শীতের সকাল অনুচ্ছেদ – ২য়,৩য়, ৪র্থ, ৫ম, ৬ষ্ট, ৭ম, ৮ম, ৯ম, ১০ম

Spread the love

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ- বাংলাদেশে ছয়টি ঋতু রয়েছে। শীত তার মধ্যে একটি। শীতের সকালকে শীতের সকাল বলা হয়। একটি শীতের সকাল খুব কুয়াশাচ্ছন্ন এবং ঠান্ডা। শীতকালে ঘাস ও গাছে রাতে শিশির বিন্দু। ঘন কুয়াশায় ঢেকে গেছে সবকিছু। কখনও কখনও কুয়াশা এত ঘন হয় যে সূর্যের রশ্মি এতে প্রবেশ করতে পারে না। দূর থেকে সবকিছু ঝাপসা লাগছে। পাখির কিচিরমিচির শোনা যায় না। গরুসহ অন্যান্য প্রাণী বের হতে পারছে না। শীতকালে রাত দীর্ঘ এবং দিন ছোট হয়। মানুষ দেরিতে বিছানা থেকে উঠছে। তারপর নানাভাবে শীতের সকাল উপভোগ করেন তারা। তারা গরম কাপড় পরে, খড় বা পাতা সংগ্রহ করে এবং নিজেদের গরম করার জন্য আগুন তৈরি করে। শিশু ও বৃদ্ধরা রোদে ধুঁকছে। এ ছাড়া বিভিন্ন ধরনের সুস্বাদু পিঠা, খেজুরের রস, পায়েস, রুটিসহ নানা পদ খেয়ে শীতের সকাল উপভোগ করেন মানুষ। উল্লেখ্য, গরিবরা শীতে অনেক কষ্ট পায় আর ধনীরা শীত উপভোগ করে। সব মিলিয়ে, শীতের কিছু ত্রুটি থাকা সত্ত্বেও বেশিরভাগ মানুষের জন্য এটি একটি আনন্দদায়ক সকাল।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ
শীতের সকাল অনুচ্ছেদ

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ 

বাংলাদেশে ছয়টি ঋতু রয়েছে। তার মধ্যে শীত অন্যতম। শীতের সকালকে বলা হয় শীতের সকাল। একটি শীতের সকাল খুব কুয়াশাচ্ছন্ন এবং ঠান্ডা। শীতকালে ঘাস ও গাছে রাতে শিশির বিন্দু। ঘন কুয়াশায় ঢেকে গেছে সবকিছু। কখনও কখনও কুয়াশা এত ঘন হয় যে সূর্যের রশ্মি তা দিয়ে যেতে পারে না। একটু দূর থেকে মনে হচ্ছে সবকিছুই ঝাপসা। পাখির কিচিরমিচির শোনা যায় না। গরুসহ অন্যান্য প্রাণী বের হতে পারে না। শীতকালে রাত দীর্ঘ এবং দিন ছোট হয়। মানুষ দেরি করে বিছানা থেকে উঠছে। তারপর তারা নানাভাবে শীতের সকাল উপভোগ করে। তারা গরম কাপড় পরে, খড় বা পাতা সংগ্রহ করে এবং নিজেদের গরম করার জন্য আগুন তৈরি করে। শিশু ও বৃদ্ধরা রোদে সেঁধছে। এছাড়া বিভিন্ন রকমের সুস্বাদু পিঠা, খেজুরের রস, পায়েস, রুটিসহ নানা পদ খেয়ে শীতের সকালকে উপভোগ করেন মানুষ। উল্লেখ্য যে, দরিদ্ররা শীতে অনেক কষ্ট পায় এবং ধনীরা শীতকে অনেক আনন্দের সাথে উপভোগ করে। সূক্ষ্মভাবে, শীতকালে কিছু ত্রুটি থাকা সত্ত্বেও বেশিরভাগ মানুষের কাছে এটি একটি মনোরম সকাল।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ 

প্রকৃতির অবারিত সৌন্দর্যভেলায় আনন্দ উপাদানের কোনো কমতি নেই। ঘর থেকে দু পা ফেলে বাইরে দৃষ্টি মেললেই চোখে পড়ে নিসর্গের অমৃত লহরী। তার মধ্যে শীতের সকাল অন্যতম। বাংলাদেশের ঋতুচক্রে শীত আসে রূপ ও রসের ডালি সাজিয়ে। শীতের মোহনীয় নৈসর্গিক রূপ ধরা পড়ে শিশির স্নাত সকাল বেলায়। কুয়াশার চাদরে ঢেকে থাকে চারপাশ। সূর্যিমামা মুখ লুকায় লজ্জায়, অভিমানে। ধীরে ধীরে মুখ বাড়িয়ে হাসে সোনালি সূর্য। ঘাসের ডগায় পড়ে থাকা শিশির বিন্দুতে রোদের আলো পড়ে মুক্তোর মতো চকচক করে। শীতের সকালে গ্রামে শুরু হয় পিঠা উৎসব। হিম শীতল ঠান্ডায় ভাপা, দুধপুলি, দুধচিতই, পাটিসাপটা প্রভৃতি পিঠা রসনায় আনে তৃপ্তির আস্বাদ। চাদর মুড়ি দিয়ে রোদে বসে পিঠা খাওয়ার সে কী তৃপ্তি! অন্যদিকে গৃহহীন, বস্ত্রহীন মানুষ খোঁজে একটু আশ্রয়, প্রশান্তির উষ্ণ চাদর। দরিদ্র ছেলেমেয়েরা উৎসুক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে রোদের আদরের ভরসায়। রাত্রি জেগে সকালের প্রত্যাশায়, সকাল জাগে সূর্যের স্পর্শ কামনায়। তবুও সবকিছু মিলিয়ে শীতের সকাল একটি প্রিয় মুহূর্ত, অপূর্ব নৈসর্গিক উপাদানে ভাস্মর।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ ক্লাস ২

প্রকৃতির অবারিত সৌন্দর্যে মজার জিনিসের কমতি নেই। ঘরের বাইরে তাকালেই কসমস অমৃত চোখে পড়ে। শীতের সকাল তার মধ্যে অন্যতম। বাংলাদেশি ঋতুর সঙ্গে শীত আসে রূপ ও রসের খসড়া নিয়ে। শীতের আকর্ষণীয় প্রকৃতি সকালের শিশিরে ধরা দেয়। কুয়াশার চাদরে ঢেকে গেছে আশপাশের এলাকা। সূর্যিমামা লজ্জা আর অভিমানে মুখ লুকিয়ে রাখেন। সোনালী রোদ একটু মুখ তুলে হাসল। শিশিরবিন্দুতে মুক্তোর মতো সূর্য জ্বলে। এলাকায় শীতের সকালে শুরু হয় কেক উৎসব। ঠাণ্ডায় ভাপা, দুধপুলি, দুধচিতাই, পাটিসাপ্তা ইত্যাদি কেক তৃপ্তির স্বাদ নিয়ে আসে। রোদে বসে চাদর মুড়িয়ে পিঠা খাওয়ার কী তৃপ্তি! অন্যদিকে, গৃহহীন, গৃহহীন মানুষ যারা আশ্রয় চায়, শান্তির উষ্ণ কম্বল। দরিদ্র শিশুরা সূর্যাস্তের দিকে তাকিয়ে আছে। রাত জেগে সকালের প্রত্যাশায়, সকালে ঘুম থেকে উঠে সূর্য ছোঁয়ার ইচ্ছে। তবুও শীতের সকালে এটি একটি প্রিয় সময়, বিস্ময়কর প্রাকৃতিক জগতে পোড়া।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ ৩য়

একটি শীতের সকাল হল শীতের ঋতুতে একটি ঠান্ডা এবং কুয়াশাচ্ছন্ন সকাল বিভিন্ন দেশে বরফের সকালও বলা বটে। শীতের সকাল সাধারণত খুব ঠান্ডা হয়। শীতের সকালে গ্রামের জীবন সত্যিই আকর্ষণীয়। এই ঋতুতে সারা রাত ও সকালে শিশির ফোঁটা পড়ে। কখনও কখনও, আপনি দীর্ঘ সময়ের জন্য সূর্য দেখতে সক্ষম হবে না। কৃষকরা ভোরবেলা তাদের লাঙ্গল ও গরু নিয়ে মাঠে যেতেন। যাদের কাজ করতে হয় তাদের জন্য শীতের সকাল সত্যিই কঠিন। বয়স্ক মানুষ এবং শিশুরা খড় সংগ্রহ করে এবং নিজেদের গরম করার জন্য আগুন তৈরি করে। গরম করার আরেকটি উপায় হল রোদে শুয়ে থাকা। এই সময়ে খাবারটি দুর্দান্ত। প্রতিটি বাড়িতে তারা বিভিন্ন ধরনের পিঠা, মুড়ি, খই, চিড়া তৈরি করে। শীতের সকালে খেজুরের রস পান করা ভালো। এই ঋতুতে খেজুরের রস সত্যিই একটি আকর্ষণীয় পানীয়। ধনী লোকেরা তাদের সকাল ভাল খাবার এবং ভাল পোশাক দিয়ে উপভোগ করে। কিন্তু দরিদ্র মানুষ এবং বিশেষ করে গৃহহীন মানুষ সে সময় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ চতুর্থ

বাংলাদেশে শীতকাল সৌন্দর্য ও অনন্যতার সময়। এই শীতের সকাল মিষ্টি। শীতকাল তাই খুব জনপ্রিয়। শীত প্রকৃতির বাতাসের সাথে শূন্যতা নিয়ে আসে। টাইটার পর্ণমোচী গাছ এবং অনুর্বর মাঠের চিরহরিৎ রঙ যেন উধাও হয়ে গেছে। শীতের সকালে এই পরিবেশ বিষণ্ণ হয়, যখন কুয়াশার চাদর থাকে। সমগ্র দিগন্ত বিস্তৃত হয় শুধু অন্ধকারে। যারা কাজ করেন তারা প্রায়শই অলস হন এবং তাদের কাজের তাড়াহুড়ো সত্ত্বেও বিছানায় খুব বেশি সময় ব্যয় করেন। স্বাভাবিক তাপমাত্রা পুনরুদ্ধার করার জন্য, গ্রামে আগুন জ্বালায় এবং আগুনে শুকনো পাতা যোগ করে। শীতের সকাল শহর ও গ্রামাঞ্চলের মধ্যে খুব আলাদা হতে পারে। শীতের সময় গ্রামের মানুষেরা খরখুটো দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে রাতে আনন্দ করে, রাত যাপন করে। শীতে খেজুরের গুড় খাওয়ার ঐতিহ্য গ্রামবাংলার মানুষ এখনো ভালোবাসে। পৌষ ও মাঘের শীতের সকালগুলো খুবই উপভোগ্য। শীতের সকাল খুব বেশিদিন স্থায়ী হয় না। সূর্য এক পর্যায়ে উদিত হয় এবং ধীরে ধীরে তাপ ছড়ায়। শীতের প্রভাব কাটিয়ে মানুষ পায়ে হেঁটে বের হতে পারে। শুরু হয় কর্মজীবনের ব্যস্ততা।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ ৫ম শ্রেণি

শীতের সকাল মানে কুয়াশার চাদরে মোড়া রহস্যে ঘেরা প্রকৃতি। অনেকদিন থেকেই একটা অদম্য ইচ্ছে বুকের মাঝে মাথা কুটে মরছিল। অবশেষে সত্যি হল গত ডিসেম্বরে মামার বাড়ি গিয়ে | আমার মামার বাড়ি গ্রামে । এখানে নাকি সূর্য আবির ছড়িয়ে অস্ত যায়। মামাদের আছে খেজুর বাগান। আগের দিন রাতে মামা আমাকে বলে রেখেছিলেন তাড়াতাড়ি উঠতে। ভোর সাড়ে পাঁচটায় তিনি আমাকে ডাকলেন। কৌতূহল প্রবল ছিল বলে শীত কোনো বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি । মেঠো পথ ধরে কুয়াশার চাদর সরিয়ে এগিয়ে চলেছি। ঠান্ডা বাতাস হুল ফুটিয়ে দিয়ে যাচ্ছে মাঝে মাঝে | পাখিরা অনেক আগেই জেগে উঠেছে। পাতার ভেতর থেকেই কিচিরমিচির শুরু করে দিয়েছে। সূর্যের ক্ষীণ আলো মিশে যাচ্ছে কুয়াশার শরীরে। গুটিগুটি এলাম খেজুর বাগানে। কী মজা! কী মজা! খেজুর রস জ্বাল হচ্ছে। তার সুগন্ধে চারিদিক ম-ম করছে। দেখলাম কীভাবে নলেন গুড় তৈরি হয় | মামা গ্লাসে করে রস এনে দিলেন। যেন বরফগলা জল | কী ঠান্ডা । খেতে গিয়ে শরীর শিউরে উঠল | কিন্তু যেন অমৃত পান করলাম | ততক্ষণে সূর্যের দাপট একটু বেড়েছে | দূরের সব কিছু স্পষ্ট হয়ে উঠেছে | সরষের খেতে সকালের নরম রোদ পড়েছে | মনে হচ্ছে কে যেন সোনার গুঁড়ো ছড়িয়ে দিয়েছে। আমি মনের খাতায় এঁকে নিলাম একটি শীতের সকালের ছবি।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ ৬ ষষ্ঠ শ্রেণী

ঋতুবৈচিত্র্যের দেশ বাংলাদেশের ছয় ঋতুর মধ্যে হেমন্তের পর আর বসন্তের আগে শীতের অবস্থান। গাছের ঝরা পাতায় নূপুর বাজিয়ে তার আগমন এবং বসন্তের নতুন পাতা জাগিয়ে তার অন্তর্ধান। তখন শীতের সকাল সম্পূর্ণভাবে প্রকৃতির এক ভিন্ন রূপ ধারণ করে, গাম্ভীর্যময় এক মহিমা নিয়ে। শীতের সকাল কুয়াশার আস্তরণ আর কাদা ধূলিহীন পরিবেশকে সঙ্গী করে মনোরম হয়ে ওঠে। যখন এই কুয়াশার আস্তরণ ভেদ করে চতুর্দিকে রূপালি আলো ছড়িয়ে পড়ে তখন বাড়িঘর, গাছপালা, মাঠ কানন, প্রান্তর প্রকৃতিপুঞ্জ ঝলমল করে ওঠে। অন্যান্য ঋতুর বেলায় যে উদ্দামতা শীতের সকালে তা অনুপস্থিত। তবে নানা ধরনের পিঠা খাওয়ার ধুম পড়ে শীতের সকালে। এই আনন্দ চারপাশে উৎসবের সমারোহ তৈরি করলেও শীতের সকালে মানুষ লেপ-কাঁথার নিচেই কাটাতে ভালোবাসে। শীতের সকাল আলস্য আর উৎসবের আমেজে উপভোগ্য হলেও দরিদ্রের জন্য তা কষ্টের। সূর্যকিরণের তীব্রতা বাড়লে দূর হয় শীতের সকালের আমেজ। তবু শীতের সকাল প্রকৃতিকে নিরাভরণ করে এক পবিত্র সৌন্দর্যের সৃষ্টি করে যা ছড়িয়ে থাকে সারাবেলা।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ ৭ম শ্রেণি

শীতের সকাল মানেই কুয়াশাচ্ছন্ন প্রকৃতি। সুন্দর এই প্রকৃতি দেখা যায় সকালেই । অনেকক্ষণ ধরে আমার একটা অদম্য ইচ্ছা বুকের মধ্যে মরে যাচ্ছিল। অবশেষে গত ডিসেম্বরে তা সত্যি হলো যখন আমি আমার মামার বাড়িতে গেলাম। এখানে সূর্য ওঠে এবং অস্ত যায়। মামার খেজুরের বাগান আছে। আগের রাতে মামা আমাকে তাড়াতাড়ি উঠতে বললেন। ভোর সাড়ে ৫টায় আমাকে ফোন করেন। কৌতূহল বাড়তে থাকায় ঠান্ডা কোনো বাধা ছিল না। কুয়াশার পথ ধরে এগোচ্ছে। কখনও কখনও পাখিদের ঘুম থেকে ওঠার অনেক আগেই ঠান্ডা বাতাস বয়ে যায়। পাতা উঠতে শুরু করেছে। সূর্যের ক্ষীণ আলো কুয়াশার শরীরে মিশে যাচ্ছে। একটু একটু করে খেজুর বাগানে এলাম। কি মজা! কি মজা! খেজুরের রস আগুনে জ্বাল দেওয়া হয়। এর সুগন্ধে চারিদিকে গুনগুন করছে। দেখলাম কিভাবে নলেন গুড় তৈরি হয়, কাকা এক গ্লাসে খেজুরের রস নিয়ে এলেন। বরফের জলের মত ঠান্ডা আমার শরীর কেঁপে উঠল যতই আমি খেয়েছি কিন্তু মনে হল আমি যেন অমৃত পান করেছি, সূর্যের শক্তি একটু বেড়েছে, দূরের সবকিছু পরিষ্কার হয়ে গেছে, সকালের নরম সূর্য সরিষার উপর পড়েছে, মনে হচ্ছে কেউ সোনা ছড়িয়ে দিয়েছে। শীতের সকালের ছবি এঁকেছি ধূলিময় মনের চোখে।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ ৮ম শ্রেণি

বাংলাদেশে শীতকাল সৌন্দর্য ও অনন্যতার একটি মুহূর্ত। শীতের এই সকালগুলো হয় মিষ্টি ও মনোরম। শীতকাল খুব জনপ্রিয়। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে বা আমাদের দেশে জলবায়ুর এই পরিবর্তনের কারণে শীতের সকাল খুব কমই দেখা যায়, বিশেষ করে শহরাঞ্চলে। শীত প্রকৃতির বাতাসের সাথে শূন্যতা নিয়ে আসে। ঘন পর্ণমোচী গাছ এবং অনুর্বর মাঠের চিরহরিৎ রঙ যেন হারিয়ে গেছে। শীতের সকালে পরিবেশ বিষণ্ণ হয়, যখন কুয়াশার চাদর থাকে। সমগ্র দিগন্ত শুধু অন্ধকারে প্রসারিত। যারা কাজ করেন তারা প্রায়ই অলস এবং তাদের ব্যস্ত সময়সূচী সত্ত্বেও বিছানায় খুব বেশি সময় কাটান। স্বাভাবিক তাপমাত্রা পুনরুদ্ধারের জন্য, আগুন জ্বালিয়ে তাপ গ্রহন করা হয় । শীতের সকাল শহর এবং গ্রামাঞ্চলের মধ্যে খুব আলাদা হতে পারে। শীতকালে গ্রামের মানুষ লাঠি দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে রাত উপভোগ করে। গ্রামবাংলার মানুষ এখনো শীতকালে খেজুর গুড় খাওয়ার ঐতিহ্যকে ভালোবাসে। পৌষ ও মাঘের শীতের সকালগুলো খুবই উপভোগ্য। শীতের সকাল বেশিক্ষণ স্থায়ী হয় না। সূর্য এক পর্যায়ে উদিত হয় এবং ধীরে ধীরে তাপ বিকিরণ করে। শীতের প্রভাব কাটিয়ে মানুষ পায়ে হেঁটে বের হতে পারে। শুরু হয় ব্যস্ত জীবন।

 

একটি শীতের সকাল হল শীতের ঋতুতে একটি ঠান্ডা এবং কুয়াশাচ্ছন্ন সকাল বিভিন্ন দেশে বরফের সকালও বলা বটে। শীতের সকাল সাধারণত খুব ঠান্ডা হয়। শীতের সকালে গ্রামের জীবন সত্যিই আকর্ষণীয়। এই ঋতুতে সারা রাত ও সকালে শিশির ফোঁটা পড়ে। কখনও কখনও, আপনি দীর্ঘ সময়ের জন্য সূর্য দেখতে সক্ষম হবে না। কৃষকরা ভোরবেলা তাদের লাঙ্গল ও গরু নিয়ে মাঠে যেতেন। যাদের কাজ করতে হয় তাদের জন্য শীতের সকাল সত্যিই কঠিন। বয়স্ক মানুষ এবং শিশুরা খড় সংগ্রহ করে এবং নিজেদের গরম করার জন্য আগুন তৈরি করে। গরম করার আরেকটি উপায় হল রোদে শুয়ে থাকা। এই সময়ে খাবারটি দুর্দান্ত। প্রতিটি বাড়িতে তারা বিভিন্ন ধরনের পিঠা, মুড়ি, খই, চিড়া তৈরি করে। শীতের সকালে খেজুরের রস পান করা ভালো। এই ঋতুতে খেজুরের রস সত্যিই একটি আকর্ষণীয় পানীয়। ধনী লোকেরা তাদের সকাল ভাল খাবার এবং ভাল পোশাক দিয়ে উপভোগ করে। কিন্তু দরিদ্র মানুষ এবং বিশেষ করে গৃহহীন মানুষ সে সময় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ ৯ম শ্রেণি

একটি শীতের সকালের নিজস্ব ব্যতিক্রমধর্মী প্রাকৃতিক আবহের পাশাপাশি মানবজীবনে এর প্রভাব রয়েছে। শীতের সকাল কুয়াশাচ্ছন্ন ও ঠাণ্ডা। সর্বত্রই ঘন কুয়াশা। কখনও কখনও কুয়াশা এত ঘন যে সূর্যরশ্মি এর ভেতরে প্রবেশ করতে পারে না। সবকিছু অস্পষ্ট দেখায়। গ্রামাঞ্চলে শীতের সকালের দৃশ্যাবলি সত্যিই মনোমুগ্ধকর। ঘাস ও পাতার ওপরে শিশিরবিন্দু সূর্যরশ্মিতে মুক্তোর মতো ঝলমল করে। সাধারণত মানুষজন সকালবেলা দেরি করে ঘুম থেকে ওঠে। তারা শীতে কাঁপতে থাকে। তারা গরম পোশাক পরিধান করে। বয়স্ক মানুষ এবং বাচ্চাদেরকে সকালে রোদ পোহাতে দেখা যায়। লোকজন সকালের নাস্তায় সাধারণত খেজুরের রস এবং বিভিন্ন ধরনের পিঠা খেয়ে থাকে। গবাদি পশু তাদের গোয়ালেই থাকে। যাহোক, শহরগুলোতে খুব ঠাণ্ডা না পড়ায় শীতের সকাল জীবনে তেমন পরিবর্তন আনে না। মানুষজন স্বাভাবিক সময়ে ঘুম থেকে ওঠে রঙিন উষ্ণ পোশাক পরিধান করে তাদের কর্মস্থলে যায়। শিক্ষার্থীদেরকে সবচেয়ে বর্ণিল পোশাকগুলোতে দেখা যায়। প্রকৃতি এখানেও নিষ্প্রাণ এবং বিষণ্ণ। গ্রাম ও শহর উভয় অঞ্চলেই দরিদ্র লোকেরা সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী হয়। তীব্র ঠাণ্ডা হতে নিজেদের রক্ষা করার জন্য তাদের কাছে পর্যাপ্ত গরম পোশাক নেই। পথশিশুরা খড় ও কাগজ আগুনে পুড়িয়ে নিজেদের উষ্ণ রাখার ব্যবস্থা করে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়ে যা জনগণের ব্যাপক দুর্ভোগ ঘটায়। যাহোক, শীতের সকালের দৃশ্যাবলি খুবই ক্ষণস্থায়ী। দিন শুরু হওয়ার সাথে সাথে এটি অদৃশ্য হতে থাকে। শীতের সকাল নিয়ে আমার ব্যক্তিগত মতামত হলো, এটি গরিবের জন্য অভিশাপ কিন্তু ধনীর জন্য আশীর্বাদ।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ ১০ম শ্রেণি

বাংলাদেশে শীতকাল সৌন্দর্য ও অনন্যতার একটি মুহূর্ত। শীতের এই সকালগুলো হয় মিষ্টি ও মনোরম। শীতকাল খুব জনপ্রিয়। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে বা আমাদের দেশে জলবায়ুর এই পরিবর্তনের কারণে শীতের সকাল খুব কমই দেখা যায়, বিশেষ করে শহরাঞ্চলে। শীত প্রকৃতির বাতাসের সাথে শূন্যতা নিয়ে আসে। ঘন পর্ণমোচী গাছ এবং অনুর্বর মাঠের চিরহরিৎ রঙ যেন হারিয়ে গেছে। শীতের সকালে পরিবেশ বিষণ্ণ হয়, যখন কুয়াশার চাদর থাকে। সমগ্র দিগন্ত শুধু অন্ধকারে প্রসারিত। যারা কাজ করেন তারা প্রায়ই অলস এবং তাদের ব্যস্ত সময়সূচী সত্ত্বেও বিছানায় খুব বেশি সময় কাটান। স্বাভাবিক তাপমাত্রা পুনরুদ্ধারের জন্য, আগুন জ্বালিয়ে তাপ গ্রহন করা হয় । শীতের সকাল শহর এবং গ্রামাঞ্চলের মধ্যে খুব আলাদা হতে পারে। শীতকালে গ্রামের মানুষ লাঠি দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে রাত উপভোগ করে। গ্রামবাংলার মানুষ এখনো শীতকালে খেজুর গুড় খাওয়ার ঐতিহ্যকে ভালোবাসে। পৌষ ও মাঘের শীতের সকালগুলো খুবই উপভোগ্য। শীতের সকাল বেশিক্ষণ স্থায়ী হয় না। সূর্য এক পর্যায়ে উদিত হয় এবং ধীরে ধীরে তাপ বিকিরণ করে। শীতের প্রভাব কাটিয়ে মানুষ পায়ে হেঁটে বের হতে পারে। শুরু হয় ব্যস্ত জীবন।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ একাদশ শ্রেণি

শীতের সকাল অন্যসব ঋতু থেকে আলাদা। কুয়াশার চাদরে মোড়া শীতের সকাল হাড় শীতল করা ঠাণ্ডা নিয়ে দেখা দেয়। এ সময় এক ফালি রোদ সকলের কাছে বহুল প্রতীক্ষিত হয়ে ওঠে। শীতের সকালে মানুষের মাঝে এক অজানা অলসতা ভর করে। লেপ মুড়ি দিয়ে ঘুমিয়ে থাকাতেই যেন তখন স্বর্গীয় সুখ অনুভ‚ত হয়। কুয়াশার অন্ধকারে সূর্যদেবতার দেখা পাওয়া ভার। তাই সকালের উপস্থিতি টের পাওয়াও কষ্টকর। কিন্তু জীবনের বাস্তবতা শীতকেও দূরে সরিয়ে দেয়। তাই আড়মোড়া ভেঙে উঠতেই হয় সকলকে। নিজেকে তৈরি করে নিতে হয় কাজে যাওয়ার উদ্দেশ্যে।

শীতের সকালে প্রকৃতি ও প্রাণীর মধ্যে এক ভিন্ন আমেজ লক্ষ করা যায়। মানুষ, জীবজন্তু, পাখ-পাখালি শীতের বেলায় সূর্যের প্রত্যাশায় প্রহর গুনতে থাকে। শীতের সকালের প্রকৃত আনন্দ গ্রামীণ জীবনেই খুঁজে পাওয়া যায়। বাংলার গ্রামগুলোতে শীতের সকাল বেশ মনোরম হয়। গ্রামের মাঠে মাঠে শীতের প্রভাব বেশ চোখে পড়ে। শীতের কুয়াশা ভেদ করে নিজ নিজ গৃহপালিত প্রাণীদের নিয়ে বের হয় গ্রামের কর্মঠ মানুষেরা। সূর্যের দেখা পাওয়া মাত্রই ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা রোদ পোহাতে শুরু করে। গ্রামের মানুষেরা খড়কুটো দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে শীতকালে উষ্ণতা খুঁজে ফিরে। শীতের সকালে গ্রামের সবচেয়ে আনন্দঘন মুহূর্ত হলো পিঠা-পুলি খাওয়ার মুহূর্ত।

গাছে গাছে খেজুরের রসের হাঁড়ি ঝুলিয়ে রাখতে দেখা যায়। এ রস দিয়ে নানা রকম পিঠা বানানো হয়। গ্রামীণ জীবনের আবেদন ইট-কাঠ-পাথরের শহুরে জীবনে পাওয়া যায় না। শহরে দেখা যায় বারান্দায় বসে রোদ পোহানোর দৃশ্য কিংবা গরম চায়ের পেয়ালা হাতে নিয়ে খবরের কাগজ পড়ার দৃশ্য। লেপ জড়ানো কর্মব্যস্ত মানুষ নির্দিষ্ট সময়ের পরেও আরও একটু ঘুমিয়ে নিতে চায়। কিন্তু জীবিকার টানে তকে আড়মোড়া ভেঙে জেগে উঠতেই হয়। সর্বোপরি সকলের কাছেই শীতের সকাল হয়ে ওঠে বৈচিত্র্যময়।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য

শীতকাল আমার প্রিয় ঋতু। আমি সকালে ঋতু পছন্দ. আমি দেরী করে ঘুম থেকে উঠতে পছন্দ করি। শীতকালে সূর্য দেরিতে ওঠে। শিশির বিন্দুতে সূর্যের রশ্মি পড়লে এক মনোমুগ্ধকর দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। শীতে অলস হয়ে যাই। কুয়াশা মনে হয় প্রকৃতি। সর্বত্র শীতল বাতাস। গাছ এবং ঘাস শীতকালে তাজা এবং নতুন দেখায়। জীবন সব জায়গায় শ্লথ বলে মনে হচ্ছে। অনেক সময় আকাশে সূর্য দেখা যায় না। শীতকালে মানুষ দেরিতে ঘুম থেকে ওঠে। সকালটা খুব ঠান্ডা কিন্তু উপভোগ্য। সকালে অতিরিক্ত ঠান্ডায় ঘর থেকে বের হচ্ছে না মানুষ। তবে শীতের সকালে আমার হাটতে বের হতে অনেক ভাল লাগে। শীতকালে গাছ আরও সবুজ হয়। নগরবাসী তাদের অফিসে দেরি করছে। তারা স্বস্তি বোধ করে। মানুষ কম্বলের নিচে নিজেদের বাঁচায়। গ্রামে মানুষ মিষ্টি পিঠা বানায়। ঐতিহ্যবাহী কেক খুব সুস্বাদু। মানুষ আগুনের পাশে বসতে ভালোবাসে। তারা একসাথে বসে উষ্ণতা অনুভব করে। তারা গরম অনুভব করতে ভালোবাসে। শীতের মৌসুমে মানুষ আরও কিছু খাবার তৈরি করে। শীতের সকালে মানুষ নানা উপাদেয় খাবার খেয়ে থাকে। শীতকালে খেজুরের রস একটি বিশেষ খাবার। গ্রামে মানুষ খড় জ্বালিয়ে আগুন দেয়। লোকেরা তাদের আত্মীয়দের বাড়িতে কেক সহ ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি বিশেষত খেজুরের রস নিয়ে যায়। সকাল আমাদের আনন্দ নিয়ে আসে। একটি শীতের সকাল সত্যি আরামদায়ক এবং লোকেরা এটি অনেক উপভোগ করে। শীতের সকাল সবার জন্য উপভোগ্য। আমি শীতের সকাল পছন্দ করি।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ – ১

প্রকৃতির অবারিত সৌন্দর্যভেলায় আনন্দ উপাদানের কোনো কমতি নেই। ঘর থেকে দু পা ফেলে বাইরে দৃষ্টি মেললেই চোখে পড়ে নিসর্গের অমৃত লহরী। তার মধ্যে শীতের সকাল অন্যতম। বাংলাদেশের ঋতুচক্রে শীত আসে রূপ ও রসের ডালি সাজিয়ে। শীতের মোহনীয় নৈসর্গিক রূপ ধরা পড়ে শিশির স্নাত সকাল বেলায়। কুয়াশার চাদরে ঢেকে থাকে চারপাশ। সূর্যিমামা মুখ লুকায় লজ্জায়, অভিমানে। ধীরে ধীরে মুখ বাড়িয়ে হাসে সোনালি সূর্য। ঘাসের ডগায় পড়ে থাকা শিশির বিন্দুতে রোদের আলো পড়ে মুক্তোর মতো চকচক করে। শীতের সকালে গ্রামে শুরু হয় পিঠা উৎসব। হিম শীতল ঠান্ডায় ভাপা, দুধপুলি, দুধচিতই, পাটিসাপটা প্রভৃতি পিঠা রসনায় আনে তৃপ্তির আস্বাদ। চাদর মুড়ি দিয়ে রোদে বসে পিঠা খাওয়ার সে কী তৃপ্তি! অন্যদিকে গৃহহীন, বস্ত্রহীন মানুষ খোঁজে একটু আশ্রয়, প্রশান্তির উষ্ণ চাদর। দরিদ্র ছেলেমেয়েরা উৎসুক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে রোদের আদরের ভরসায়। রাত্রি জেগে সকালের প্রত্যাশায়, সকাল জাগে সূর্যের স্পর্শ কামনায়। তবুও সবকিছু মিলিয়ে শীতের সকাল একটি প্রিয় মুহূর্ত, অপূর্ব নৈসর্গিক উপাদানে ভাস্মর।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ – ২

ঋতুবৈচিত্র্যের দেশ বাংলাদেশের ছয় ঋতুর মধ্যে হেমন্তের পর আর বসন্তের আগে শীতের অবস্থান। গাছের ঝরা পাতায় নূপুর বাজিয়ে তার আগমন এবং বসন্তের নতুন পাতা জাগিয়ে তার অন্তর্ধান। তখন শীতের সকাল সম্পূর্ণভাবে প্রকৃতির এক ভিন্ন রূপ ধারণ করে, গাম্ভীর্যময় এক মহিমা নিয়ে। শীতের সকাল কুয়াশার আস্তরণ আর কাদা ধূলিহীন পরিবেশকে সঙ্গী করে মনোরম হয়ে ওঠে। যখন এই কুয়াশার আস্তরণ ভেদ করে চতুর্দিকে রূপালি আলো ছড়িয়ে পড়ে তখন বাড়িঘর, গাছপালা, মাঠ কানন, প্রান্তর প্রকৃতিপুঞ্জ ঝলমল করে ওঠে। অন্যান্য ঋতুর বেলায় যে উদ্দামতা শীতের সকালে তা অনুপস্থিত। তবে নানা ধরনের পিঠা খাওয়ার ধুম পড়ে শীতের সকালে। এই আনন্দ চারপাশে উৎসবের সমারোহ তৈরি করলেও শীতের সকালে মানুষ লেপ-কাঁথার নিচেই কাটাতে ভালোবাসে। শীতের সকাল আলস্য আর উৎসবের আমেজে উপভোগ্য হলেও দরিদ্রের জন্য তা কষ্টের। সূর্যকিরণের তীব্রতা বাড়লে দূর হয় শীতের সকালের আমেজ। তবু শীতের সকাল প্রকৃতিকে নিরাভরণ করে এক পবিত্র সৌন্দর্যের সৃষ্টি করে যা ছড়িয়ে থাকে সারাবেলা।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ – ৩

একটি শীতের সকালের নিজস্ব ব্যতিক্রমধর্মী প্রাকৃতিক আবহের পাশাপাশি মানবজীবনে এর প্রভাব রয়েছে। শীতের সকাল কুয়াশাচ্ছন্ন ও ঠাণ্ডা। সর্বত্রই ঘন কুয়াশা। কখনও কখনও কুয়াশা এত ঘন যে সূর্যরশ্মি এর ভেতরে প্রবেশ করতে পারে না। সবকিছু অস্পষ্ট দেখায়। গ্রামাঞ্চলে শীতের সকালের দৃশ্যাবলি সত্যিই মনোমুগ্ধকর। ঘাস ও পাতার ওপরে শিশিরবিন্দু সূর্যরশ্মিতে মুক্তোর মতো ঝলমল করে।

সাধারণত মানুষজন সকালবেলা দেরি করে ঘুম থেকে ওঠে। তারা শীতে কাঁপতে থাকে। তারা গরম পোশাক পরিধান করে। বয়স্ক মানুষ এবং বাচ্চাদেরকে সকালে রোদ পোহাতে দেখা যায়। লোকজন সকালের নাস্তায় সাধারণত খেজুরের রস এবং বিভিন্ন ধরনের পিঠা খেয়ে থাকে। গবাদি পশু তাদের গোয়ালেই থাকে। যাহোক, শহরগুলোতে খুব ঠাণ্ডা না পড়ায় শীতের সকাল জীবনে তেমন পরিবর্তন আনে না। মানুষজন স্বাভাবিক সময়ে ঘুম থেকে ওঠে রঙিন উষ্ণ পোশাক পরিধান করে তাদের কর্মস্থলে যায়। শিক্ষার্থীদেরকে সবচেয়ে বর্ণিল পোশাকগুলোতে দেখা যায়।

প্রকৃতি এখানেও নিষ্প্রাণ এবং বিষণ্ণ। গ্রাম ও শহর উভয় অঞ্চলেই দরিদ্র লোকেরা সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী হয়। তীব্র ঠাণ্ডা হতে নিজেদের রক্ষা করার জন্য তাদের কাছে পর্যাপ্ত গরম পোশাক নেই। পথশিশুরা খড় ও কাগজ আগুনে পুড়িয়ে নিজেদের উষ্ণ রাখার ব্যবস্থা করে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়ে যা জনগণের ব্যাপক দুর্ভোগ ঘটায়। যাহোক, শীতের সকালের দৃশ্যাবলি খুবই ক্ষণস্থায়ী। দিন শুরু হওয়ার সাথে সাথে এটি অদৃশ্য হতে থাকে। শীতের সকাল নিয়ে আমার ব্যক্তিগত মতামত হলো, এটি গরিবের জন্য অভিশাপ কিন্তু ধনীর জন্য আশীর্বাদ।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ – ৪

 
ঋতুবৈচিত্র্যে ঘেরা আমাদের এ দেশ। ষড়ঋতুর এদেশ বারবার তার রং পালটায়। কুয়াশার চাদর মুড়ি দিয়ে আসে শীত। আর শীতের সকাল মানুষের মনে এক বিচিত্র অনুভূতির সঞ্চার করে। সেই পাতাঝরা কুয়াশা মােড়া সকালের দিকে তাকিয়ে মন কেমন যেন বিষন্ন হয়ে উঠে। তখন শীতকে মনে হয় উদাসী এক বাউল।
শীতের সকাল কুয়াশায় ঢাকা থাকে। সমস্ত পৃথিবী যেন শিশির সিক্ত। ঘাসের ডগায় শিশির বিন্দু যেন এক একটি মুক্তার মতাে। বাইরে কনকনে শীত। বের হবার কোনাে উপায় নেই। সূর্যের মুখ দেখার জন্য অধীর অপেক্ষায় থাকে সবাই। সব মিলিয়ে শীতের সকাল অনুপম সৌন্দর্য আর মােহময়তার বহিঃপ্রকাশ। শীতের কনকনে আবহাওয়া সবার মনেই পানি ভীতির সৃষ্টি করে। গ্রামগুলাে প্রকৃতির শাশ্বত চিত্র বহন করে।
শীতের সকালে গ্রামের গরিব মানুষেরা গরম কাপড় পায় না। একটু উত্তাপের প্রত্যাশায় সবাই উন্মুখ থাকে। আঙিনায় কিংবা খােলা জায়গায় খড় জ্বালিয়ে একটু আগুনের সান্নিধ্যে আসার প্রচেষ্টায় মত্ত থাকে তারা। সূর্যের আলাের প্রত্যাশায় চোখ থাকে উদীয়মান সূর্যের দিকে। গ্রামে শীতের সকালে মুড়ি-চা খাওয়ার দৃশ্য দেখা যায়। সূর্যের আলাের প্রত্যাশায় পােহাতে ছােট শিশুদের মুড়ি খাবার দৃশ্য চমৎকার।
শীতের সকালে শহরের দৃশ্য একটু ভিন্নতর। শহরে শীতের সকালে হকারদের পত্রিকা বিক্রির ডাক, রাস্তার পাশে চায়ের দোকানে ভিড় আর কত রং-বেরঙের পােশাকের বাহার দেখা যায়। গরিব মানুষের জন্য শীত যেন অভিশাপ বয়ে আনে। শীতের সকালে গ্রামাঞ্চলে খেজুরের রস খাবার উৎসব হয়। এ সময় পিঠা খাওয়ার ধুম পড়ে যায় প্রতিটি বাড়িতে। শীতের সকালে কুয়াশাচ্ছন্ন নদীর জলে এক অপূর্ব আবহ সৃষ্টি হয়। শীতের সকাল তেমন দীর্ঘ হয় না। একসময় সূর্য ওঠে। প্রকৃতির কোলে সৃষ্টি হয় নতুন আবাহন। তারপরও রেশ থেকে যায়। মনে কেঁদে উঠে আরেকটি সকালের প্রত্যাশায়। এভাবে একসময় শীত বিদায় নেয়, আগমন ঘটে অন্য ঋতুর।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ – ৫

ছয় ঋতুর বৈচিত্র্যেপূর্ণ দেশ বাংলাদেশ ছয় ঋতুর মধ্যে শীতের অবস্থান হেমন্তের পর আর বসন্তের আগে। গাছের ঝরা পাতায় ঘটে শীতের আগমন আর বসন্তের নতুন পাতা জাগিয়ে ঘটে শীতের বিদায়। শীতকাল এ দেশের প্রকৃতির অন্যরকম রূপ, যা সম্পূর্ণভাবে ধারণ করে শীতের সকাল। তেমনি শীতের একটি সকাল উপভােগ করার সুযােগ হয়েছিল এবারের শীতে। ছুটির সুবাদে স্নিগ্ধ একটি সকালের স্পর্শ অনুভব করা সম্ভব হয়েছিল। শীতের সকালে কুয়াশার চাদর পরিবেশকে মনােরম করে তুলেছিল। যখন এই কুয়াশার চাদর ভেদ করে চারদিকে রূপালি আলাে ছড়িয়ে পড়ল, তখন বাড়িঘর, গাছপালা ও প্রকৃতি ঝলমল করে ওঠল ।

কুয়াশার কারণে পাখিরাও নীড় ছেড়ে বের হয় না, কোলাহলে মেতে ওঠে না। চারিদিক থেকে ভেসে আসে সরষে ফুলের মধুর সৌরভ। এভাবে ব্যস্ততাহীন, ধীর লয়ে আগমন ঘটল শীতের একটি সকালের । উত্তর দিক থেকে হিম শীতল বাতাস বইতে থাকল! যেন দীর্ঘশ্বাসের মতাে গাছের পাতার ফাঁকে ফাঁকে শির শির করে এ বাতাস বয়ে যায়। এ বাতাসে পাতাগুলাে কেঁপে কেঁপে উঠল। শীতের সকালে বাড়িতে নানা ধরনের পিঠা খাওয়ার ধুম পড়ে গেল। সকাল বেলার রােদে পিঠা খাওয়ার যে আনন্দ, তা সব আনন্দকেই যেন ছাড়িয়ে যায়। এই আনন্দ চারপাশে উৎসবের সমারােহ তৈরি করলেও শীতের সকাল বেলাটা মানুষ লেপ-কাঁথার নিচেই কাটাতে ভালােবাসে।

শীতের সকাল অলস আর উৎসবের আমেজে উপভােগ্য হলেও গরিবদের জন্য যে তা কতটা কষ্টের এবার সে বিষয়টি অবলােকন করলাম। গ্রামের কৃষকেরা সকাল হতেই গরু আর লাঙল নিয়ে বের হয়ে যায় মাঠে। তারা খেতে মুগ, মশুর, ছােলা, সরিষার বীজ বােনে। কয়দিন পর যখন সেগুলাের কচি পাতা মাথা উঁচু করে তখন চারদিকে বিরাজ করে এক অপূর্ব স্নিগ্ধতা, কোমলতা। শীতের সকালে গাছিরা খেজুর গাছ থেকে রসের হাড়ি নামায়। খেজুর রসের লােভনীয় মিষ্টি গন্ধে তখন সকলের মন মেতে ওঠে। ছােট ছেলেমেয়েরা সেই সকালের মিষ্টি রােদে বসে গুড় দিয়ে মুড়ি খায়। তবে বুঝতে পারলাম শহর আর গ্রামের শীতের সকালের চিত্র ভিন্ন।

গ্রামের তুলনায় শহরে শীতের প্রকোপ তুলনামূলক কম। তাই শহরের মানুষ একটু দেরি করে ঘুম থেকে ওঠে। উঁচু উঁচু দালানকোঠায় বসবাসকারী শহরের মানুষ এজন্য শীতের সকালের স্নিগ্ধতা উপভােগ করতে পারে না। সূর্যের আলাের তীব্রতা বাড়লে দূর হয় শীতের সকালের আমেজ। শীতের সকাল প্রকৃতিকে এক পবিত্র সৌন্দর্যের সৃষ্টি করে, যা ছড়িয়ে থাকে সারাবেলা।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ – ৬

আমাদের দেশে ছয়টি ঋতু বিরাজমান। তন্মধ্যে স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যে সমুজ্জ্বল শীতকাল। ঋতুচক্রের আবর্তে বাংলাদেশে শীত আসে। হেমন্তের ফসল ভরা মাঠ যখন শূন্য ও রিক্ত হয়ে পড়ে, তখনই বােঝা যায়, ঘন কুয়াশার চাদর মুড়ি দিয়ে শীত আসছে।উত্তরের হিমেল হাওয়ায় ভর করে হাড়ে কাপন লাগিয়ে সে আসে তার নিজস্ব রূপ নিয়ে। প্রকৃতি তখন তার সমস্ত আবরণ খুলে ধারণ করে দীনহীন বেশ। প্রকৃতিতে সৃষ্টি হয় এক ভিন্ন সৌন্দর্য। এ সৌন্দর্য পূর্ণতা পায় শীত সকালে। শীতের সকালে সর্বত্র ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন থাকে।

সর্বত্র বিরাজ করে কনকনে ঠাণ্ডা। মাঝে মাঝে ফুয়াশা এতই ঘন থাকে যে, সূর্যরশ্মিও একে ভেদ করতে পারে না। সবকিছু ঝাপসা দেখায়। দূরের জিনিস কদাচিৎ দেখা যায়। সূর্ণ বিলম্বে উঠে বলে মনে হয়। শিশু এবং বৃদ্ধরা সকালে হাড় কাঁপানাে শীতকে ভয় পায়। খুব সকালের ঠাণ্ডা এড়াতে তারা কিছুটা দেরিতে ঘুম থেকে উঠে। সকালে সূর্য যখন উকি দেয় গাছ ও ঘাসের উপর তখন রাতের ঝরা শিশির সােনার মতাে জ্বলল করতে থাকে। শীতের সকালের এক অসাধারণ আকর্ষণ সরষে ফুলের হলুদ মাঠ।

সকালের সূর্যালােক যেন তার নিপুণ হাতে প্রতিটি সরষে গাছকে নবরূপে ঢেলে সাজায়। পশু-পাখি সূর্যের আলাে দেখে আনন্দিত হয়। কৃষকরা গরু ও লাঙল নিয়ে মাঠে যায়। তাদের হাতে শােভা পায় তুঙ্কা। ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা সূর্যের মুখ দেখার জন্য বারবার জানালার ফাঁকে উঁকি মারে। কোথাও বা ছেলেমেয়েরা খড় সংগ্রহ করে আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করে, আর হাসি-তামাশায় মেতে উঠে। বৃদ্ধ লােকেরা রোদ পােহায়। কিছু লােক খেজুরের রস বিক্রি করতে বের হয়। অনেকেই ঘরে তৈরি পিঠা ও খেজুরের রস খেতে পছন্দ করে। বেলা বেশি হওয়ার সাথে সাথে শীতের সকালের দৃশ্য ধীরে ধীরে মিলিয়ে যায়। বেলা বেড়ে চলে, কুয়াশা দূরীভূত হয় এবং লােকেরা তাদের নিজ নিজ কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ – ৭

আমাদের দেশ ছয় ঋতুর দেশ। এ ছয় ঋতুর মধ্যে শীতকাল অন্যতম। বাংলার প্রকৃতিতে শীতের সকাল এক ভিন্নতর রূপ নিয়ে আবির্ভূত হয়। পৌষ ও মাঘ শীতকাল হলেও অগ্রহায়ণের শুরু থেকেই শীতের সকাল দিগন্তের পার বেয়ে গাছপালার উপরে কুয়াশার চাদর জড়িয়ে উপস্থিত হয়। তারপর ক্রমে ক্রমে দিন এগিয়ে চলে, অগ্রহায়ণ, পৌষ পেরিয়ে মাঘে এসে শীতের সকাল তার পূর্ণরূপ প্রকাশ ঘটায়। প্রচণ্ড প্রতাপশালী সূর্যটা কুয়াশার ভারী আবরণে ঢাকা পড়ে। তার লজ্জারাঙা রূপ নিয়ে পূর্ব দিগন্তে উঁকি দেয়। তখন সােনাঝরা এক চিলতে রােদ শীতার্ত শরীরে কি দুর্লভ মনে হয়। এই সময়ে খেজুরের রস, ভাপা পিঠে সবার কাছেই মজাদার হয়ে ওঠে। পেটের ক্ষুধার চেয়ে মনের ক্ষুধা ও চোখের ক্ষুই বড় হয়ে জাগে। গরম পিঠা থেকে যখন ধোঁয়ার মতাে ভাব বেরুতে থাকে, তখন কার না চোখে ক্ষুধা পায়। শীতের সকল প্রকৃতির এক যুবুথুবু মুহূর্ত হলেও খাদ্যের লােভে মনটা চাঙ্গা হয়ে ওঠে। অগ্রহায়ণের আশীর্বাদে ধনী-দরিদ্র প্রায় সবার ঘরেই খাবার থাকে। অভাবের কষ্টটা এই সময় থাকে না। তাই শীতের সকাল বাংলার প্রকৃতিতে এক মজার সময়ই বটে।

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ – ৮

শীতের সকাল কুয়াশাচ্ছন্ন এবং ঠাণ্ডা। সর্বত্র ঘন কুয়াশা থাকে। মাঝে মাঝে কুয়াশা এতই ঘন থাকে যে, সূর্যরশ্মি একে ভেদ করতে পারে না। সবকিছু ঝাপসা দেখায়। দূরের জিনিস কদাচিৎ দেখা যায়। সূর্য বিলম্বে উঠে বলে মনে হয়। শিশু এবং বৃদ্ধরা সকালের হাড় কাঁপানাে শীতে কষ্ট ভােগ করে। রাতে শিশির পড়ে। যখন সকালে সূর্য উকি দেয়, গাছ ও ঘাসের উপর সেগুলো সােনার মতাে চিকচিক করতে থাকে। কৃষকেরা গরু ও লাঙ্গল নিয়ে মাঠে যায়। ছেলেমেয়েরা খড় সংগ্রহ করে আগুন জ্বালিয়ে তাদের গরম করে। বৃদ্ধ লােকেরা রােদ পােহায়। লােকজন চিড়া, মুড়ি, খই এবং বিভিন্ন প্রকার পিঠা খেতে পছন্দ করে। বেলা বেশি হওয়ার সাথে সাথে শীতে সকালের দৃশ্য ধীরে ধীরে মিলিয়ে যায়। বেলা বেড়ে চলে, কুয়াশা দূরীভূত হয় এবং লােকেরা তাদের নিজ নিজকাজে যেতে শুরু করে।

 

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ-৯

বাংলাদেশ ছয় ঋতুর বৈচিত্র্যময় দেশ। ছয়টি ঋতুতে শীতকাল শরতের পরে এবং বসন্তের আগে থাকে। গাছের পতনের পরেই শীতের আগমন আর বসন্তের নতুন পাতার জেগে শীতের বিদায়। শীতের এদেশে প্রকৃতির এক ভিন্ন রূপ, যা শীতের সকালকে পুরোপুরি ধারণ করে। এই শীতের সকালটা উপভোগ করার মতো সুযোগ থাকে। ছুটির সুবাদে স্নিগ্ধ সকালের স্পর্শ অনুভব করা সম্ভব হয়েছিল। শীতের সকালে কুয়াশার চাদরে মনোরম পরিবেশ। কুয়াশা যখন কম্বলের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে, তখন ঘরবাড়ি, গাছপালা এবং প্রকৃতি ঝলমল করে। কুয়াশার কারণে পাখিরাও বাসা ছাড়ে না, কোলাহলে উঠে না। সরিষা ফুলের মিষ্টি গন্ধ চারিদিক থেকে ভেসে আসছে। এইভাবে একটি ব্যস্ত শীতের সকাল এলো, তাড়াহুড়ো ছাড়াই। উত্তর দিক থেকে ঠাণ্ডা বাতাস বইতে থাকে! যেন দীর্ঘশ্বাস, গাছের পাতা বেয়ে বাতাস বয়ে যায়। বাতাসে পাতাগুলো কেঁপে উঠল। শীতের সকালে নানা রকমের পিঠা খাওয়ার গন্ধ বাড়িতে ভেসে ওঠে।

সকালে কেক খাওয়ার আনন্দ সব আনন্দের ঊর্ধ্বে। এই আনন্দ চারিদিকে উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি করলেও মানুষ শীতের সকালগুলো কম্বলের নিচে কাটাতে ভালোবাসে। যদিও শীতের সকালগুলো অলস ও উৎসবমুখর হয়, কিন্তু এবার গরিবদের জন্য কষ্টকর ব্যাপারটা এড়িয়ে গেলাম। গ্রামের কৃষকরা সকালে গরু-লাঙল নিয়ে মাঠে যায়। তারা মুগ ডাল, মসুর ডাল, ভুসি এবং সরিষা খায়। কয়েকদিন পর সেগুলার কচি পাতাগুলো যখন মাথা তোলে তখন চারিদিকে এক অপূর্ব স্নিগ্ধতা আর কোমলতা। শীতের সকালে গাছগুলো খেজুর থেকে রস নামিয়ে নেয়। খেজুরের রসের মিষ্টি গন্ধে সবার মন ভরে গেল। সেই সকালের মিষ্টির রেডের ওপর ছয় শিশু বসে গুড় ঢেকে খায়। তবে বুঝলাম শহর ও গ্রামে শীতের সকালের চিত্র ভিন্ন। গ্রামাঞ্চলের তুলনায় শহরাঞ্চলে শীতের প্রকোপ তুলনামূলকভাবে কম। তাই একটু দেরিতে ঘুম ভাঙে শহরের মানুষ। এ কারণে উঁচু দালানে বসবাসকারী নগরবাসী শীতের সকালের স্নিগ্ধতা উপভোগ করতে পারে না। সূর্য রশ্মির তীব্রতা বাড়লে শীতের সকালের বিস্ময় উধাও হয়ে যায়। শীতের সকাল প্রকৃতিতে এক পবিত্র সৌন্দর্য সৃষ্টি করে, যা ছড়িয়ে আছে সর্বত্র। শীতের সকাল অনুচ্ছেদ

শীতের সকাল অনুচ্ছেদ-১০

আমাদের দেশে ছয়টি ঋতু আছে। তাদের মধ্যে উজ্জ্বল শীতকাল তার স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য সহ। বাংলাদেশে শীত আসে ঋতু চক্রে। শরতের ফসলে ভরা ক্ষেত যখন ফাঁকা ফাঁকা হয়ে যায়, তখন অনুর্বর হয়ে যায়, ঘন কুয়াশার চাদর নিয়ে শীত আসে। প্রকৃতি তখন তার সমস্ত পর্দা সরিয়ে দরিদ্রদের বেশ ধরে রাখে। প্রকৃতিতে সৃষ্টি হয় এক অন্যরকম সৌন্দর্য। শীতের সকালে এই সৌন্দর্য পূর্ণতা পায়। শীতের সকাল সবখানে ঘন কুয়াশায় ঢাকা। সবখানেই ঠান্ডা। কখনও কখনও কুয়াশা এত ঘন হয় যে সূর্যের রশ্মিও এতে প্রবেশ করতে পারে না। সবকিছু ঝাপসা দেখায়। দূরের জিনিস খুব কমই দেখা যায়। সূর্য দেরিতে উঠছে মনে হচ্ছে। সকালে হাড় কাঁপানো ঠান্ডায় আতঙ্কে শিশু ও বৃদ্ধরা।

ভোরের ঠাণ্ডা এড়াতে তারা একটু দেরি করে ঘুম থেকে ওঠেন। সকালে যখন গাছে-ঘাসে সূর্য ওঠে, তখন সেনাবাহিনীর মতে রাতের শিশির ঝলমল করতে থাকে। শীতের সকালের অন্যতম আকর্ষণ হল সরিষা ফুলের হলুদ ক্ষেত। তার দক্ষ হাতে প্রতিটি সরিষা গাছে সকালের সূর্য আলোকিত হোক। পশু-পাখিরা সূর্যকে দেখে খুশি হয়। কৃষকরা গরু-লাঙল নিয়ে মাঠে যায়। টুঙ্কা তাদের হাতে শৈব পায়। ছোট্ট শিশুরা সূর্যের মুখ দেখার জন্য বারবার জানালা দিয়ে উঁকি দেয়। কোথাও বা অন্য বাচ্চারা খড় সংগ্রহ করে এবং ঠান্ডা থেকে বাঁচার জন্য আগুন জ্বালায় এবং জোরে হাসে। বয়স্ক মানুষ রোদে পোড়া হয়। কেউ কেউ খেজুরের রস বিক্রি করতে বের হন। অনেকেই ঘরে তৈরি কেক ও খেজুরের রস খেতে পছন্দ করেন। বেলা বাড়ার সাথে সাথে শীতের সকালের দৃশ্য ক্রমশ বিবর্ণ হতে থাকে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে কুয়াশা কেটে যায় এবং হ্রদগুলি তাদের নিজস্ব কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে।

Leave a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This content is protected! By banglanewsbdhub

Scroll to Top