজন্য সময়ের মূল্য রচনা pdf দিয়েছে। এছাড়াও অনেকে আছে যারা সময়ের মূল্য রচনা pdf ফাইল ডাউনলোড করে প্রিন্ট করতে চাই।

সময়ের মূল্য রচনা pdf NamePDF Link
সময়ের মূল্য রচনা pdfClick Here
সময়ের মূল্য রচনা pdfClick Here
সময়ের মূল্য রচনা pdfClick Here
ছাত্র জীবনে সময়ের মূল্য রচনা pdfClick Here
সময়ের মূল্য রচনা pdfClick Here
সময়ের মূল্য রচনা pdfClick Here
সময়ের মূল্য রচনা pdfClick Here

 

আরো জানুনঃ

সময়ের মূল্য রচনা নিয়ে আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে নিচে, কমেন্ট করুন। প্রিয় শিক্ষার্থীরা তোমার যদি আরও রচনা লাগে তাহলে নিচে কমেন্ট করো। আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করো নতুন নতুন আপডেটের জন্য ধন্যবাদ।

মন্তব্য করুন

This content is protected! By banglanewsbdhub